জাতীয়

সামিরা ও তার পরিবার যেন পালিয়ে যেতে না পারে ও রুবিকে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবী সালমানের মায়ের

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: রোববার এক ভিডিও বার্তায় সালমান শাহ আত্মহত্যা করেননি, তাকে খুন করা হয়েছে এমন দাবি করেছেন রাবেয়া সুলতানা রুবি নামে আমেরিকা প্রবাসী এক বাংলাদেশি। অল্প সময়ের মধ্যে ভিডিও বার্তাটি ভাইরাল হয়ে যায়।

ভিডিওতে সালমান শাহের মা নীলা চৌধুরীকে উদ্দেশ্য করে রুবি বলেন, এই খুনের বিষয়ে তিনি বিস্তারিত জানেন। বিষয়টি যেভাবেই হোক ফের যেন তদন্তের ব্যবস্থা করা হয়। তিনি যেভাবেই পারেন আদালতে সাক্ষী দেবেন।

ভিডিওটি দেখেছেন সালমান শাহের মা নীলা চৌধুরী। এখন লন্ডনে সালমানের ছোট ভাই শাহরানের কাছে তিনি। সেখান থেকেই সালমান শাহের মা নিজের ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘প্রিয় দেশবাসী। আমাকে সাহায্য করুন। দেখুন, রুবি সুলতানার স্বীকারোক্তি। কীভাবে সালমানকে হত্যা করা হয়েছে।

যেভাবে পারেন এফবিআইকে জানান, বাংলাদেশের সকল চ্যানেলকে অনুরোধ করছি রুবির স্বীকারোক্তিটা চালিয়ে দেন। প্রিয়জন, খেয়াল রাখবেন এই নিউজের পর অনেকে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে। শান্তভাবে কাজ করবেন।’

সালমানের স্ত্রী সামিরা ও তার পরিবার যেন দেশ থেকে পালিয়ে যেতে না পারে সে দিকেও নজর দিতে অনুরোধ করেছেন নীলা চৌধুরী।

রুবির ভিডিও বার্তা দেখে তার কাছে ফোন নাম্বার চেয়ে নীলা চৌধুরী ফেসবুকে লেখেন, রুবি তুমি এত কথা বলতে পারছ তাহলে এফবিআই বা আমেরিকার পুলিশকে জানাতে পারছ না কেন, তারা যাতে তোমাকে নিরাপদে রাখে। তোমার ফোন নাম্বার দাও।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে ইতিহাস সৃষ্টিকারী নায়ক সালমান শাহ ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রহস্যজনকভাবে মৃত্যুবরণ করেন। এটি খুন না আত্মহত্যা এ নিয়ে গেলো দুই দশক ধরে বিতর্ক চলছে।

রুবির ভাষ্য, সালমান শাহকে খুনের ঘটনায় জড়িত ছিলেন তার স্বামী চীনা নাগরিক চ্যান লিং চ্যান। তিনি বাংলাদেশে জন চ্যান নামে পরিচিত। ধানমন্ডির সাংহাই রেস্টুরেন্টের মালিক তিনি। চীনাদের দিয়ে এই খুন করানো হয়। এতে জড়িত ছিলেন সালমান শাহের স্ত্রী সামিরার পরিবারও।

রুবিকে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবী সালমানের মায়ের

একটি ভিডিও সবকিছু ওলট-পালট করে দিয়েছে। পাল্টে দিয়েছে হিসাব-নিকাশ। বলছি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাজির হওয়া রাবেয়া সুলতানা রুবির ভিডিওর কথা। তার বক্তব্যকে কেন্দ্র করে আবারো আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এসেছে প্রয়াত জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সালমান শাহ’র মুত্যুর বিষয়টি।

