ইউরোপ জুড়ে

ইইউ নাগরিকত্ব কিনতে পারেন বিত্তশালীরা

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ইউরোপের কোনো দেশের পাসপোর্ট পাওয়া অনেকের কাছেই বেশ লোভনীয় ব্যাপার৷ এর ফলে ইউরোপীয়ইউনিয়নের যে কোনো দেশে শান্তিতে বসবাস করা যায়, চাকরি বা ব্যবসা করা যায়৷ অনেক দেশে ভিসা ছাড়াই যাতায়াত করা যায়৷

শুধু অর্থই যে মানুষকে সুখী করতে পারে না। একথা সবাই জানে কিন্তু অর্থ যেই উরোপের কোনো দেশের নাগরিকত্বও এনে দিতে পারে। তা হয়ত অনেকে জানেন না। এই স্বপ্ন অনেকের৷ আর কিছু অর্থের বিনিময়ে অনেকের এই স্বপ্নই বাস্তবে পরিণত করতে যাচ্ছে মাল্টা

সম্প্রতি ছোট্ট দ্বীপ-রাষ্ট্র মাল্টাএই রকমই এক সিদ্ধান্তের কথা জানালো৷ ৬৫০,০০০ ইউরো দিলেই কেনা যাবে দেশটির পাসপোর্ট৷

মাল্টার প্রধানমন্ত্রী জোসেফ মাস্কাট এইভাবে দেশের উপার্জন বাড়াতে ইচ্ছুক৷ এছাড়া সারা বিশ্বের বিত্তশালীদেরদেশটিতে আসার ব্যাপারে আকৃষ্ট করতে চান তিনি৷

এর ফলে বছরে ২০০ থেকে ৩০০ আবেদনপত্র পাওয়া যাবে বলেআশা করে মাল্টা সরকার৷ প্রথম বছর নাগরিকত্ব বিক্রির মাধ্যমে ৩০ মিলিয়ন পাওয়া যাবে বলে আশা করেন প্রধানমন্ত্রী মাস্কাট৷

মাল্টা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হওয়ায় দেশটির নাগরিকত্ব পেলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি ২৭ দেশেও কাজও বসবাসের সুযোগ পাবেন লোকজন৷সহজ ভিসা চুক্তি থাকায় যুক্তরাষ্ট্রে যাতায়াতও সহজ হবে৷

অন্যদিকে মাল্টার বিরোধী দল এই ব্যবস্থার সমালোচনা করে বলছে, রাশিয়ার মতো দেশগুলির বিত্তশালীরানাগরিকত্ব নিয়ে নিশ্চয়ই দ্বীপরাষ্ট্রটিতে বসবাস করতে বা টাকা বিনিয়োগ করতে চাইবেন না৷ আর এই ধরনেরব্যবস্থার ফলে কর বাঁচানোর স্বর্গে পরিণত হতে পারে দেশটি৷

অবশ্য জার্মানিতেও যে সব বিদেশি খেলাধুলা বা বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুনাম অর্জন করেন, তাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার ব্যাপারে চেষ্টাকরা হয়৷ অভিবাসনের ক্ষেত্রে এই ধরনের শ্রেণি বিভেদের ফলে অভিবাসন-ইচ্ছুক সাধারণ মানুষের মনে ক্ষোভেরসৃষ্টি হতে পারে, যা কারো জন্যই মঙ্গল বয়ে আনবে না৷

২০১২ সালে বিনিয়োগের বিনিময়ে অস্ট্রিয়ার নাগরিকত্ব কেউ পেয়েছে বলে জানা যায়নি৷ এর আগের বছর মাত্র ২৩জন এই পথে অস্ট্রিয়ার পাসপোর্ট পেয়েছেন৷

অন্যদিকে, পাঁচ বছর ধরে ১৫ মিলিয়ন ইউরো খাটালে সাইপ্রাসের নাগরিকত্ব পাওয়া যায়৷ আর দেশটির প্রেসিডেন্ট নাকি সম্প্রতি এই পদ্ধতি আরো সহজ করার ঘোষণা দিয়েছেন৷ভবিষ্যতে তিন মিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগ করলেই সাইপ্রাসের পাসপোর্ট দেওয়া হবে৷

আয়ারল্যান্ডে ২০০১ সাল পর্যন্ত তুলনামূলকভাবে সহজে নাগরিকত্ব পাওয়া যেত৷ বর্তমানে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিল্প ক্ষেত্রে কোনো প্রকল্পে পাঁচ লক্ষ ইউরো বিনিয়োগ করলে দেশটিতে থাকার অনুমতি পাওয়া যায় তবে নাগরিকত্ব নয়৷ পর্তুগালে কোনো বাড়ি কিনলে অভিবাসনের অনুমতি পাওয়া যায়৷ স্পেনও এই ধরনের পরিকল্পনা করছে৷ এক্ষেত্রে কমপক্ষে ১৬০,০০০ ইউরো বিনিয়োগ করতে হবে৷

হাঙ্গেরিতে সরকারি বন্ড কিনলে লোভনীয় বস্তুটি পাওয়া যায়৷ রাশিয়া, চীন ও ভারতের মানুষদের এ ব্যাপারে আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়৷ অস্ট্রিয়ায় কোনো বিদেশি যদি দেশটির জন্য বিশেষ কোনো অবদান রাখে। তাহলে তাঁকে উপহার হিসাবে নাগরিকত্ব দেওয়া যেতে পারে৷

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close