যুক্তরাজ্য জুড়ে

মাকে ইংলিশ শিখাচ্ছেন মালালা

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: পাকিস্তানের তালেবান অধ্যুষিত খায়বার পাখতুন অঞ্চলে নারী শিক্ষার জন্য আন্দোলন করে বিশ্বব্যাপী যার পরিচিতি। শান্তিতে নোবেল বিজয়ী। সবার কাছে তিনি অনেক উঁচু, অনেক সম্মানের হলেও মায়ের কাছে নিতান্তই একজন মেয়ে। এবার তারই প্রমাণ দিলেন মালালা ইউসূফজাই।

তার লেখা বই ‘মালালা ম্যাজিক’ শিগগিরই বাজারে আসছে। যেখানে মালালার ছোটবেলার সব স্মৃতি লেখা হয়েছে। যেহেতু নিজের মেয়ের বই তাছাড়া আগের লেখা বইগুলো পড়তে পারেনি জন্মদাতা মা, তাই তো এবার মালালা সঙ্গে জেদ ধরেছেন তাকে ইংরেজি শেখাতে হবে। তার হাতে লেখা বই তিনি পড়বেন। হাজার ব্যস্ততা থাক না এক পাশে, কিছু সময়তো মাকে দেয়াই যায়। যেমনি চিন্তা তেমনি কাজ, ইতোমধ্যে মাকে ইংরেজি শেখানো শুরু করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, মাত্র ১৭ বছর বয়সে নোবেল শান্তি পুরস্কার লাভ করেন মালালা। যিনি নোবেলে ইতিহাসে সবচেয়ে কণিষ্ঠ নোবেল বিজয়ী। তিনি উত্তর-পশ্চিম পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের সোয়াত উপত্যকা অঞ্চলে শিক্ষা এবং নারী অধিকারের ওপর আন্দোলনের জন্য পরিচিত, যেখানে স্থানীয় তালিবান মেয়েদের বিদ্যালয় শিক্ষালাভের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। তার পরিবার সেই স্থানে অনেকগুলি বিদ্যালয় পরিচালনা করে থাকেন।

২০১২ খ্রিস্টাব্দের ৯ অক্টোবর, স্কুলের বাসে একজন বন্দুকধারী তাকে চিহ্নিত করে তিনটি গুলি করে, যার মধ্যে একটি তার কপালের বা দিক দিয়ে ঢুকে চামড়ার তলা দিয়ে তার মুখমণ্ডলের মধ্যে দিয়ে কাঁধে প্রবেশ করে।

পরবর্তী বেশ কয়েকদিন তিনি অবচেতন ছিলেন ও তার অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে তার অবস্থার উন্নতি হলে পরবর্তী চিকিৎসার জন্য বার্মিংহ্যাম শহরের কুইন এলিজাবেথ হাসপাতালে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়, যেখানে তিনি ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠেন। এর পর তার জীবনি নিয়ে ইংরেজিতে একটি বই বের হয়। পরে সেটা আবার বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ হয়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close