অন্য পত্রিকা থেকে

বিবিসির সাংবাদিককে লন্ডন ব্রিজের হামলায় প্ররোচিত করতে চেয়েছিল আইএস

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: ছদ্মবেশে সংবাদ সংগ্রহকারী এক ব্রিটিশ রিপোর্টারকে লন্ডন ব্রিজ ও ওয়েস্ট মিনস্টারে হামলা চালাতে রাজি করানোর চেষ্টা করেছিল মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএস এর এক এজেন্ট।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির দাবি, লন্ডন ব্রিজে হামলার এক বছর আগে থেকেই তাদের এক গুপ্ত সংবাদকর্মীকে উদ্বুদ্ধ করার প্রচেষ্টা চালানো হয়েছিল।

অনুসন্ধানের জন্য পরিচয় গোপন রেখে নিজেকে কিশোর হিসেবে উপস্থাপন করে অনলাইনে ওই আইএস এজেন্টের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন রিপোর্টার।

আর পুরো ঘটনার ব্যাপারেই অবগত ছিল কর্তৃপক্ষ। তাদের কথোপকথনে বের হয়ে আসা তথ্যগুলো গোয়েন্দাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল বলেও জানায় বিবিসি।

গত জুনে বোরো মার্কেটে লোকজনকে গণহারে ছুরিকাঘাতের পর তিন ব্যক্তি লন্ডন ব্রিজে পথচারীদের ওপর গাড়ি চালিয়ে হামলা করে। ওই ঘটনায় আটজন নিহত ও ৪৮ জন আহত হয়।

গোয়েন্দাদের বিশ্বাস, হামলাকারীরা এনক্রিপ্টেড মেসেজের মাধ্যমে সংঘবদ্ধ হয়েছিল। হামলার এক বছর আগে বিবিসি ইনসাইড আউট লন্ডন অনুষ্ঠানটির হয়ে আইএস এর বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে নামে বিবিসির গুপ্ত সংবাদকর্মীদের একটি দল।

নিজেদেরকে কিশোর হিসেবে উপস্থাপন করে আইএস-এর নিয়োগদাদের সঙ্গে অনলাইনে যোগাযোগ করেন তারা। দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে আইএস এর নিয়োগদাতা হিসেবে কাজ করছে এমন এজেন্টদের নিয়ে গোয়েন্দা বিভাগ যে তালিকা করেছে সেই অনুযায়ীই যোগাযোগ করেন বিবিসির সাংবাদিকরা।

গত বছরের জুলাইয়ে ছদ্মবেশে কাজ করা ওইসকল সাংবাদিক দেখতে পান, লন্ডনের সুনির্দিষ্ট কিছু এলাকায় হামলা চালানোর জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্রিটিশ মুসলিমদের প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে।

ওই সংবাদকর্মীরা তখন আইএস এর এক নিয়োগকারী এজেন্টের সঙ্গে পরিচয় গোপন করে অনলাইনে কথা বলেন।

ওই আইএস সদস্য তখন বিবিসির সংবাদকর্মীদের পরিচয় না জেনে একটি গোপন মেসেজিং সাইটে একান্তে আলাপ করার জন্য আমন্ত্রণ জানায়।

ওই রিপোর্টারদের একজন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রোফাইলে মা-বাবার সঙ্গে ১৭ বছরের কিশোর হিসেবে তোলা একটি ছবি দিয়ে রেখেছিলেন।

আইএস সদস্য তার কাছে জানতে চায় তিনি ওয়েস্ট মিনস্টার চেনেন কিনা। তাকে বলা হয়, এটি খুব ভালো টার্গেট কারণ এটি ব্যস্ত ও জনাকীর্ণ।

আইএস এর নিয়োগকারী ওই এজেন্ট বিবিসির সে সংবাদকর্মীকে আরও বলেন, ‘যদি তুমি সফল হও….তবে তা যুক্তরাজ্যের জন্য প্রচুর ক্ষতির কারণ হবে।

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে আরেকজন আইএস এজেন্ট কিভাবে এ ধরনের হামলা চালাতে হয় তার নির্দেশনা দেয়। ওই আইএস সদস্য বলে, ‘কাফেরদেরকে ভয় পাইয়ে দাও। অনেককে হত্যা করো।

সাধারণ মানুষদের হত্যা করাটা সবচেয়ে ভালো উপায়। এরপর ওই আইএস সদস্য একটি অন্ধকার ওয়েবে থাকা একটি সন্ত্রাসী ম্যানুয়েলের সম্পর্কে ওই রিপোর্টারকে নির্দেশনা দেয়।

সেখানে অস্ত্র হিসেবে গাড়িকে ব্যবহারের কৌশল বলা ছিল এবং কিভাবে ছুরি দিয়ে শরীরের দুর্বল অংশগুলোতে আঘাত করা যায় তা বলা ছিল।

আরেকটি ভিডিওতে কিভাবে ভুয়া সুইসাইড ভেস্ট তৈরি করতে হয় তা দেখানো হয়েছে। বলা হয়, হামলাকারী যদি ভুয়া সুইসাইড ভেস্ট পরে জনসাধারণের পাশে দাঁড়িয়ে থাকে তখন পুলিশ তাকে গুলি করবে না।

লন্ডন ব্রিজের হামলাকারীরা ভুয়া সুইসাইড ভেস্ট পরা ছিল। অবশ্য, পুলিশের গুলিতেই তারা নিহত হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের নিরাপত্তাবিষয়ক মন্ত্রী বেন ওয়ালেস জানান, লোকজনকে উগ্রপন্থায় উদ্বুদ্ধ করতে ব্যবহৃত হয় এমন আড়াই লাখ ডাটা ও ভিডিও ইন্টারনেট থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

এনক্রিপ্টেড মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম টুইটার বলছে, তারা মনে করে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো ও সরকারের একসঙ্গে কাজ করা জরুরি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close