ইউরোপ জুড়ে

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রনকে হত্যা চেষ্টা নস্যাৎ

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ: ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রনকে হত্যা পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

ফ্রান্সের জাতীয় দিবস বাস্তিল ডে’তে ১৪ই জুলাই ম্যাক্রনকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছিল ২৩ বছর বয়সী এক ফরাসি নাগরিক। সে উগ্র ডানপন্থি। একই সঙ্গে সে কৃষ্ণাঙ্গ, আরব, ইহুদি ও সমকামীসহ প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রনকে হত্যা করতে চেয়েছিল। এমন অভিযোগে ওই যুবককে আটক করে নিরাপত্তা হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

বলা হয়েছে, ১৪ই জুলাই বাস্তিল দিবসে ফ্রান্সে থাকার কথা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের। তার সামনেই ওই যুবক ম্যাক্রনকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করেছিল। এ জন্য সে অনলাইন থেকে একটি কালাশনিকভ রাইফেল সংগ্রহের চেষ্টা করছিল। এ খবর দিয়েছে লন্ডনের অনলাইন ডেইলি মিরর।

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের প্রসিকিউটিং সূত্রগুলো বলেছেন, ওই যুবকটি কট্টর ডানপন্থি। সে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রনকে হত্যা করতে চেয়েছিল। একই সঙ্গে কৃষ্ণাঙ্গ, আরব, ইহুদি ও সমকামীদের হত্যা করতে চেয়েছিল সে। শনিবার তাকে সন্ত্রাসের অপরাধে অভিযুক্ত করা হয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তি প্যারিস এলাকার।

আগামী ১৪ই জুলাই বাস্তিল দিবসে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের। ১৭৮৯ সালে ফরাসি বিপ্লবকে স্মরণ করতে এ আয়োজন করা হয়। আটক যুবক ওই অনুষ্ঠানে তার উদ্দেশ্য সফল করতে অনলাইনে একটি ভিডিও গেমস ফোরাম থেকে অস্ত্র সংগ্রহের চেষ্টা করছিল।

এই ওয়েবসাইটগুলোতে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা নজর রাখছিলেন। বিষয়টি তাদের নজরে এলে সন্ত্রাসবিরোধী পুলিশ তার ফ্লাটে যায় বুধবার। আরজেচনটেউলের বাড়ি থেকে এ সময় ওই যুবক তাদেরকে রান্নাঘরের ছুরি দিয়ে হুমকি দেয়।

কিন্তু সন্ত্রাস বিরোধী পুলিশ সদস্যরা শক্তি প্রয়োগ করে তাকে আটক করে এবং নিরাপত্তা হেফাজতে নিয়েছে। অন্যদিকে তার গাড়ি তল্লাশি করে তাতে আরো অস্ত্র পাওয়া গেছে।

আরএমও রেডিও স্টেশনকে প্রকিসিউটিং সূত্রগুলো বলেছেন, ওই যুবক মানসিক ভারসাম্যহীন তবে তার লক্ষ্য ঠিক ছিল। ২০০২ সালে বাস্তিল দিবসের প্যারেড চলাকালে সাবেক প্রেসিডেন্ট জ্যাক শিরাককে গুলি করেছিল ম্যাক্সিম ব্রুনেরি নামের এক ব্যক্তি। তার জীবনাদর্শের সঙ্গে আটক এই যুবকের আদর্শ বা জীবনধারা মিলে যায়। ম্যাক্সিম ব্রুনেরি একজন নাৎসী। তাকে ১০ বছরের সাজা দেয়া হয়েছিল।

কিন্তু ২০০৯ সালে সে মুক্তি পায়। এরই মধ্যে ফ্রান্সের মাত্র ৩৯ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রনকে অনেক হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। চিঠির মাধ্যমে এবং ইমেইলেও এমন হুমকি দেয়া হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close