অন্য পত্রিকা থেকে

ইংল্যান্ডের কারাগারগুলো থেকে ২শ ২৫ কেজি মাদক উদ্ধার

নিউজ ডেস্ক: ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের জেলখানাগুলোতে ড্রাগ ও সংঘর্ষের ঘটনা প্রতিরোধে সরকার ব্যাপক উদ্যোগ নেবে বলে জানিয়েছেন জাস্টিস সেক্রেটারী ডেভিড লিডিংটন।

দেশের কারাগারগুলো থেকে ২০১৬ সালে প্রায় ২শ ২৫ কেজি ড্রাগ উদ্ধার করা হয়েছে। একই সঙ্গে প্রায় ১৩ হাজার মোবাইল এবং ৭ হাজার সিমকার্ড জব্ধ করা হয়।

জাস্টিস মিনিস্ট্রি থেকে এই তথ্য প্রকাশের পর পরই নতুন জাস্টিস সেক্রেটারী জানান, আগামী বছরের ভেতরে প্রায় আড়াই হাজার নতুন কারারক্ষী নিয়োগের পরিকল্পনা করছে সরকার। ৪ সপ্তাহ আগে জাস্টিস সেক্রেটারী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণকারী ডেভিড লিভিংটন কারারের এই বেহাল দশার কথা জানতেন না বলেও জানান।

যদিও লেবার বলছে, কারাগারগুলোতে এই বেহাল দশার জন্যে ২০১০ সালের টোরি-লিবডেম কোয়ালিশন সরকারের ব্যাপক বাজেট কাটকে দায়ী।

টোরি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের কারাগারগুলোতে স্টাফের সংখ্যা ৪৫ হাজার থেকে ৩১ হাজারে নেমে আসে।

এর আগে ২০১০ সালে টোরি-লিবডেম কোয়ালিশন সরকারের বাজেট কাটের কারনে স্টাফ কমে যাওয়ায় কারাগারগুলোতে মাদকের ব্যাপকতা বেড়ে যায়।

বর্তমানে কারাগারের ভেতর থেকে মোবাইল ফোনে ড্রাগ বা ফোনের অর্ডার দেওয়া হয়। আর বাহির থেকে সংঘবদ্ধ চক্র তা ডেলিভারি দেয়। প্যাকেটে মোড়ানো মাদক এবং মোবাইল ছুঁড়ে মারা হয় কারাগারে বাইরে ঝুলে থাকা সিকিউরিটি নেটে।

এখান থেকে কৌশলে তা সংগ্রহ করেন আসামীরা। মিনিস্ট্রি অব জাস্টিস জানিয়েছে, এই পদ্ধতিতে খুব সহজে প্রায় ৪৫ শতাংশ কারাগারে মাদক এবং অন্যান্য নিষিদ্ধ দ্রব্য সরবারহ করা হয় বাহির থেকে।

এই অবস্থায় ড্রাগসহ অন্যান্য সমস্যা মোকাবেলায় কারাগারগুলোতে আগামী বছরের ভেতরে অতিরিক্ত আড়াই হাজার স্টাফ নিয়োগের ঘোষণা দেন নতুন জাস্টিস সেক্রেটারী ডেভিড লিডিংটন। রোববার বিবিসির একটি প্রোগ্রামে এসে এই আশ্বাস দেন তিনি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close