Americaযুক্তরাষ্ট্র জুড়ে

ট্রাম্পকে টুইটার থেকে আউট করতে চান সিআইএর সাবেক এজেন্ট

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে টুইটার থেকে আউট করতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার কিনে নিতে চান সিআইএ’র সাবেক এজেন্ট ভ্যালেরি পাম উইলসন। এ জন্য তিনি তহবিল সংগ্রহ করা শুরু করেছেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এত বেশি টুইট করেন যে তাতে বিরক্ত ভ্যালেরি।

তাই ট্রাম্প যাতে টুইটার ব্যবহার করতে না পারেন সে জন্য তিনি এ অনলাইন সাইটটি কিনে নিতে গত সপ্তাহ থেকেই অর্থ সংগ্রহ শুরু করেছেন। এ বিষয়ে ভ্যালেরি একটি টুইট দিয়েছেন।

লিখেছেন, যদি টুইটার নির্বাহীরা ট্রাম্পকে সহিংসতা ও ঘৃণাপ্রসূত কথাবার্তা বন্ধ না করেন তাহলে বিষয়টি আমাদেরকে দেখতে হবে। বাই টুইটার ব্যান ট্রাম্প। অর্থাৎ টুইটার কিনে নেবো। ট্রাম্পকে নিষিদ্ধ করবো। এ জন্য তিনি একটি পেজ চালু করেছেন। পেজের নাম দেয়া হয়েছে ‘গো ফান্ড মি’।

ট্রাম্পের টুইট দেশের ক্ষতি করছে এবং লোকজনের ক্ষতি হচ্ছে। টুইটার কিনে নিতে ভ্যালেরি ১০০ কোটি ডলার সংগ্রহের লক্ষ্য স্থির করেছেন। তবে এ পর্যন্ত তার সংগৃহীত অর্থের পরিমাণ অল্পই। গত বুধবার পর্যন্ত তিনি সংগ্রহ করতে পেরেছেন ৬ হাজার ডলারেও কম। এ বিষয়ে হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ হাকাবি স্যান্ডার্স ইমেইল বার্তায় মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেছেন, ভ্যালেরি যে অল্প পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ করতে পেরেছেন তা থেকেই বোঝা যায় যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের টুইটার ব্যবহারকে সমর্থন করেন বা পছন্দ করেন। ভ্যালেরি তো প্রেসিডেন্টের প্রথম সংশোধনী বন্ধ করে দেয়ার উদ্ভট চেষ্টা করেছিলেন। এটা পরিষ্কার সীমা লঙ্ঘন।

ওদিকে গো ফান্ড মি পেজে ভ্যালেরি লিখেছেন, তিনি আশা করেন টুইটারের একটি শেয়ার কিনে নিতে সক্ষম হবেন সংগৃহীত অর্থে। এর ফলে তিনি ওই সংস্থার নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা পাবেন। তিনি আরো বলেছেন, যদি তিনি টুইটারের বড় শেয়ার কেনার মতো অর্থ সংগ্রহ করতে নাও পারেন তাহলে তিনি কিনে নেবেন উল্লেখযোগ্য পরিমাণ শেয়ার।

তারপর টুইটারের বার্ষিক শেয়ারহোল্ডারদের বৈঠকে তিনি নিজের প্রস্তাব উত্থাপন করবেন। তবে তিনি যদি তার লক্ষ্য ১০০ কোটি ডলার সংগ্রহ করতে সক্ষমও হন তবু তিনি টুইটারের নিয়ন্ত্রণ অধিকার থেকে পিছিয়ে থাকবেন। কারণ, এমন ক্ষমতা পেতে একটি বড় অংকের শেয়ারের মূল্য প্রায় ৬০০ কোটি ডলার। তিনি যদি ১০০ কোটি ডলার সংগ্রহ করতে পারেন তাহলেও অনেকটা শেয়ার কিনে নিতে পারবেন।

এর ফলে তিনি ওই কোম্পানিতে নিজের অবস্থান প্রভাবিত করতে পারবেন। যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো ভিত্তিক কোম্পানি টুইটার। ভ্যালেরির লক্ষ্য নিয়ে তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয় নি।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের ইরাক আগ্রাসনের সমালোচনা করেছিলেন ভ্যালেরির স্বামী, সাবেক কূটনীতিক জো উইলসন। এ জন্য জো উইলসনকে অবমাননা করতে ২০০৩ সালে বুশ প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা ভ্যালেরির পরিচয় প্রকাশ করে দেন। তিনি প্রকাশ্যে বলে দেন ভ্যালেরি সিআইএ’র একজন এজেন্ট। ২০০৫ সালে সিআইএ ত্যাগ করেন ভ্যালেরি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close