চায়না মহাদেশ জুড়ে

চাঁদে আলু চাষের পরিকল্পনা চীনের

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: চাঁদের মাটিতে আলু চাষের পরিকল্পনা করছেন চীনের বিজ্ঞানীরা। আসন্ন চন্দ্র অভিযানের অংশ হিসেবেই তারা এ পদক্ষেপের প্রস্তুতিও নিয়ে ফেলেছেন।

চংকিং মর্নিং পোস্টের বরাত দিয়ে বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, আসছে বছরই চ্যাং’ই-ফোর নামে চাঁদে অভিযান চালাবে চীনা জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা।

সে সময়ই ছোট সিলিন্ডারের মধ্যে আলু সিল করে পাঠানো হবে। সিলিন্ডারের ভেতরে ‘মিনি ইকোসিস্টেম’ ব্যবস্থা থাকবে। সেখানে গুটিপোকার লার্ভাও পাঠানো হবে।

এ প্রকল্পের প্রধান নকশাকার ও চংকিং ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক জি জেংজিন বলেন, চাঁদের মাটিতে আলু চাষের আগে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো হবে। এ জন্য আগে সেখানে কীটপতঙ্গ পাঠানো হবে।

চায়না রেডিও ইন্টারন্যাশনাল জানান, চাঁদের জমিতে আলুর চারা বেঁচে থাকবে কি না, তা নিশ্চিত হতেই বিজ্ঞানীরা চাঁদে কীটপতঙ্গ পাঠানোর পরিকল্পনা করছেন।

ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, মিনি ইকোসিস্টেম ক্যাপসুলটির ওজন হবে তিন কেজি। এর দৈর্ঘ্য ১৮ সেন্টিমিটার ও প্রস্থ ১৬ সেন্টিমিটার। সিলিন্ডারে লার্ভা থেকে ডিম ফোটা মাত্রই কার্বন তৈরি হবে।

আর আলুর চারা থেকে বেরোবে অক্সিজেন। এভাবে মিনি ইকোসিস্টেম ক্যাপসুলের ভেতর কার্বন ও অক্সিজেনের আদান-প্রদান চলবে। আলু চাষের এ পুরো প্রক্রিয়া বিজ্ঞানীরা লাইভ সম্প্রচার করার কথাও ভাবছেন।

পৃথিবীর বাইরে ফসল ফলানোর প্রচেষ্টা এটাই প্রথম নয়। এর আগে গেলো মার্চ মাসে পেরুর ইন্টারন্যাশনাল পটেটো সেন্টার (সিআইপি) নাসার অ্যামেস রিসার্চ সেন্টারের সঙ্গে মঙ্গলগ্রহে যৌথভাবে আলুর চাষ করা যাবে কি না, তা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেছে।

এছাড়া ২০১৬ সালের অক্টোবরে নাসার বিজ্ঞানীরা জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের জন্য ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে সফলভাবে লেটুসপাতার চাষ করেছিলেন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close