যুক্তরাজ্য জুড়ে

সমুদ্র রক্ষায় নগ্ন তিন হাজার নর-নারী

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব উষ্ণায়ণের ফলে দ্রুত গলছে আন্টার্কটিকা, গ্রিনল্যান্ডের বরফস্তর। ফুলে উঠছে সমুদ্র, তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় দিন গুনছে পৃথিবীর বেশ কিছু স্থান। মানুষের অপরিসীম অবহেলার জেরে ছন্দপতন ঘটছে প্রকৃতির।

সম্প্রতি মার্কিন শিল্পী স্পেন্সার টিউনিকের ডাকে ব্রিটিশ শহর হালে এক অভূতপূর্ব বিক্ষোভ প্রদর্শনীতে সাড়া দিয়েছিলেন নগরবাসী। সমুদ্রের চার বিশিষ্ট রঙে অনাবৃত শরীর রাঙিয়ে গণবিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেছিলেন অসংখ্য মানুষ। তাঁদের অনেকেই ফেসবুকে আন্দোলনের ছবি পোস্ট করেন।

কিন্তু সেই সমস্ত ছবি কুরুচিকর এবং যৌনতাকে প্রশ্রয় দিচ্ছে, এই অভিযোগে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সোশ্যাল মিডিয়া জগতের বে-তাজ বাদশা। মনে রাখা জরুরী, প্রশ্নের উত্তর না দেওয়ার মধ্যে কিন্তু মৌন সম্মতির অব্যর্থ ইঙ্গিতই খুঁজে পান সমালোচকরা।

একটি বিবৃতি মারফত ফেসবুকের তরফে জানানো হয়েছে, আমরা নগ্নতা প্রদর্শনের বিরোধী। কিছু ছবি এই কারণে সরিয়ে দেওয়া হয়। এই নিষেধাজ্ঞা যে কোনও পোস্টের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য যদি না তা কোনও শিক্ষামূলক, ব্যঙ্গাত্মক অথবা হাস্যরস সৃষ্টির জন্য প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। যে সমস্ত কনটেন্ট যৌন হিংসা ছড়ায় অথবা তাতে প্ররোচনা দেয়, সরিয়ে দেওয়া হয় সেই সমস্ত ও ইত্যাদি..

এই সম্পর্কে অবশ্য ফেসবুক কোনও মন্তব্য করেনি। যেমন, দিনের পর দিন ফেসবুকের পাতায় হিংসা, সন্ত্রাস, শিশুশ্রম বা বন্যপ্রাণ ধ্বংসের বিবিধ নমুনা ছড়িয়ে থাকলেও তাতে কী কারণে কোনও পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না কর্তৃপক্ষকে।

সি অফ হাল এর প্রধান আয়োজক মার্কিন শিল্পী স্পেন্সার টিউনিকের দাবি, নিছক নগ্নতায় ইন্ধন জোগানো বা যৌন প্ররোচনা দিতে এই স্বেচ্ছা প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়নি। তাঁর মতে, শৈল্পিক সত্তার দাবি মেনে পরিবেশ রক্ষার তাগিদে এ এক স্বতঃস্ফূর্ত শান্তিপূর্ণ সমাবেশ। বলা বাহুল্য, এই যুক্তির ধার ধারেনি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। উল্টে নিজের নগ্ন ছবি পোস্ট করার দায়ে সোশ্যাল মিডিয়ার পাতা থেকে ৩ দিনেক জন্য নির্বাসিত হয়েছেন হাল শহরের বাসিন্দা এলি মর্টিমার (৪৬)।

ফেসবুক প্রোফাইল দেখতে পেলেও তাতে কোনও কমেন্ট বা পোস্ট করতে পারছেন না মহিলা। দুপুরে ছবি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই নোটিশ দিয়ে তাঁকে নির্বাসনের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে এলি জানিয়েছেন।

একই অপরাধে ফেসবুকের পাতা থেকে মুছে দেওয়া হয়েছে হালের অন্য দুই বাসিন্দা হেলেন জেমস (৩৮) ও সু রবার্টসনের (৫২) পোস্ট করা বিক্ষোভের নগ্ন ছবি। তিনজনেরই অভিযোগ, ‘সি অফ হাল’-এ যোগ দেওয়া কয়েক হাজার মানুষের মধ্যে বেছে বেছে তাঁদেরই বা কেন চিহ্নিত করে শাস্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হল?

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close