অন্য পত্রিকা থেকে

ইমেজ সংকটে বিমান

দীন ইসলাম: পর পর তিনটি ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং (জরুরি অবতরণ) এর কারণে ইমেজ সংকটে পড়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। এর মধ্যে খোদ প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান জরুরি অবতরণ করায় যাত্রীদের ভীতির মাত্রা অনেকখানি বেড়ে গেছে।

ছাড়া, কয়েক দিন আগে বৃটিশ সংবাদ মাধ্যম টেলিগ্রাফে বিশ্বের ২১টি নিকৃষ্টতম বিমান সংস্থার নাম প্রকাশ করা হয়েছে। ওই তালিকায়ও রয়েছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী এ প্রতিষ্ঠানটি। এর আগে নিরাপত্তা কাঠামো নিশ্চিতের পূর্ব শর্তগুলো নিশ্চিতে ব্যর্থ হওয়ায় বৃটেন, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের উন্নত কয়েকটি দেশে বাংলাদেশ বিমানের কার্গো অবতরণে নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে। এসব নানা কারণে ভয়াবহ ইমেজ সংকটে পড়েছে বিমান।

এ বিষয়ে বিমানের জেনারেল ম্যানেজার (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ মুঠোফোনে মানবজমিনকে বলেন, কয়েকটি ঘটনায় বিমান ইমেজ সংকটে পড়েছে এতে কোন সন্দেহ নেই। তবে ইমেজ সংকট কাটাতে ২০১৭ সালের জন্য আমরা কিছু প্ল্যান (পরিকল্পনা) করছি। তিনটি ধাপে এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।

তিনি বলেন, নেতিবাচক প্রচারণার কারণে বর্তমানে চিড়ে চ্যাপ্টা অবস্থা আমাদের। কিন্তু রাষ্ট্রীয় এ বিমান সংস্থাটি আগামী ৪ঠা জানুয়ারি ৪৫ বছর পার করতে যাচ্ছে। এটা কম পাওয়া নয়। গেল দুই বছর আমরা লাভের মুখ দেখেছি। বিদেশ থেকে ফ্রি লাশ বয়ে নিয়ে আসছে বিমান। আমাদের এসব ভালো অর্জনও রয়েছে। আশা করছি শিগগিরই ইমেজ সংকট কাটিয়ে উঠতে পারবো আমরা। এজন্য মিডিয়া কর্মীদের সহায়তা অনেক বেশি প্রয়োজন।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭শে নভেম্বর হাঙ্গেরি যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বোয়িং ৭৭৭ বিমানে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। এ সময় তুর্কমেনিস্তানের রাজধানী আশখাবাদে জরুরি অবতরণ করে বিমানটি।

কয়েক ঘণ্টা পর প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান ত্রুটি সারিয়ে সেটি আবার হাঙ্গেরির উদ্দেশে আশখাবাদ ত্যাগ করে। এ ঘটনায় গঠিত তিনটি তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে বিমানের নয় জন কর্মকর্তা- কর্মচারীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বর্তমানে এসব কর্মকর্তা-কর্মচারী জেল হাজতে রয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর বিমানের ত্রুটি সংক্রান্ত ঝামেলার রেশ কাটতে না কাটতেই গত ১২ই ডিসেম্বর যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের আরেকটি উড়োজাহাজ মিয়ানমারের উদ্দেশে যাত্রা করেও ঢাকা ফিরে আসে। পরে ত্রুটি মেরামত শেষে ফের মিয়ানমারের উদ্দেশে যাত্রা করে বিমানটি।

সর্বশেষ গত ২২শে ডিসেম্বর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিমিটেডের ফ্লাইট বিজি-১২২ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে। এ কারণে ওই দিন সকাল ১০টা ৭ মিনিট থেকে দুপুর পৌনে ১টা পর্যন্ত প্রায় তিন ঘণ্টা শাহজালালের রানওয়ে বন্ধ ছিল। ফলে দেশি-বিদেশি কয়েকটি ফ্লাইটের যাত্রীরা আকাশে আতঙ্কের মধ্যে সময় পার করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২২শে ডিসেম্বর ভোর ৪টা ৪৮ মিনিটের দিকে মাসকাট থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা করে বিমানের বিজি-১২২ ফ্লাইট।

বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ফ্লাইটটি টেক অফ করার পর মাসকাট বিমানবন্দরের কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে ক্যাপ্টেনকে জানানো হয়, রানওয়েতে টায়ারের কিছু অংশ পাওয়া গেছে তা সম্ভবত বিমানের ফ্লাইটের হতে পারে। এরপর পাইলট দেখতে পান উড়োজাহাজের পেছনের বাম দিকের ২ নম্বর টায়ারটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এরপর শাহজালালে বিমানটি নামানো হলে রানওয়ে বন্ধ হয়ে যায়। এদিকে গত ২০শে ডিসেম্বর বিশ্বের নিকৃষ্টতম ২১টি বিমান সংস্থার নাম প্রকাশ করেছে বৃটিশ সংবাদসংস্থা টেলিগ্রাফ। এ তালিকায় নাম আছে দেশের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সেরও।

দ্য টুয়েন্টি ওয়ান ওয়ার্স্ট এয়ারলাইন্স ইন দ্য ওয়ার্ল্ড শিরোনামে ওই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। বিদেশি পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ সম্পর্কে জেনারেল ম্যানেজার শাকিল মেরাজ বলেন, এসব নেতিবাচক প্রচারণার দিকে আমরা দৃষ্টি রাখছি। আশা করছি, আপনাদের সহায়তা পেলে সব কিছুতে উত্তরণ ঘটানো যাবে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close