ইউরোপ জুড়ে

সরকারে বড় ভূমিকা রাখবেন ফ্রান্সের নতুন ফার্স্টলেডি

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্টলেডি মেলানিয়া ট্রাম্প নিউ ইয়র্কে ট্রাম্প টাওয়ারে। ছেলে ব্যারনের পড়াশোনার জন্য স্বামী, প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে ছেড়ে এখানে থাকতে হচ্ছে তাকে। সরকারে বা সমাজ সংস্কারে তার ভূমিকার জন্য অনেক সমালোচনা আছে।

তবে দৃশ্যত তার মতো হবেন না ফ্রান্সে সদ্য ফার্স্টলেডির খেতাব যুক্ত হতে যাওয়া ব্রিজিত ট্রোগনিউক্স (৬৪)। স্বামী এমানুয়েল ম্যাক্রনের মধ্যপন্থি সরকারে তিনি বড় একটি ভূমিকা রাখবেন বলে শোনা যাচ্ছে।

তিনি সরকারের ভিতরে মুক্তভাবে কাজ করবেন। শিক্ষা সংস্কারে রাখবেন সক্রিয় ভূমিকা। এসব কথা বলা হয়েছে লন্ডনের অনলাইন ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে।

উল্লেখ্য, এমানুয়েল ম্যাক্রনের চেয়ে ২৫ বছরের বড় ব্রিজিত। তিনি সাবেক স্কুল শিক্ষিকা। ম্যাক্রনের বয়স যখন ১৫ বছর তখন ব্রিজিতেরই ছাত্র ছিলেন তিনি।

আস্তে আস্তে ব্রিজিতের প্রতি দুর্বল হয়ে পড়েন ম্যাক্রন। তার বয়স যখন ১৭ বছর তখন ব্রিজিতকে সরাসরি বলে ফেলেন, আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই।

ব্রিজিত তখন ৩ সন্তানের মা। আস্তে আস্তে তাদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ব্রিজিতের সঙ্গে তার পূর্বের স্বামীর বিচ্ছেদ ঘটে। তিনি বিয়ে করেন এমানুয়েল ম্যাক্রনকে। সেই ভালবাসার উপহার হিসেবে ব্রিজিতকে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের বাসভবন এলিসি প্রাসাদে উঠাতে যাচ্ছেন ম্যাক্রন। ব্রিজিত এখন ৮ নাতিপুতির নানী-দাদী। তাকে নিয়ে আগ্রহ চারদিকে।

বলা হচ্ছে, তিনি অন্যদের মতো নন। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামার মতো জোরালো ভূমিকা রাখবেন তিনি। বিশেষ করে শিক্ষার সঙ্গে তার সম্পর্ক থাকায় তিনি এখাতে নজর দিতে পারেন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close