জাতীয়

ইতিহাদ এয়ারওয়েজেও নিরাপত্তা ঝুকিতে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী: বিমানের ভেতরে বসিয়ে রেখেই ফুয়েল ভরা হয়

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) ৪৭তম বার্ষিক সম্মেলনে যোগ দিতে পাঁচদিনের সরকারি সফরে সুইজারল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী ইতিহাদ এয়ার ওয়েজের ফ্লাইট স্থানীয় সময় সোমবার সকাল ৬টা ৬ মিনিটে জুরিখ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বাংলাদেশ বিমানের পরিবর্তে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে উঠেও নিরাপত্তা ঝুকিতে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সুইজারল্যান্ডের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার আগে গত রবিবার রাতে জ্বালানি তেল নেওয়ার কথা বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আধাঘণ্টা ফ্লাইটের ভেতর বসিয়ে রাখা হয়। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে। প্রধানমন্ত্রীকে বিমানের ভেতরে বসিয়ে রেখেই ফ্লাইটে জ্বালানি তেল সংগ্রহ ও পরীক্ষা করা হয়।

এদিকে সুইজারল্যান্ডের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার আগে গত রবিবার রাতে জ্বালানি তেল নেওয়ার কথা বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আধাঘণ্টা ফ্লাইটের ভেতর বসিয়ে রাখা হয়। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে। প্রধানমন্ত্রীকে বিমানের ভেতরে বসিয়ে রেখেই ফ্লাইটে জ্বালানি তেল সংগ্রহ ও পরীক্ষা করা হয়। মঙ্গলবার এক দৈনিকের প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়।

সিভিল এভিয়েশনের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, যাত্রীদের ফ্লাইটের ভেতর রেখে জ্বালানি তেল ভরা ও পরীক্ষা করায় নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকে। আর প্রধানমন্ত্রীকে অন বোর্ড রেখে রিফুয়েলিং বা ফুয়েল টেস্ট করা সমীচীন হয়নি।

এ নিয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেননও বিস্ময়ও প্রকাশ করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, নিরাপত্তা ঝুঁকিতে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফ্লাইটের ভেতরে রেখে জ্বালানি তেল সংগ্রহ বা পরীক্ষা করাটা অনাকাঙ্ক্ষিত। এ কাজটা তারা (ইতিহাদ কর্তৃপক্ষ) আগেই করতে পারত। এতে ভিভিআইপি হিসেবে তার (প্রধানমন্ত্রী) মর্যাদার হানি ঘটেছে। এমন ঘটনা যদি বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে ঘটত তাহলে এতক্ষণে হৈচৈ পড়ে যেত।

মঙ্গলবার এমন তথ্য দিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দৈনিক কালেরকন্ঠ। প্রতিবেদনটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

বিমান সূত্র জানায়, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের সভায় যোগ দিতে যাওয়ার উদ্দেশে গত রবিবার রাত পৌনে ১০টায় ইতিহাদের ফ্লাইট ধরতে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীরা শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছান। সেখানে গিয়ে তিনি জানতে পারেন, ফ্লাইট বিলম্ব হবে। রাত ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর ৩০ জন সফরসঙ্গীকে নিয়ে যাওয়া হয় ইতিহাদের ফ্লাইটে। তার আগে ওই ফ্লাইটে তোলা হয় ৩২৬ জন সাধারণ যাত্রী।

বাংলাদেশ বিমানের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এয়ার কমোডর জাকিউল ইসলাম বলেছেন, ফ্লাইটের ভেতরে যাত্রী রেখে রিফুয়েলিং করাটা উচিত নয়। এতে কিছুটা নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকেই। তবে দেখতে হবে এ ক্ষেত্রে নিরাপত্তার প্রয়োজনীয় সব শর্ত পূরণ করা হয়েছে কি না।

জানতে চাইলে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের কান্ট্রি ম্যানেজার হানিফ জাকারিয়া বলেছেন, ‘আমি নিজে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলাম। আসলে ওই ফ্লাইটের তেমন বিলম্ব হয়নি, মিনিট দশেক বিলম্ব হয়েছে। বিকজ, ফ্লাইট ওয়াজ লেট অ্যারাইভাল। ’

