Americaযুক্তরাষ্ট্র জুড়ে

হ্যাক নিয়ে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার অঙ্গিকার ওবামার

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী প্রচারাভিযান চলাকালে হস্তক্ষেপের অভিযোগে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার অঙ্গিকার ব্যক্ত করেছেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

তিনি মার্কিন রেডিও স্টেশন এনপিআরকে এ বিষয়ে বলেছেন, আমাদের পদক্ষেপ নেওয়া উচিৎ এবং আমরা নেব।’ নির্বাচন চলাকালে ডেমোক্রেটিক পার্টি ও দলটির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের ইমেইল হ্যাকের পেছনে যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়াকে দায়ী করে আসছে।

কিন্তু রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের দপ্তর ক্রেমলিন এ অভিযোগ জোরালোভাবে অস্বীকার করে আসছে। রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট-ইলেক্ট ডনাল্ড ট্রাম্পও এ দাবিকে ‘হাস্যকর’ ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে উড়িয়ে দিয়েছেন।

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বলছে, ক্রেমলিনের সঙ্গে জড়িত রাশিয়ান হ্যাকাররা যে এসব হ্যাকের সঙ্গে জড়িত তার বিপুল তথ্যপ্রমাণ তাদের কাছে আছে। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

বৃহস্পতিবার, হোয়াইট হাউজের এক মুখপাত্র বলেন, প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই সাইবার হামলার সঙ্গে জড়িত। কয়েক ঘন্টা পর ওবামা বলেন, আমি মনে করি এ নিয়ে কোন সন্দেহ নেই যে, যখন কোন বিদেশী সরকার আমাদের নির্বাচনের বিশুদ্ধতার ওপর প্রভাব ফেলার চেষ্টা করে, তাহলে আমাদের পদক্ষেপ নেওয়া উচিৎ।

আমরা এ পদক্ষেপ নেব আমাদের পছন্দসই সময় ও স্থানে। এর কিছু হয়তো প্রকাশ পাবে, আর কিছু হয়তো পাবে না। ওবামা আরও বলেন, এ বিষয়ে আমার মনোভাব কী, তা সম্পর্কে পুতিন ভালোভাবেই অবগত আছেন, কারণ আমি সরাসরি তার সম্পর্কে এ বিষয়ে কথা বলেছি।

কিন্তু ২০ই জানুয়ারি ওবামা ক্ষমতা ছাড়বেন। তাই কী পদক্ষেপ যুক্তরাষ্ট্র নিতে চায়, তা স্পষ্ট নয়। নির্বাচনী প্রচারাভিযানের এক গুরুত্বপূর্ণ সময়ে হিলারির এক গুরুত্বপূর্ণ সহযোগির কিছু ইমেইল প্রকাশ পায়। ওই অধ্যায় ডেমোক্রেটিক পার্টির জন্য বেশ বিব্রতকর ছিল।

মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে, রাশিয়ার উদ্দেশ্য ছিল নির্বাচনের ফলাফল মি. ট্রাম্পের পক্ষে নিয়ে যাওয়া। তবে এ বক্তব্যের পেছনে কোন প্রমাণ প্রকাশ হয়নি। এদিকে ট্রাম্প ডেমোক্রেটিক পার্টির বিরুদ্ধে রাশিয়ান হস্তক্ষেপের বিষয়টি ব্যবহার করে নির্বাচনে হারের লজ্জা ঢাকার অভিযোগ তুলেছেন।

তিনি পুতিনের সম্পর্কেও অনেকদিন ধরে ভক্তি প্রকাশ করে আসছেন। ট্রাম্প পররাষ্ট্র মন্ত্রী হিসেবে বেছে নিয়েছেন তেল ব্যবসার জায়ান্ট এক্সন মবিলের প্রধান নির্বাহী রেক্স টিলারসনকে। টিলারসন রাশিয়ান প্রেসিডেন্টের সঙ্গে অনেকদিন ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছেন। তার এই মনোনয়নও উদ্বেগের জন্ম দিয়েছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার ট্রাম্প টুইট করেছেন, যদি রাশিয়া, বা অন্য কোন দেশ, হ্যাকিং করছিল, তাহলে হোয়াইট হাউজ প্রতিক্রিয়া দেখাতে এত সময় নিল? কেন হিলারি হারের পর তারা অভিযোগ জানাচ্ছে?

তবে অক্টোবরে ওবামা প্রশাসন সরাসরি রাশিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন রাজনৈতিক ওয়েবসাইট ও ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার অভিযোগ তুলেছে। এসব হ্যাকের পেছনে আসন্ন নির্বাচনে হস্তক্ষেপের উদ্দেশ্য ছিল বলে হোয়াইট হাউজ উল্লেখ করে।

এদিকে প্রেসিডেন্ট-ইলেক্ট ট্রাম্প তার নতুন প্রশাসন জড়ো করছেন। বৃহস্পতিবার তিনি জানান যে, তিনি আইনজীবী ডেভিড ফ্রায়েডম্যানকে ইসরাইলে মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেবেন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close