রাজনীতি

ত্রাণ বিতরণকালে রাঙামাটি যাওয়ার পথে আওয়ামীলীগ কর্তৃক বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুল ও আমীর খসরুসহ নেতাকর্মী হামলার শিকার

শীর্ষবিন্দু নিউজ: পাহাড় ধসে দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ দিতে গিয়ে রাঙামাটিতে হামলার শিকার হয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে দলটির একটি প্রতিনিধিদল।

এতে মির্জা ফখরুল, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ দলের বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা আহত হয়েছেন। রোববার বেলা ১১টার দিকে কাপ্তাইয়ের ইছাখালি এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এদিকে হামলার জন্য আওয়ামী লীগের লোকজনকে দায়ী করেছে বিএনপি। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ‘এই হামলার জন্য আওয়ামী লীগের লোকজনই দায়ী বলে আমাদের বিশ্বাস। অতর্কিতে হামলা চালানোর কারণে আমরা কোনও দিকে তাকানোরই সুযোগ পাইনি।’

বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিষয়টি আমি জানি না। ঘটনা না জেনে আমি কোনও মন্তব্য করতে পারবো না। আমি এ বিষয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছি।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, প্রায় ২০-২৫ জন লোক অতর্কিতে গাড়িবহরে লাঠিসোঁটা, রামদাসহ হামলা করে। আমার গাড়ির কাচ ভেঙে গেছে। গাড়ি তছনছ করা হয়েছে। গাড়ির ভাঙা কাচ আমার শরীরে এসে লেগেছে। আমিসহ আমাদের কয়েকজন নেতা আহত হয়েছেন।

স্থানীয় ব্যবসায়ী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়ক হয়ে ৪টি গাড়ি রাঙ্গামাটির দিকে যাচ্ছিলো। এসময় ইছাখালী হাসপাতালের সামনে হঠাৎ ২৫/৩০ জন দুর্বৃত্ত দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সড়কে অবস্থান নিয়ে গাড়িগুলোর গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে কিছু বুঝে উঠার আগেই তারা গাড়ি বহরে হামলা ও ভাংচুর করে দ্রুত পালিয়ে যায়।

এতে গাড়িতে থাকা মহাসচিব মির্জা ফখরুল, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মেজর জেনারেল রুহুল আলম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবে রহমান শামীম রক্তাক্ত হন।

এরপর দুর্বৃত্তরা সাংবাদিকসহ আরো তিনটি গাড়িতে হামলা চালায়। এতে আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। পরে চালকেরা দ্রুত গাড়ি চালিয়ে নিরাপদে চলে যায়।

এক পর্যায়ে আতঙ্কিত নেতারা স্থানীয় একটি মসজিদ ও মাদ্রাসায় আশ্রয় নেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। পরে গাড়িগুলো রাঙ্গামাটির দিকে অগ্রসর না হয়ে চট্টগ্রামের দিকে ফেরত যায়।

গত মঙ্গলবার চট্টগ্রাম, রাঙ্গামাটি, বান্দরবানের পাহাড় ধসে দেড়শরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় বিশেষ করে রাঙ্গামাটির পরিস্থিতি শোচনীয়। সড়ক যোগাযোগ ভেঙে পড়ায় পণ্য সরবরাহে ঘাটতি দেখা দিয়েছে। বিকল্প পথে পণ্য পাঠানো শুরু হলেও বাড়তে দামে নিত্যপণ্য কিনতে হচ্ছে মানুষকে।

তবে শ্রমজীবী মানুষরা আছে বিপাকে। কারণ, কাজ কমে যাওয়ায় আয়ের উৎস বন্ধ হয়ে গেছে অনেকের। এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ত্রাণ নিয়ে যাচ্ছে উপদ্রুত এলাকায়।

বিএনপিও কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে দুর্গত এলাকায় পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। এরইঅং শ হিসেবে কেন্দ্রীয় ও চট্টগ্রাম বিএনপির নেতাদের নিয়ে রবিবার রাঙ্গামাটি যাচ্ছিলেন বিএনপি মহাসচিব। সেখানে গিয়ে তাদের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনের পাশাপাশি ত্রাণ বিতরণের কর্মসূচি ছিল।

কিন্তু পথিমধ্যে গাড়িবহরে হামলা হওয়ায় বিএনপি নেতারা চট্টগ্রামের দিকে ফিরে আসছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ফাওয়াজ শুভ।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close