ভারত জুড়ে

সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সন্দেহের তীর জাকির নায়েকের দিকে: ভারতের ফিরলেই গ্রেফতার হতে পারেন এই ইসলামিক স্কলার্স

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ভারতের ইসলাম ধর্মবিষয়ক বক্তা জাকির নায়েককে গ্রেপ্তারের দাবিতে দেশটির উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের আলেমরা একজোট হয়েছেন। জাকির নায়েক ও তাঁর বক্তব্য সম্প্রচারকারী টেলিভিশন চ্যানেল পিস টিভির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ওই আলেমরা।

রমজানের মরশুমে মক্কা সফরে রয়েছেন প্রখ্যাত ইসলাম প্রচারক জাকির নায়েক। ভারতের মাটিতে পা রাখলেই তাঁকে গ্রেফতার করা হতে পারে বলে জানা ভারতের একটি মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে।

চলতি মাসের ১১ তারিখে ভারতে ফেরার কথা রয়েছে তার। মুম্বইয়ের ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনের। ইতোমধ্যে মুম্বাইয়ে জাকির নায়েকের ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন অফিসে নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

জাকির নায়েকের পরিচালনাধীন টেলিভিশন চ্যানেলের অনুষ্ঠানে বহু আপত্তিকর বিষয় সম্প্রচার করা হয়েছে বলেও দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি বাংলাদেশের গুলশানে হামলাকারী সন্ত্রাসীরা হয়তো জাকির নায়েকের মাধ্যমে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন বলে প্রচার হওয়ার বিষয়টি ভারত সরকার গুরুত্ব দিয়ে দেখছে।

উত্তরপ্রদেশের বেরেলি শহরের ঈদের জামাতে বেরেলভি অনুসারী আলেমরা বলেন, ঢাকার ক্যাফেতে হামলাকারীরা জাকের নায়েকের মাধ্যমে অনুপ্রাণিত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। ইদের জামাতে মাওলানা শাহাবুদ্দিন রাজভি বলেন, জাকির নায়েকের বক্তব্যে সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদের সমর্থন করা হয়। তাঁকে ও তাঁর টেলিভিশন চ্যানেল নিষিদ্ধ করা উচিত।

বেরেলি শহরের ঈদের জামাতে মাওলানা আসজাদ রাজা খান কাদরি বলেন, ‘বিদ্বেষপূর্ণ’ বক্তব্য দেওয়ার জন্য জাকির নায়েককে নিষিদ্ধ করা উচিত। তাঁর সমর্থকরা ইসলাম এবং ভারতীয় সংস্কৃতির বিরুদ্ধে। আসজাদ রাজা খান কাদরি আরো দাবি করেন, এর আগে ২০০৮ সালে লক্ষ্ণৌ, কানপুর ও আলাহাবাদের জাকির নায়েকের অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করা হয়।

টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, হায়দরাবাদে গ্রেপ্তার হওয়া জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের সমর্থক মোহাম্মদ ইব্রাহিম ইয়াজদানিকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, জাকির নায়েকের বক্তব্যের মাধ্যমে সে উদ্বুদ্ধ হয়েছিল।

যুক্তরাজ্য, কানাডা ও মালয়েশিয়ায় এরই মধ্যে নিষিদ্ধ হয়েছেন জাকির নায়েক।

ঢাকার গুলশানের রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার পিছনে জাকির নায়েকের যোগসূত্র রয়েছে বলে কোনো কোনো নিরাপত্তা সূত্র জানিয়েছে। জঙ্গি গোষ্ঠীর সঙ্গে যোগসূত্র মেলায় জাকির নায়েক এবং তার সংস্থার উপর তদন্ত চালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close