জাতীয়

মোবাইল ট্র্যাকিংয়ে অপহৃত ফরহাদ মজহারের অবস্থান খুলনায়: নিখোঁজের বিষয়ে স্ত্রীর জিডির পর উদ্ধারের সর্বাত্মক চেষ্টায় পুলিশ

শীর্ষবিন্দু নিউজ: লেখক ও কলামিস্ট ফরহাদ মজহার সকালে অপহৃত হওয়ার পর হন্যে হয়ে মোবাইল ট্র্যাকিং করে অবস্থান নিরূপণের চেষ্টা করছে পুলিশ। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী তার অবস্থান খুলনা অঞ্চলে বলে জানা গেছে।

এদিকে, নিখোঁজ হয়েছে জানিয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তাঁর স্ত্রী মানবাধিকারকর্মী ফরিদা আখতার। আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর আদাবর থানায় এই জিডি করা হয়। পরে আদাবর থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তা জিডিটি গ্রহণ করেন। জিডি নম্বর ১০১/১৭।

উদ্ধারে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার। তবে ফরহাদ মজহারকে একদিকে নিয়ে নম্বরটি অন্য দিকে নেওয়া হচ্ছে কি না সে বিষয়টিও মাথায় রেখেছে পুলিশ।

জিডিতে ফরিদা আখতার লিখেছেন, আমার স্বামী ফরহাদ মুহাম্মাদ মজহারুল হক, পিতা মৃত শফিকুল হক, মাতা : মৃত ফাতেমা খাতুন অদ্য ০৩/০৭/২০১৭ তারিখ ভোর আনুমানিক ৫.০৫ মিনিটে বর্ণিত বর্তমান বাসা হইতে বাসার কাউকে কিছু না বলিয়া কোথায় যেন চলিয়া যায়। পরবর্তীতে বাসায় খোঁজাখুঁজি করিয়া তাহার সন্ধান পাইনি। আমার স্বামী তাঁহার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর ০১৮৩৩****৮০ হইতে আমার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর ০১৭১৫****৯৮ আনুমানিক ৫.২৯ মিনিটে কল করিয়া জানান যে তিনি ভালো নাই। এরপর তাঁর মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

ফরহাদ মুহাম্মদ মজহারুল হক (৭০), গায়ের রং উজ্জ্বল শ্যামলা, মুখমণ্ডল গোলাকার, মাথার চুল কাঁচা ও পাকা। পরনে ছিল সাদা রঙের পাঞ্জাবি ও চেক লুঙ্গি এবং কাঁধে সাদা ওড়না। বিষয়টি ভবিষ্যতের জন্য অত্র থানায় ডায়েরিভুক্ত করার আবেদন করছি।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, বাসা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ফরহাদ মজহার যে নম্বরটি দিয়ে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন সে নম্বরটি ট্র্যাকিং করা হয়েছে। এতে গাবতলী, পাটুরিয়া ফেরিঘাট পার হয়ে বর্তমানে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে তাদের অবস্থান শনাক্ত করা গেছে।

এদিকে ফরহাদ মজহারকে অপহরণ করা হয়েছে বলে আদাবর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন স্ত্রী ফরিদা আক্তার। জিডি নং ১০১। থানার ডিউটি অফিসার এসআই মোহসিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, ‘মজহার সাহেবের নম্বরটি ট্র্যাকিং করে বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান আমরা দেখতে পেরেছি। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের দিকে তার অবস্থান শনাক্ত হয়েছে। আমরা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ রাখছি। তাকে খুঁজে পেতে পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্টা করছে।’

ডিসি বিপ্লব বলেন, ফরহাদ মজহারের বাড়ির সামনের সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা গেছে ভোর ৫টা ৫ মিনিটে স্বাভাবিক পোশাক পরে তিনি হেঁটে বাসা থেকে বেরিয়ে যাচ্ছেন। বাসা থেকে বের হওয়ার পর ৫টা ২৯ মিনিটে তার স্ত্রীর মুঠোফোনে ফোন করে ফরহাদ মজহার বলেন, ‘আমাকে নিয়ে যাচ্ছে। আমাকে মেরে ফেলবে।’

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ফরহাদ মজহার শ্যামলী রিং রোডের হক গার্ডেন নামের একটি ভবনে বসবাস করেন। তিনি সাধারণত ভোরে ঘুম থেকে ওঠেন। অত ভোরে তিনি বাসা থেকে বের হন না। তিনি সাধারণত সকাল ৮টা থেকে ১০টার পরই বাসার বাইরে যান। কিন্তু আজ অপহরণের ঘটনার অভিযোগ পাওয়ার পরপরই আদাবর থানার ওসিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বাসাটি পরিদর্শন করলেও কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close