পাক সীমানা জুড়ে

পারভেজ মোশাররফের সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: পাকিস্তানের ক্ষমতাচ্যুত স্বৈরশাসক পারভেজ মোশাররফের সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ন নিউজ জানিয়েছে, সে দেশের সন্ত্রাসবাদবিরোধী বিশেষ আদালত সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো হত্যা মামলার রায়ে মোশাররফকে পতালক ঘোষণা করে এই রায় দেন। রায়ে অপর পাঁচ আসামিকে বেকসুর খালাস এবং সিনিয়র দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে ১৭ বছরের কারাদণ্ডের সাজা দেওয়া হয়েছে। বেনজির ভুট্টোর হত্যার ৯ বছর ৮ মাস ৩ দিন পর এই রায় ঘোষিত হলো।

উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সেসময়কার প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে অপসারণ করে ২০০৮ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান শাসন করেন মোশাররফ। গত ২০১৩ সাল থেকে বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত হয়েছেন তিনি। একইবছর ৫ এপ্রিল তার ওপর বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ২০১৬ সালের মার্চে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দুবাইয়ের উদ্দেশে পাকিস্তান ছাড়েন মোশাররফ।

একই বছর জুলাই মাসে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় পাকিস্তানের সাবেক সেনাশাসক জেনারেল পারভেজ মোশাররফের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ ও সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। এবার বেনজির হত্যা মামলাতেই একই ধরনের রায় দেওয়া হলো।

বেনজির ভুট্টো ২০০৭ সালের ২৭ ডিসেম্বর রাওয়ালপিন্ডির লিয়াকত বাগ এলাকায় বন্দুক ও বোমা হামলায় নিহত হয়েছিলেন। ওই হামলায় পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) অন্তত ২৩ কর্মী নিহত হন। বেনজির হত্যা মামলায় পারভেজ মুশাররফ একজন আসামি ছিলেন। শুরু থেকেই তিনি বিচার কার্যে তিনি অনুপস্থিত ছিলেন। বিচারের টানা অনুপস্থিতির বিরুদ্ধে তার বিরুদ্ধে পৃথক একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। সেই মামলার বিচার প্রক্রিয়া এখনও শুরু হয়নি।

দেশ ছাড়ার সময় চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাচ্ছেন বলে সাবেক এ সেনাশাসকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল। বলা হয়েছিল, চিকিৎসাশেষে শিগগিরই দেশে ফিরবেন। কিন্তু রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় কয়েক দফায় সমন জারির পরও আদালতে হাজির না হওয়ার প্রেক্ষিতে গত মে মাসে আদালত তাকে পলাতক ঘোষণা করেন।

একইসঙ্গে ৩০ দিনের মধ্যে মোশাররফকে আদালতে হাজির করতে ফেডারেল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সিকে (এফআইএ) নির্দেশ দেওয়া হয়। তবে এরপরও পারভেজ মোশাররফ আদালতে হাজির না হওয়ায় ১৯ জুলাই ২০১৬ তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার হত্যা মামলার রায়ে কারাদণ্ডের সাজা পাওয়া দুই পুলিশ কর্মকর্তা হলেন- হামলার সময় রাওয়াপিন্ডির পুলিশ প্রধান সৌদ আজিজ এবং রাওয়াল শহরের সাবেক পুলিশ সুপার খুররাম শাহজাদ। জামিনে থাকা এই পুলিশ কর্মকর্তাকে এরই মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পাকিস্তানের দণ্ডবিধির ১১৯ ধারা অনুসারে দুই সাবেক পুলিশ কর্মকর্তাকে ১০ বছর করে এবং ২০১ ধারা অনুসারে আরও সাত বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। উভয়কেই আরও ৫ লাখ রুপি জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাস কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে তাদের।

মামলার অপর পাঁচ আসামি তেহরিক ই তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি)-র পাঁচ নেতাকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। তারা হলেন- রাফাকাত হোসেন, হাসনাইন গুল, শের জামান, আইতাজ শাহ ও আবদুল রশিদ।

রায়ে পারভেজ মোশাররফ ছাড়াও আরও ৫ আসামিকে পলাতক ঘোষণা করা হয়েছে। তারা হলেন- বাইতুল্লাহ মেহসুদ, আহমেদ গুল, ইকরামুল্লাহ, আব্দুল্লাহ ও ফাইজুল্লাহ। আদালত পারভেজ মোশাররফের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। তবে পরোয়ানার কোনও সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়নি।

বিচারের সময় ৬৮ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। পুলিশ আদালতে তিনটি চালান দাখিল করে। একই সময়ে ফেডারেল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এফআইএ) আদালতে দাখিল করে ৫টি চালান। বিচারের সময় বিচারক পরিবর্তন করা হয়েছে আটবার।

২০১৩ সালে এফআইএ-র বিশেষ প্রসিকিউটরকে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা হত্যা করে। চিকিৎসকরা জানান, বুক ও কাঁধে ১০টি গুলিবিদ্ধ হয়ে প্রসিকিউটরের মৃত্যু হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close