রাজনীতিস্বদেশ জুড়ে

খালেদার বহরে হামলা নিয়ে ফাঁস হওয়া কথোপকথন নিয়ে মুখ খুললেন বিএনপি নেতা শাহাদাৎ

রাজনীতি ডেস্ক: বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে যারা হামলা করেছে তাদের পাওয়া গেছে বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

তিনি বলেন, বেগম জিয়ার গাড়িবহরে হামলার ঘটনার পরিকল্পনার বিষয়ে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন এবং ফেনী বিএনপির এক নেতার মধ্যে কথোপকথনে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে।

সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এই টেলিফোনালাপের রেকর্ড বাজিয়ে শোনান। শনিবার ঢাকা থেকে রওয়ানা দেয়া খালেদা জিয়ার বাড়িবহরে ফেনীতে হামলা হয়। বহরে থাকা গণমাধ্যম কর্মীদের একাধিক গাড়ির কাঁচ ভেঙে দেয় হামলাকারীরা। এই ঘটনার জন্য বিএনপি আওয়ামী লীগকে দায়ী করলেও ক্ষমতাসীন দল তা অস্বীকার করেছে।

দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বড় নিউজ’ তৈরির জন্যই ছাত্রদল ও যুবদলের কর্মীরা এই হামলা করেছে। এই হামলা নিয়ে দুই দলের পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগের মধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস প্রকাশ হয় একটি টেলিফোনাপ। এতে শনিবার খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার পরিকল্পনার কথা প্রকাশ পায়।

এদিকে একই দিন রাজধানীতে এক আলোচনায় আওয়ামী লীগ নেতা হাছান মাহমুদও এই টেলিফোনালাপের রেকর্ড বাজিয়ে শোনান। আর কণ্ঠস্বরটাও হুবহু শাহাদাতের সঙ্গে মিলে যায়। অপর একজন ফেনী বিএনপির একজন নেতার যার নাম মোবারক বলে জানিয়েছেন হাছান।

হাছান বলেন, ‘ইন্টারনেটের কল্যাণে এই হামলার পরিকল্পনার একটি কথোপথন প্রকাশ হয়েছে। তাতে চট্টগ্রাম মহানগরের বিএনপির সভাপতি এবং ফেনী বিএনপির এক নেতার কথোপকথনের মাধ্যমে প্রমাণ হয় এই হামলা সম্পূর্ণরুপে পরিকল্পিত।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ফেনী বিএনপির কোন এক নেতার কথোপকথনের মাধ্যমেই প্রমাণ হয় ওই হামলা সাজানো। তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় এ হামলা ঘটানো হয়েছে। এই রকম নোংরা রাজনীতি বিএনপি করে, নিজেরা ঘটনা ঘটিয়ে এই অপচেষ্টা। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই।

অবশ্য চট্টগ্রাম মহানগরের বিএনপির সভাপতি শাহাদাৎ দাবি করেছেন, এটা তার কণ্ঠ নয়, তাকে হেয় করার জন্য এটা সাজানো হয়েছে।

ফাঁস হওয়া এই কথোপকথনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার কণ্ঠ নকল করে চরিত্র হননের চেষ্টা করা হয়েছে। শাহাদাৎ বলেন, ওই অডিওতে যেভাবে কথা বলেছে, আমার কণ্ট সে ধরনের নয়। ঘটনাটি ঘটেছে ফেনীতে, আমার সারা জীবনের রাজনীতি হলো চট্টগ্রাম নিয়ে। আমি সারা জীবনে কারো ওপর একটা থাপ্পরও মারি নাই, আর গাড়ি ভাঙচুরতো দুরের কথা এবং ওই রাজনীতি আমি করি না কখনও।

শাহাদাত বলেন, এই ঘটনা (হামলা) কে ঘটিয়েছে তা বেশ কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় এসেছে। কারা এই ঘটনার নির্দেশ দিয়েছে তাও জাতি জানে। প্রথমত, অডিওতে যে কণ্ঠ তা আমা কণ্ঠের সঙ্গে মিলে কি না, দ্বিতীয়ত ওই জায়গায় আমার রাজনীতি কি না। ওইখানে যাকে নির্দেশ দেয়া হচ্ছে, তা লোকাল ভাষায় দেয়া হচ্ছে। আমি তো ওই ধরনের কথা বলি না

বিএনপি নেতা বলেন, এই কাজটা করেছে মূলত কালকে যে চট্টগ্রামে বিশাল জনসমাবেশ হয়েছে, তা দেখে ভীত হয়ে তারা আমার ওপর একটা ব্লেম আনার চেষ্টা করছে। আমার চরিত্র হননের জন্য আমি আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

উলেখ্য, ফাঁস হওয়া অডিওর ওই রেকর্ডে শোনা যায়, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি বলছেন, ম্যাডামের গাড়িতে যেন ঢিল না পরে’। তখন অপর প্রান্ত থেকে বলা হয়, ‘না লিডার ওদের সব বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে, ম্যাডামের গাড়িতে কোন ঢিল পড়বে না। ওদের বুঝিয়ে দিয়েছি শুধু সাংবাদিকদের ওপর হামলা করতে হবে।

শাহাদাত হোসেন তখন বলেন, কিছু ছাত্রলীগের নেতাদের নিয়েছো?। জবাবে ফেনী বিএনপির ওই নেতা বলেন হ্যাঁ, ওরা স্থানীয় কয়েকজন, ওদের টাকা পয়সা দিয়ে দেওয়া হয়েছে কোন সমস্যা হবে না, ম্যাডামের গাড়িতে কোন ঢিল পরবে না।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close