প্রধানমন্ত্রীকে অন বোর্ড রেখে রিফুয়েলিং করাটা ঠিক হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভিভিআইপি ফ্লাইটের ফুয়েল টেস্ট করার জন্য স্যাম্পল সংগ্রহ করা হয়েছে।

বিমানের সিবিএ নেতা মশিকুর রহমান বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বিমানের পরিবর্তে ইতিহাদে চড়েছেন, এটাই আমাদের জন্য দুর্ভাগ্যজনক। তারপর উনাকে অন বোর্ড রেখে রিফুয়েলিং করাটা ছিল উদ্বেগজনক। কারণ সিভিল এভিয়েশনের রুলস কোনো উড়োজাহাজের ভেতরে যাত্রী রেখে তাতে জ্বালানি তেল সংগ্রহ করাটা অনুমোদন করে না। সারা দুনিয়া এ নিয়ম মেনে চলে। ইতিহাদ তা অমান্য করেছে। ’

প্রতিবেদনে বলা হয়, সিভিল এভিয়েশনের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, যাত্রীদের ফ্লাইটের ভেতর রেখে জ্বালানি তেল ভরা ও পরীক্ষা করায় নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকে। আর প্রধানমন্ত্রীকে অন বোর্ড রেখে রিফুয়েলিং বা ফুয়েল টেস্ট করা সমীচীন হয়নি।

এ নিয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেননও বিস্ময়ও প্রকাশ করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, নিরাপত্তা ঝুঁকিতে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফ্লাইটের ভেতরে রেখে জ্বালানি তেল সংগ্রহ বা পরীক্ষা করাটা অনাকাঙ্ক্ষিত। এ কাজটা তারা (ইতিহাদ কর্তৃপক্ষ) আগেই করতে পারত। এতে ভিভিআইপি হিসেবে তাঁর (প্রধানমন্ত্রী) মর্যাদার হানি ঘটেছে। এমন ঘটনা যদি বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে ঘটত তাহলে এতক্ষণে হৈচৈ পড়ে যেত।

বিমান সূত্র জানায়, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের সভায় যোগ দিতে যাওয়ার উদ্দেশে গত রবিবার রাত পৌনে ১০টায় ইতিহাদের ফ্লাইট ধরতে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীরা শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছান। সেখানে গিয়ে তিনি জানতে পারেন, ফ্লাইট বিলম্ব হবে। রাত ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর ৩০ জন সফরসঙ্গীকে নিয়ে যাওয়া হয় ইতিহাদের ফ্লাইটে। তার আগে ওই ফ্লাইটে তোলা হয় ৩২৬ জন সাধারণ যাত্রী।

বাংলাদেশ বিমানের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এয়ার কমোডর জাকিউল ইসলাম বলেছেন, ফ্লাইটের ভেতরে যাত্রী রেখে রিফুয়েলিং করাটা উচিত নয়। এতে কিছুটা নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকেই। তবে দেখতে হবে এ ক্ষেত্রে নিরাপত্তার প্রয়োজনীয় সব শর্ত পূরণ করা হয়েছে কি না।

জানতে চাইলে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের কান্ট্রি ম্যানেজার হানিফ জাকারিয়া বলেছেন, আমি নিজে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলাম। আসলে ওই ফ্লাইটের তেমন বিলম্ব হয়নি, মিনিট দশেক বিলম্ব হয়েছে। বিকজ, ফ্লাইট ওয়াজ লেট অ্যারাইভাল।

প্রসঙ্গত, গত ২৭ নভেম্বর হাঙ্গেরি যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটের ইঞ্জিনে ত্রুটি দেখা দেয়, যার কারণে সেটি তুর্কমেনিস্তানের রাজধানী আশখাবাদে জরুরি অবতরণ করে। এ ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটিগুলোর প্রতিবেদনে বলা হয়, ত্রুটির ওই ঘটনা ছিল মানবসৃষ্ট। এ ঘটনায় করা মামলায় পরে বিমানের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close