এশিয়া জুড়ে

দক্ষিণ কোরিয়ায় নতুন প্রধানমন্ত্রীর নাম ঘোষণা

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক গিউন-হাই দেশটির মন্ত্রিসভায় বড় ধরনের রদবদল করেছেন। প্রধানমন্ত্রী হং কিয়ো-আনের জায়গায় নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করেছেন কিম বিয়োং-জুনের নাম। শীর্ষ আরও দুই কর্মকর্তার স্থলেও নতুন কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছেন তিনি। পার্কের ঘনিষ্ঠ একজনের স্ক্যান্ডালে জড়িয়ে পড়ার জের ধরে জনগণের আস্থা পুনরুদ্ধারেই এমন উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।

খবরে বলা হয়, বুধবার মন্ত্রিসভার নতুন এই পরিবর্তনের ঘোষণা দেন পার্ক গিউন-হাই। এর আগে পার্কের ঘনিষ্ঠ এক বন্ধু সরকারি কোনো দায়িত্বে না থেকেও পিছন থেকে কলকাঠি নেড়ে তার পরিচালিত ফাউন্ডেশনে বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানকে অর্থ অনুদান দিতে বাধ্য করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এরই মধ্যে পার্কের ওই বন্ধু চোই সুন-সিলকে আটক করা হয়েছে সোমবার। পার্কের ঘনিষ্ঠ আন জং-বিয়ম নামের আরও একজনকেও আজ আটক করেছে বলে খবর দিয়েছে বিবিসি। পার্ক গত সপ্তাহে স্বীকার করে নিয়েছেন, চোই তার কিছু বক্তব্যকে সম্পাদনা করে দিয়েছেন এবং জনসংযোগেও কিছু সহায়তা করেছেন।

তবে দক্ষিণ কোরিয়ার গণমাধ্যগুলো বলছে, চোই সম্ভবত সরকারি কাজে এর চেয়েও বেশি ভূমিকা রেখেছেন। এই কেলেঙ্কারির জের ধরে পার্কের পদত্যাগের দাবিও উঠেছে। কিন্তু সেই ধাক্কা সামাল দিতে নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিয়েছেন পার্ক। এই পদে তিনি বেছে নিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রয়াত উদারপন্থি প্রেসিডেন্ট রোহ মু-হাইউমের শীর্ষ উপদেষ্টা কিম বিয়োং-জুনকে।

আল জাজিরার হ্যারি ফসেট সিউল থেকে জানিয়েছেন, দক্ষিণ কোরিয়াতে অত্যন্ত শক্তিশালী একজন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিয়ে জাতীয় ঐকমত্যের মন্ত্রিসভা গঠন করার আলোচনা রয়েছে। তাতে করে সরকারকে প্রেসিডেন্টের থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী পদে পার্কের করা নতুন নিয়োগকে সংসদে অনুমোদিত হতে হবে। তবে রক্ষণশীল বলে পরিচিত পার্কের এই উদ্যোগকে উদারপন্থিদের কাছাকাছি যাওয়ার প্রচেষ্টা হিসেবে দেখা যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও অর্থমন্ত্রী ও নিরপত্তামন্ত্রীর পদেও পরিবর্তন এনেছেন পার্ক। তাদের জন্য অবশ্য সংসদের অনুমোদন প্রয়োজন হবে না। তবে আল জাজিরার প্রতিবেদক জানিয়েছেন, বিরোধী দল সংসদ বর্জন করলে নতুন নিয়োগের সংসদীয় অনুমোদন পাওয়াটা জটিল হয়ে পড়বে। বিরোধী ডেমোক্রেটিক পার্টির পক্ষ থেকে পার্কের এই উদ্যোগকে তাৎক্ষণিকভাবেই সমালোচনা করা হয়েছে।

বলা হয়েছে, রাজনৈতিক যে কেলেঙ্কারিতে পার্ক জড়িয়ে পড়েছেন, তা থেকে মনোযোগ সরাতেই প্রধানমন্ত্রী পদে পরিবর্তন করেছেন পার্ক। দলটির দাবি, চোই ও কেলেঙ্কারির সঙ্গে পার্কের সম্পর্ক নিয়ে সব সত্য কথা প্রকাশ করতে হবে।

এদিকে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সংসদের অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকা নবনিযুক্ত প্রধানমন্ত্রী কিম প্রেসিডেন্ট পার্কেরও তদন্তের মুখে পড়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেননি। সংবাদ সম্মেলনে কিম বলেন, ‘আমার অবস্থান হলো একটি তদন্ত হতেই পারে। তবে যেহেতু তিনি রাষ্ট্রপ্রধান, তাই এই তদন্তের প্রক্রিয়ায় সতর্ক থাকতে হবে।’ পার্ককে তদন্তের মুখে ফেলার দাবি বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্যদেরও রয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close