ঢালিউড

বঙ্গবন্ধুর চরিত্র সংকট: স্থির হয়নি কোন অভিনেতা নাম

বিনোদন ডেস্ক: আগামী ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনায় একটি মেগা-মুভি নির্মিত হবে। এটা স্থির হয়ে আছে বেশ কয়েক মাস আগে থেকেই।

শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফরের সময়েও সেই অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীদ্বয়। এখন বঙ্গবন্ধুর ভূমিকায় সেই সিনেমাতে অভিনয় করবেন কে, তা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা।

ভারতে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব পর্যায়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এই ছবিতে প্রচুর আর্কাইভাল ফুটেজ ব্যবহার করা হবে যেমন, তেমনি এটি পুরোদস্তুর কাহিনিচিত্রের আদলেও তৈরি করা হবে।

সবচেয়ে বড় কথা, এই ছবির প্রধান চরিত্রে- অর্থাৎ বঙ্গবন্ধুর নামভূমিকায়- কে অভিনয় করবেন, তা চূড়ান্ত করার জন্য তারা বঙ্গবন্ধুর কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকেই তাকিয়ে আছেন।

‘বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে মানানসই কোনও ডাকসাইটে অভিনেতাকেই সবাই এই রোলে চাইবেন সেটা খুব স্বাভাবিক। কিন্তু তিনি ভারতীয় হবেন না বাংলাদেশি, বাঙালি না অবাঙালি সেগুলো এখনও কিছুই ঠিক করা হয়ে ওঠেনি।

তবে খুব দ্রুতই এই ছবির পরিচালক ও অভিনেতা বাছাইয়ের প্রক্রিয়া শুরু হবে। আর সেখানে যথারীতি সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পাবে শেখ হাসিনার ইচ্ছাই!’ এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন ওই কর্মকর্তা।

এই মেগা-মুভি নির্মাণের উদ্যোগের সঙ্গে দুই দেশের সরকারের যে মহল জড়িত, তাদের সূত্রে আরও জানা যাচ্ছে, বছর দশ-বারো আগে লন্ডন প্রবাসী লেখক-সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর ওপর একটি সিনেমা তৈরির উদ্যোগ নিয়েছিলেন। নানা কারণে সে ছবি দিনের আলো দেখেনি, কিন্তু তখন না কি শেখ হাসিনার পরামর্শক্রমেই নামভূমিকায় বলিউডের কিংবদন্তি অমিতাভ বচ্চনের কথা ভাবা হয়েছিল।

এর প্রধান কারণ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের জলদগম্ভীর গলার সঙ্গে না কি বচ্চনের বিখ্যাত ব্যারিটোন কণ্ঠস্বরের দারুণ মিল পেতেন অনেকেই। বিশেষ করে যারা সরাসরি বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এবং বচ্চনের গলা দুটোই শুনেছেন।

কিন্তু মুশকিল হলো, এর মধ্যে বচ্চনের বয়স বেড়ে গেছে অনেকটাই। তিনিও সত্তর পেরিয়েছেন বেশ কয়েক বছর হল। এই বয়সে উপমহাদেশের এক প্রধান লেজেন্ডের নামভূমিকায় অভিনয় করতে তিনি কতটা রাজি হবেন, তা নিয়ে সংশয় আছে সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যেই। তা ছাড়া তিনি ডাবিংয়ের ব্যাপারে ভীষণ খুঁতখুঁতে। নিজে বাংলা বলতে সাবলীল নন বলে বাঙালির এক অন্যতম শ্রেষ্ঠ নায়কের ভূমিকায় সম্ভবত তিনি নামতে চাইবেন না।

বছর দশ-বারো আগে তবুও হয়তো অমিতাভ বচ্চন এই রোলে অটোমেটিক চয়েস হতেন, কিন্তু এখন এই ছবির জন্য ভারত ও বাংলাদেশ সরকারকে সম্ভবত অন্য কাউকে খুঁজে বের করতে হবে। ‘কাজটা কঠিন সন্দেহ নেই, আর সে জন্যই আমরা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার পছন্দের ওপরই ভরসা রাখতে চাই’, দিল্লিতে এই প্রতিবেদককে বলছিলেন ওই কর্মকর্তা।

শুধু বঙ্গবন্ধুর ওপর মেগা-মুভিই নয়, ২০২১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারত ও বাংলাদেশ- দুই সরকার মিলে একটি তথ্যচিত্রও নির্মাণ করতে চলেছে। তবে সেটা কাহিনিচিত্র নয় ডকুমেন্টারি বা তথ্যচিত্র হিসেবে তৈরি হবে।

ফলে সেই ছবিতে মূলত যুদ্ধের সময়কার ফুটেজ, ভাষণ, আর্কাইভ মেটেরিয়াল ও সংশ্লিষ্টদের সাক্ষাৎকার থাকবে। গত বছরের আগস্টে বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু যখন দিল্লি সফরে এসেছিলেন, তখন তার ভারতীয় কাউন্টারপার্ট ভেঙ্কাইয়া নাইডুর সঙ্গে বৈঠকেই যৌথ উদ্যোগে এই দুটি ছবি তৈরির ব্যাপারে ঐকমত্য হয়েছিল।

প্রামাণ্য চিত্র বা ডকুমেন্টারিতে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকায় কোনও অভিনেতাকে সম্ভবত নেওয়ার দরকার পড়বে না (যদিও সেটা এখনও চূড়ান্ত নয়), কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের একটি প্রামাণ্য দলিল হিসেবে এই ছবিটিও কম গুরুত্বপূর্ণ হবে না!

কিন্তু আগামী কয়েক মাসে বাংলাদেশ ও ভারতের অগণিত বঙ্গবন্ধু অনুরাগী অসীম আগ্রহে নজর রাখবেন বঙ্গবন্ধুর ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য দুই দেশের সরকার শেষ পর্যন্ত কাকে বেছে নেন, সেই দিকে। আর এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই বা কী রায় দেন সেটিও বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close