আরববিশ্ব জুড়ে

এক রাতেই যেভাবে বদলে গিয়েছিল সৌদি সিংহাসনের উত্তরাধিকার

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: বিন নায়েফের জায়গায় সৌদি বাদশার পুত্র মোহাম্মদ বিন সালমানকে যুবরাজ (ক্রাউন প্রিন্স) ঘোষণার পর থেকেই বিশ্বজুড়ে সৃষ্টি হয় গুঞ্জন। বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ কর্তৃক ভাতুষ্পুত্রকে সরিয়ে নিজ ছেলেকে যুবরাজ ঘোষণার সিদ্ধান্ত অনেকের কাছেই প্রাসাদ ষড়যন্ত্র হিসেবে পরিচিতি পায়।

রয়টার্সের এক বিশেষ প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, এ বছরের ২১ জুন রাতে সৌদি বাদশাহর প্রাসাদ থেকে ডাক এল যুবরাজ ও সিংহাসনের উত্তরাধিকারী মোহাম্মদ বিন নায়েফের কাছে। বাদশাহর সঙ্গে দেখা করে ভোরে বিন নায়েফ যখন বের হন, তখন আর তিনি সিংহাসনের উত্তরাধিকারী নন। সে সাক্ষাতেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সৌদি রাজসিংহাসনের উত্তরাধিকারী পরিবর্তনের।

সৌদি নাগরিকদের জানানো হয়, তাদের পরবর্তী বাদশাহ হতে চলেছেন মোহাম্মদ বিন সালমান। অর্থাৎ ভাইয়ের ছেলেকে সরিয়ে যুবরাজের আসনে নিজের ছেলেকে বসিয়েছেন বাদশাহ সালমান। ভবিষ্যৎ বাদশাহ হবেন তার ছেলেই।

ক্রাউন প্রিন্স হিসেবে বিন নায়েফ উপ-প্রধানমন্ত্রীর পদের পাশাপাশি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্বেও ছিলেন। সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের নেতৃত্বেও ছিলেন তিনি। বাদশাহর পর তিনি ছিলেন সবচেয়ে ক্ষমতাবান। কিন্তু সালমান ভেতরে ভেতরে চ্যালেঞ্জ হয়ে হয়ে দাঁড়ান তার জন্য।

২১ জুন রাতে প্রাসাদে ডেকে তাকে পদত্যাগ করতে বলেন বাদশাহ সালমান। আনুগত্য স্বীকার করতে বলেন তার ছেলের কাছে। পদত্যাগের কারণ হিসেবে পেইনকিলারে আসক্তির কথা বলা হয় তাকে।

২০০৯ সালে আল কায়েদা হামলার পর থেকে তার স্বাস্থ্যগত সমস্যা তৈরি হয়। তখন এক জঙ্গি তার প্রাসাদের সামনে আত্মঘাতী হয়েছিলেন, বিন নায়েফ বেঁচে গেলেও তার দেহে থেকে যায় শার্পনেল। সেই শার্পনেল বের করা যায়নি বলে মরফিনের মতো ওষুধের ওপরই চলতেন তিনি। আর এ থেকেই আসক্তি তৈরি হয়। তাকে বহুবার বলেও এ আসক্তি ছাড়ানো যায়নি।

পদত্যাগের আগে, সে সময় প্রাসাদের একটি কক্ষে বিন নায়েফকে আটক রাখা হয়। তার মোবাইল ফোনটি কেড়ে নেওয়া হয়। এই সময়ের মধ্যে তার দেহরক্ষীদেরও বদলে দেওয়া হয়। ৩৪ জন সদস্যের মধ্যে তিনজন বাদে সবাই বিন নায়েফের পদচ্যুতির সিদ্ধান্তে সই করেন। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ বিন আবদুল আজিজ, প্রয়াত বাদশাহ আবদুল্লাহর পরিবারের প্রতিনিধি আবদুল আজিজ বিন আবদুল্লাহ ও রিয়াদের সাবেক ডেপুটি গভর্নর মোহাম্মদ বিন সাদ এ সিদ্ধান্তে সই করেননি।

এরপর উত্তরাধিকার পরিবর্তনের সেই শাহী ফরমান রাজপ্রাসাদ থেকে ছড়িয়ে দেওয়া হয় গণমাধ্যমে। বিন নায়েফ এখনও কার্যত গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছেন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close