যুক্তরাজ্য জুড়ে

অনুচ্ছেদ ৫০ সক্রিয় করার সময়সূচীতে কোনো পরিবর্তন আসবে না

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: হাইকোর্টের রায়ে লিসবন চুক্তির অনুচ্ছেদ ৫০ সক্রিয় করার সময়সূচিতে কোনো পরিবর্তন আসবে না। এমন আশা করছে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’র বাসভবন ১০ ডাউনিং স্ট্রিট। গতকাল ইংল্যান্ডের হাইকোর্ট রায়ে বলেছে, পার্লামেন্টের অনুমোদন ছাড়া অনুচ্ছেদ ৫০ সক্রিয় করা যাবে না। যদি তা করা হয় তা হবে বেআইনী। এ নিয়ে তোলপাড় চলছে বৃটেন সহ সারাবিশ্বে।

কারণ, ব্রেক্সিট ইস্যুটি বৃটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যকার হলেও এর সঙ্গে জড়িত বিশ্ব বাণিজ্য, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক খাত। ব্রেক্সিট গণভোটের পর অনেকে বলেছেন, এর মধ্য দিয়ে ইউরোপ ভেঙে যেতে পারে। আবার অনেকে সতর্কতা উচ্চারণ করেছেন বৃটেনকে নিয়ে।

বলা হয়েছে, বৃটেন এর মধ্য দিয়ে বিপর্যয়কর অবস্থায় পড়বে। তা সত্ত্বেও জনগণের রায় মেনে প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’র সরকারকে ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। তা করতে তাকে প্রথমেই অনুচ্ছেদ ৫০ সক্রিয় করতে হবে। এটা করার পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে সমঝোতার জন্য দু’বছর সময় পাবেন তিনি।

কোনো কোনো রাজনীতিক, সংবিধান বিশেষজ্ঞ তেরেসা মে’কে পরামর্শ দিয়েছেন যে, তিনি নির্বাহী ক্ষমতাবলে পার্লামেন্টের অনুমোদন ছাড়াই অনুচ্ছেদ ৫০ সক্রিয় করতে পারবেন এবং ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে পারবেন। এর বিরুদ্ধে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিলেন দু’ নারী গিনা মিলার এবং দিয়ের ডোস সান্তোস। তাদের চ্যালেঞ্জের কাছে হেরে গেছে তেরেসা মের সরকার। আদালত সরকারের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছে।

ফলে গতকাল বৃটিশ বেশিরভাগ মিডিয়ায় বলা হয়েছে, এর মধ্য দিয়ে আটকে গেল ব্রেক্সিট। অনলাইন ডেইলি মেইল তো শিরোনাম করে ‘ব্রেক্সিট বিট্রেয়াল’। তাতে সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ জানানো ওই দু’নারীর ছবি দিয়ে এমন শিরোনাম করা হয়। এ ছাড়া বৃটেনের মিডিয়াজুড়ে গতকাল ও আজ শুধুই এ নিয়ে রিপোর্টের ছড়াছড়ি।

এই যখন অবস্থা তখন ডাউনিং স্ট্রিটে প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’র একজন মুখপাত্র সাংবাদিকদের বলেছেন, আগামী মার্চের শেষ সময়ের মধ্যে অনুচ্ছেদ ৫০ সক্রিয় করার পরিকল্পনা এখনও আমাদের আছে। আমরা আশা করি সেই সময়সীমার মধ্যে এটা করতে আইনগত অনুমোদন পাওয়া উচিত হবে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

এতে বলা হয়েছে, গতকাল ইংল্যান্ডের হাইকোর্ট ব্রেক্সিট নিয়ে ওই রায় দেয়ার পর বৃটিশ সরকার বলেছে, তারা এ রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করছে। তবে অন্য একটি খবরে বলা হয়, আদালত রায় দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে সরকার এ আপিল করেছে। আপিলের শুনানি হবে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে বার বার অনুচ্ছেদ ৫০ পার্লামেন্টে অনুমোদনের জন্য উত্থাপন বা এ বিষয়টি পার্লামেন্টে ভোটে দেয়ার কথা প্রত্যখ্যান করেছেন।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close