Americaযুক্তরাষ্ট্র জুড়ে

রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবরোধে সন্তুষ্ট নন ট্রাম্প

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন অবরোধে দু’দেশের মধ্যে সম্পর্কের মারাত্মক অবনতি হতে পারে। এ অবরোধে সন্তুষ্ট নন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তিনি বলেছেন, সাংবিধানিক কর্তৃত্বের সীমা অতিক্রম করে কংগ্রেস অবরোধ সংক্রান্ত বিল পাস করে হোয়াইট হাউজে পাঠিয়েছে। ওদিকে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দমিত্রি মেদভেদেভ যুক্তরাষ্ট্রের এ অবরোধকে বাণিজ্য যুদ্ধ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

মেদভেদেভ বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা নতুন অবরোধ মস্কোর বিরুদ্ধে পূর্ণ মাত্রায় বাণিজ্য যুদ্ধের সমপর্যায়ের। এ অবস্থায় অর্থনৈতিক করুণ পরিণতির আশঙ্কা করছে জার্মান সহ ইউরোপের কয়েকটি দেশ। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।

উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের মত না থাকলেও রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবরোধ প্রস্তাব পাস করেছে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস এবং এ বিষয়ক বিলে স্বাক্ষর করেছেন ট্রাম্প। এর মাধ্যমে ট্রাম্পকে অবমাননা করা হয়েছে বলে আলোচনা আছে।

২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ ও ইউক্রেনে তাদের কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে শাস্তি দিতে রাশিয়ার বিরুদ্ধে এই অবরোধ দেয়া হয়েছে।

কিন্তু অবরোধ সংক্রান্ত এ প্রস্তাব নিয়ে কংগ্রেস সীমার অতিরিক্ত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ট্রাম্প। এই অবরোধ বিষয়ক আইনের নাম দেয়া হয়েছে কাউন্টারিং আমেরিকাস এডভারসারিস থ্রু স্যাংশনস অ্যাক্ট।

তাতে বুধবার স্বাক্ষর করে তিনি তার সঙ্গে একটি বিবৃতি জুড়ে দিয়েছেন। বলেছেন, এ পদক্ষেপ গভীরভাবে ত্রুটিপূর্ণ। নতুন এই অবরোধে রাশিয়ার জ্বালানি বিষয়ক প্রকল্পে মার্কিনিরা কি পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করতে পারবেন তা সীমাবদ্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এর ফলে রাশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিগুলোর ব্যবসা করা খুব কঠিন হয়ে পড়েছে। রাশিয়া বাদেও ইরান ও উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধেও অবরোধ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জবাবে ইরান বলেছে, নতুন অবরোধে পারমাণবিক চুক্তি লঙ্ঘন করা হয়েছে।

এর যথোপযুক্ত জবাব দেয়া হবে। আধা সরকারি বার্তা সংস্থা ইসনা এ কথা জানিয়েছে। তবে অবরোধের জবাবে কোনো মন্তব্য দেয় নি উত্তর কোরিয়া। অবরোধ দেয়ার পর বুধবার ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দমিত্রি মেদভেদেভ।

তিনি তাতে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে নতুন প্রশাসনের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কের উন্নতি ঘটানোর যে আশা করা হচ্ছিল তা শেষ হয়ে গেছে অবরোধের কারণে। কোনো অলৌকিকতা না ঘটলে এই অবরোধ দশকের পর দশক চলতেই থাকবে। মেদভেদেভ আরো সতর্কতা দিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, রাশিয়ার বিরুদ্ধে এই অবরোধ হতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়ার উদ্দেশে। এ সময় তিনি ট্রাম্পকে একজন নন সিস্টেমিক প্লেয়ার হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস এই অবরোধ পাস করে। এর ফলে দুই দেশই দুই দেশের কূটনৈতিক মিশন থেকে লোক কমানোর ঘোষণা দেয়। ওদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়ার সাপে নেউলে সম্পর্ক দাঁড়াচ্ছে তাতে বড় রকমের অর্থনৈতিক ক্ষতির আশঙ্কা করছে জার্মানি সহ ইউরোপের কিছু দেশ। তবে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট জ্যাঁ-ক্লাউডি জাঙ্কার।

ওদিকে গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ও নিজের নির্বাচনী টিমের সঙ্গে রাশিয়ার দহরম মহরম নিয়ে যে অভিযোগ আছে তা বার বার অস্বীকার করছেন ট্রাম্প। তবে এ অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তদন্ত করছে। তদন্ত করছেন স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুয়েলারও।

এক্ষেত্রে অবরোধ বিষয়ক বিল পাস করায় কংগ্রেসের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন তিনি। বলেছেন, সাংবিধানিক কর্তৃত্বের বাইরে গিয়ে এ কাজ করা হয়েছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি কংগ্রেসের চেয়ে বিদেশীদের সঙ্গে আরো উন্নততর চুক্তি করতে পারি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close