ভারত জুড়ে

নেটওয়ার্ক পেতে গাছে উঠলেন হেভিওয়েট মন্ত্রী: ফেসবুকে হাঁসির খোরাক আর গনমাধ্যমে মোদি সরকারের তুলোধুনো

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: পুরো ভারতকে ডিজিটাল দাবী প্রচারনা চালিয়ে আসছেন মোদি সরকার।

কিন্তু বাস্তবেই কতখানি ডিজিটাল তা নিয়ে নানা প্রশ্ন আর সমালোচনার মধ্য দিয়েই এবার গনমাধ্যমে চাউর হয়েছে মোবাইল নেটওয়ার্ক পেতে খোদ একজন হেভিওয়েট মন্ত্রীর গাছে চড়ার দৃশ্য।

এই ঘটনায় একদিকে বিরোধীদলসহ গনমাধ্যমে যেমন চলছে সমালোচনা তেমনি সামাজিক মাধ্যমে এই দৃশ্য যুগিয়েছে অনেকের হাঁসির খোরাক।

ঘটনার দিন শহর ছেড়ে বেশ দুরের একটি গ্রামে জনসংযোগে গিয়েছিলেন মন্ত্রী মহোদয় । তবে বিপত্তি বাধলো ফোনের নেটওয়ার্ক নিয়ে। এপাশ ওপাশ করেও যখন নেটওয়ার্ক মিলছিলোনা কিছুতেই।

তাতে কি ! এবার ‘নাছোড়বান্দা’ হয়ে নেটওয়ার্কের দেখা পেতে মন্ত্রী মই বেয়ে উঠে পড়লেন গাছে। কাজ অবশ্য হলো শেষ অবধি দেখা মিললো নেটওয়ার্কের তবে ভাইরাল হয়ে গেলো হেভিওয়েট মন্ত্রীর গাছে চড়ে মোবাইলে কথা বলার এমন দৃশ্য !

ভারতীয় গণমাধ্যমের সংবাদে বলা হয়েছে, চেষ্টার কোনো কমতি ছিল না। কখনো চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে, কখনো বা এ-পাশ ও-পাশ পাইচারি। কয়েকবার মোবাইলটিকে থাবড়েও ছিলেন। কিন্তু, কোনো কিছুতেই লাভ হয়নি। শেষ পর্যন্ত মই দিয়ে গাছে ওঠার পর নেটওয়ার্ক মিলল! তা-ও আবার খাপছাড়া।

ফোনের নেটওয়ার্ক নিয়ে এমন সমস্যায় যিনি পড়লেন, তিনি যেমন তেমন মানুষ নন! ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থ ও কর্পোরেট বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অর্জুন রাম মেঘওয়াল।

প্রত্যন্ত এক গ্রামে সফরকালে মোবাইলের নেটওয়ার্ক পেতে তাকে মই বেয়ে গাছে উঠতে হয়েছে! রোববার অর্জুন রাজস্থানে তার নির্বাচনী এলাকার অন্তর্গত প্রত্যন্ত ধোলিয়া গ্রামে সফরে যান। সফরকালে তিনি গ্রামবাসীর সঙ্গে তাদের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রীকে কাছে পেয়ে গ্রামবাসীও তাদের অভিযোগ জানান। বলেন, স্থানীয় হাসপাতালে নার্সের সংখ্যা কম। এ কারণে তাদের স্বাস্থ্যসেবা পেতে বেশ অসুবিধার মুখোমুখি হতে হয়।

এ অভিযোগ পেয়ে তিনি পাশের শহরের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে ফোন দেন। এতেই বাধে বিপত্তি। বারবার চেষ্টা করার পরেও নেটওয়ার্ক পেতে ব্যর্থ হন তিনি। গ্রামবাসীর সামনে বিব্রত হতে হয়। সমাধানে এগিয়ে আসেন গ্রামের মানুষই।

তারা প্রতিমন্ত্রীকে গাছে উঠে কথা বলার পরামর্শ দেন। এ বুদ্ধি পছন্দ হয় মন্ত্রী অর্জুনের। সঙ্গে সঙ্গেই জোগাড় করা হয় মই। তা বেয়ে সটান গাছে উঠে যান ৬২ বছর বয়সী এ রাজনীতিক। দেখা মেলে নেটওয়ার্কের।

প্রয়োজনীয় কথা সেরে নিরাপদেই নেমে আসেন তিনি। এ সময় সরকারি কর্মকর্তারা নিচে দাঁড়িয়ে মই ধরে ভারসাম্য রক্ষায় সহায়তা করেন। গ্রামবাসী জানান, নিকটস্থ শহর থেকে ৮৫ কিলোমিটার দূরের এ গ্রামটিতে মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক পাওয়া বেশ দুষ্কর। মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক পেতে অহরহ তাদের গাছে উঠতে হয়!

এ ঘটনার ছবি ভাইরাল হলে আলোচনা-সমালোচনা ছড়িয়ে পড়ে। অনেকেই এ ঘটনাকে মোদির ডিজিটাল ভারত গড়ার স্বপ্নের বাস্তব অবস্থা বলে সামাজিক মাধ্যমে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপে মেতে ওঠেন।

তবে গাছে উঠেই ক্ষান্ত হননি প্রতিমন্ত্রী অর্জুন মেঘওয়াল। সমস্যা সমাধানে তাৎক্ষণিকভাবে ১৩ লাখ রুপি বরাদ্দ করেন। এ অর্থের বিনিময়ে আগামী ৩ মাসের মধ্যে গ্রামটিতে মোবাইল টাওয়ার ও বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপনের নির্দেশ দেন তিনি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close