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ায় বসবাসরত রুবি সোমবার ফেইসবুকে এক ভিডিওবার্তায় বলেন, সালমান শাহ আত্মহত্যা করে নাই। সালমান শাহকে খুন করা হইছে, আমার হাজব্যান্ড এটা করাইছে আমার ভাইরে দিয়ে। সামিরার ফ্যামিলি করাইছে আমার হাজব্যান্ডকে দিয়ে। আর সব ছিল চায়নিজ মানুষ।

বিস্ফোরক বক্তব্য শোনার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সালমানের সকল ভক্তরা এই হত্যাকান্ডের বিচার চেয়েছেন। আত্মহত্যা নয়, সালমান শাহ হত্যার শিকার হয়েছিলেন এবং তার স্ত্রী সামিরা হকের পরিবারই তাকে খুন করিয়েছিল বলে রুবির ভাষ্য।

ফেইসবুকে এক ভিডিওবার্তায় রুবির ওই বক্তব্য আসার পর যুক্তরাজ্যে বসবাসরত নীলা সোমবার বলেন, যে স্বীকারোক্তি রুবি দিয়েছে, কোনো পাগল কী এভাবে বলবে? সে তো নিজে এসে সাক্ষী দিতে চাচ্ছে। তাহলে তাকে সরকারের মাধ্যমে ঢাকায় এনে তার জবানবন্দি নেওয়া হোক। তাঁকে নিরাপত্তা দিয়ে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা হোক। আর রুবি যাদের নাম বলেছে, তাদের এখনই গ্রেপ্তার করা হোক।

তিনি আরো বলেন, এত বছর আমি হতাশায় ভুগছি। দেশে আমারও নিরাপত্তা নেই। যার কারণে আমি লন্ডনে আছি। আমি বিচার চাই। এটা ষোল কোটি মানুষের দাবি, কেবল নীলা চৌধুরীর দাবি নয়। সালমান শাহর মৃত্যুর ঘটনাকে ‘আত্মহত্যা’ বিবেচনা করে পুলিশ সে সময় অপমৃত্যুর মামলা করলেও সালমান শাহর পরিবার তা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে আসছে। সালমানের বাবা কমরুদ্দীন আহমেদের মৃত্যুর পর সেই মামলা এখন চালাচ্ছেন মা নীলা চৌধুরী, যিনি এক সময় জাতীয় পার্টির নেত্রী ছিলেন।

সালমান শাহর মৃত্যুর জন্য তার স্ত্রী সামিরা হক, চলচ্চিত্র প্রযোজক ও ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মাদ ভাইসহ ১১ জনকে দায়ী করে আদালতে আবেদন করেছিলেন নীলা। ওই ১১ জনের মধ্যে সালমান শাহর বিউটিশিয়ান রুবির নামও রয়েছে। সালমান শাহকে কী কারণে হত্যা করা হয়েছিল, সেই বিষয়ে কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি রুবির ভিডিও বার্তায়। তবে তার ওই দাবিকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করছে রহস্যঘেরা ওই মৃত্যুর তদন্তের দায়িত্বে থাকা সংস্থা পিবিআই।

বর্তমানে ছোট ছেলের সঙ্গে ম্যানচেস্টারের কাছে রোশডেলে রয়েছেন সালমান শাহর মা নীলা চৌধুরী। সালমান শাহ হত্যার বিচার ও আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে ১৬ই আগস্ট প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানান নিলুফার চৌধুরী নীলা। সেদিনই তিনি পরবর্তী আরও কর্মসূচি ঘোষণা করবেন।

উল্লেখ্য, ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন ওরফে সালমান শাহের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয় ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর। মাত্র চার বছরে ২৭টি সিনেমা করে নব্বইয়ের দশকে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে আলোড়ন তুলেছিলেন নায়ক সালমান শাহ। এসব সিনেমার বেশিরভাগই ছিল আলোচিত এবং ব্যবসা সফল। তিনি এমনই এক তারকা যিনি মৃত্যুর ২১ বছর পরও রয়েছেন আলোচনায়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close