ইউরোপ জুড়ে

আটলান্টিক মহাসাগর পাড়ি দেয়া বিমানে শিশুর জন্ম

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: আটলান্টিক মহাসাগরের ওপর দিয়ে উড়ছিল লুফথানসা এয়ারলাইন্সের একটি বিমান। ১৯১ যাত্রী নিয়ে বিমানটির গন্তব্য ছিল জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্ট শহর। হঠাৎ প্রসব বেদনা অনুভব করলেন এক যাত্রী। চলন্ত বিমানেই বিমানবালাদের সহায়তায় জন্ম নিল একটি শিশু।

চলতি মাসের ২৫ জুলাই কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতা থেকে যাত্রা শুরু করে বিমানটি। যাত্রীদের মধ্যে ছিলেন ৩৮ বছর বয়সী বুলগেরিয়ার নারী দেসিসলাভা কে। গর্ভবতী দেসিসলাভা হঠাৎ করে অনুভব করলেন প্রসব বেদনা। কিন্তু বিমানটি তখন ভূমি থেকে ৩৯ হাজার ফুট ওপরে।

এ অবস্থায় দেসিসলাভার সাহায্যে এগিয়ে আসেন বিমানবালারা। যাত্রীদের মধ্যে খুঁজে পাওয়া যায় তিন চিকিৎসককেও। বিমানের সামনের দিকের যাত্রীদের সরিয়ে দিয়ে ঝটপট তৈরি করা হয় ডেলিভারি রুম। চারপাশজুড়ে নেওয়া হয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা। শেষে সবার সহায়তায় জন্ম নেয় একটি ছেলেশিশু।

বিমানে জন্ম নেওয়া শিশুটির নাম রাখা হয়েছে নিকোলাই। সন্তান প্রসব করতে সাহায্য করা তিন চিকিৎসকের একজনের নামের সঙ্গে মিল রেখেই এ নাম দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, নিকোলাইয়ের জন্মের পর বিমানটি জরুরিভাবে যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার শহরে নামানো হয়। পরে সেটি আবার ফ্রাঙ্কফুর্টের উদ্দেশে উড়ে যায়। ১৯৬৫ সালের পর থেকে লুফথানসা এয়ারলাইন্সের বিমানে নিকোলাইকে নিয়ে ১১টি শিশুর জন্ম হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close