ইউরোপ জুড়ে

তবে কি ফ্রেক্সিট অবশ্যম্ভাবী

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: আজ ফ্রান্সে দ্বিতীয় ও চূড়ান্ত দফায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এ নির্বাচনে মূল ধারার সব রাজনৈতিক দলকে প্রত্যাখ্যান করে মধ্যপন্থি এমানুয়েল ম্যাক্রন ও উগ্র ডানপন্থি ম্যারিন লা পেনকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছে ফরাসিরা।

রই মধ্যে সুর পাল্টে ফেলেছেন মধ্যপন্থি, ফ্রন্টরানার ম্যাক্রন। তিনিও ফ্রেক্সিটের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। বলেছেন, অবশ্যই সংস্কার করতে হবে ইউরোপীয় ইউনিয়নে। তা না হলে ফ্রেক্সিটের মুখোমুখি হতে হবে।

ম্যাক্রনের আগেই ফ্রেক্সিটের পক্ষে জোরালো অবস্থান প্রকাশ করেছেন লা পেন। তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিরোধী ভাবধারার জন্য বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন।

প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নির্বাচিত হলে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ফ্রান্সকে বৃটেনের মতো বের করে আনতে গণভোট দেবেন। সেই ভোটের নাম হবে ফ্রেক্সিট। এখন দু’প্রার্থীর কণ্ঠেই উচ্চারিত হচ্ছে ফ্রেক্সিট।

ফলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ম্যাক্রন বা লা পেন যিনিই প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন না কেন, ফ্রান্সে ফ্রেক্সিট হতে যাচ্ছে। অবশ্য তা নির্ভর করবে ভবিষ্যতের ওপর।

ওদিকে, নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে দু’প্রার্থীর মধ্যে অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগ ততই শাণিত হচ্ছে। একজন অন্যজনকে ঘায়েল করায় ব্যস্ত। মধ্য ও ইউরোপপন্থি এমানুয়েল ম্যাক্রনকে একজন পূর্ববর্তী ধারার একজন প্রার্থী হিসেবে অভিযোগ করেছেন ম্যারিন লা পেন।

অন্যদিকে লা পেনকে কট্টরপন্থি (এক্সট্রিমিস্ট) বলে আখ্যায়িত করেন ম্যাক্রন । বলেন, লা পেনের গণতান্ত্রিক ধারণার বিরুদ্ধে শেষ সময় পর্যন্ত তিনি লড়াই চালিয়ে যাবেন।

এর আগে তিনি বিবিসিকে বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নকে অবশ্যই সংস্কার করতে হবে। আর তা নাহলে ‘ফ্রেক্সিট-এর (বৃটেনের ব্রেক্সিটের মতো) মুখোমুখি হতে হবে। ওদিকে প্রথম দফা নির্বাচনে পরাজিত ফ্রাঁসোয়া ফিলনকেও ছেড়ে দিচ্ছেন না লা পেন। সোমবার দেয়া এক বক্তব্যে তিনি ফিলনকে এক হাত নিয়েছেন।

অভিযোগ করেছেন, পরাজিত ফিলন অন্যের হয়ে কাজ করছেন। ওদিকে মে দিবসের এক র্যালিতে সংঘর্ষ হয়েছে। প্যারিসের প্যালেস ডি লা বাস্তিলের কাছে তিনটি ট্রেড ইউনিয়ন র‌্যালি বের করে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় মুখোশ পরা বিক্ষোভকারীরা পুলিশের দিকে পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারে।

জবাবে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুড়েছে। এ সময় চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। এ ঘটনার পর ম্যারিন লা পেন টুইটে বলেছেন, এটা এমন এক বাজে ঘটনা যা আমি আমাদের রাজপথে আর দেখতে চাই না। এসব খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।

এতে বলা হয়েছে, আগামী রোববারের চূড়ান্ত দফা নির্বাচনে জনমত জরিপে লা পেনের চেয়ে শতকরা প্রায় ২০ ভাগ সমর্থন নিয়ে এগিয়ে আছেন ম্যাক্রন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close