ইউরোপ জুড়ে

শরণার্থী সেজে হামলার পরিকল্পনা জার্মান সেনার

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: সিরিয়ান শরণার্থী সেজে বন্দুক হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে এক জার্মান সেনাসদস্যকে আটক করা হয়েছে। দক্ষিণাঞ্চলীয় জার্মানির ফ্রাঙ্কফুটে এই গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটে।

ফ্রাঙ্কফুটের কৌঁসুলিরা বলেন, ২৮ বছর বয়সী এই সন্দেহভাজন ‘বিদেশী-বিদ্বেষ’ থেকে হামলার জন্য উদ্বুদ্ধ হন। ওই সেনার পাশাপাশি ২২ বছর বয়সী এক ছাত্রকেও ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, তিনি ফেব্রুয়ারিতে অস্ট্রিয়ার পুলিশের হাতে প্রথম আটক হন। আগে থেকে তিনি ভিয়েনা বিমানবন্দরের টয়লেটে একটি বন্দুক লুকিয়ে রাখেন। ওই বন্দুক পরে নিতে গেলে তাকে আটক করা হয়। পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

কিন্তু পুলিশ পরে আবিষ্কার করে, ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে এই সন্দেহভাজন মধ্য জার্মানির একটি আশ্রয়কেন্দ্রে সিরিয়ান শরণার্থী হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছিল। এমনকি জার্মানির বাভারিয়া অঙ্গরাজ্যের সরকারের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন।

এই আশ্রয় প্রার্থনার সময় তিনি একেবারেই আরবি বলতে না পারলেও, তখন কোন কেউ টের পায়নি। জার্মান গণমাধ্যমে বলা হচ্ছে, তিনি এমনকি মাসিক ভাতা ও বাসস্থানও পেয়েছিলেন।

কৌঁসুলিদের বিবৃতিতে বলা হয়, এই অনুসন্ধানকৃত তথ্য এবং এই সেনাসদস্যের বিদেশী-বিদ্বেষী ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে ইঙ্গিত মিলে যে, অভিযুক্ত ব্যাক্তি রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তাকে গুরুতরভাবে হুমকির মুখে ফেলতে হামলার পরিকল্পনা করছিল।

এক্ষেত্রে সে ওই অস্ত্র ব্যবহারের চেষ্টা করে যেটি ভিয়েনা বিমানবন্দরে আগে থেকে রাখা হয়।’ তবে ওই বন্দুক জার্মান সামরিক বাহিনীর নয় বলে সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে।

পদমর্যাদার দিক থেকে সন্দেহভাজন ছিলেন একজন লেফটেন্যান্ট। তিনি উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় ফ্রান্সের স্ট্রাসবর্গ ঘাঁটিতে নিযুক্ত ছিলেন। তবে তাকে বুধবার দক্ষিণাঞ্চলীয় জার্মানির বাভারিয়ার হামেলবার্গ থেকে আটক করা হয়।

পুলিশ একই দিনে জার্মানি, ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়ার ১৬টি বাড়িতে অভিযান চালায়। ফ্রাঙ্কফুটের কাছে অফেনবাখে অবস্থিত সহ-ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে আটককৃত ছাত্রের বাসা থেকে আইনানুযায়ী নিষিদ্ধ অস্ত্র পাওয়া গেছে। অফেনবাখ ওই সেনাসদস্যেরও আদিবাড়ি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close