জাতীয়

মিয়ানমারের আবদার মেনে নিলো বাংলাদেশ: ৭ লাখ রোহিঙ্গা ফেরতের চুক্তি

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তিতে সাত লাখের মতো রোহিঙ্গা ফেরত যাওয়ার জন্য বিবেচিত হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু বর্তমানে ১০ লাখেরও বেশি শরণার্থী অবস্থান করছে বাংলাদেশে। এছাড়া ১৯৯২ সালের নীতি ও শর্ত অনুযায়ী বর্তমান চুক্তি হওয়ায় স্বস্তির কিছু দেখছেন না তারা।

গত ২৩ নভেম্বর দুই দেশের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তিতে বলা হয়েছে— ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর ও এ বছরের ২৫ আগস্টের পরে যারা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে তাদের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য হবে। যারা এর আগে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে বর্তমান চুক্তি শেষ হওয়ার পরে তাদের বিষয়টি পৃথকভাবে ভাবা হবে।

এছাড়া শনিবার (২৫ নভেম্বর) ঢাকায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘১৯৯২ সালের চুক্তি অনুসরণ করতে চায় মিয়ানমার। সেভাবেই এবারের চুক্তি করা হয়েছে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মিয়ানমারে বাংলাদেশের সাবেক ডিফেন্স অ্যাটাশে শহীদুল হক অভিজ্ঞতা থেকে বলেন, ‘মিয়ানমার মুখে বলে একটা, কিন্তু করে আরেকটা। এ বিষয়টাই সবচেয়ে অস্বস্তিকর।’

মিয়ানমার যে সাত লাখ রোহিঙ্গাকে ফেরত নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করেছে তারা গত বছরের অক্টোবর থেকে পালিয়ে এসেছে। বাকি তিন লাখের জন্য পৃথক ব্যবস্থা হতে পারে যদি এই সাত লাখ রোহিঙ্গা ফিরে যায় তারপরে।

সাবেক ডিফেন্স অ্যাটাশের কথায়, ‘গোটা প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর কোনও আলোচনা হয়নি। কিন্তু মজার বিষয় হলো, এ প্রক্রিয়া সম্পাদিত হবে তাদের মাধ্যমে! এর সঙ্গে জড়িত আছে ইমিগ্রেশন, পুলিশ ও সীমান্ত বাহিনী। এই তিনটিই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হচ্ছেন একজন কর্মরত (সার্ভিং) জেনারেল। এছাড়া মিয়ানমারে ক্ষমতার মূল চাবিকাঠি সামরিক বাহিনীর হাতে। তাই তাদের সঙ্গে আলোচনা না হওয়াটা অস্বস্তিকর।’

জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার অংশগ্রহণের বিষয়ে শহীদুল হক মনে করেন, বিষয়টি পুরোপুরি মিয়ানমারের অধীনে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তার ভাষ্য, ‘শুরু থেকে এই সংস্থা সম্পৃক্ত না থাকলে আমার আশঙ্কা অনেকে ফিরে যেতে পারবে না।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, ‘দ্বিপক্ষীয় চুক্তি হওয়াটা ইতিবাচক। তবে আমাদের মনে রাখতে হবে আঞ্চলিক শক্তি বিশেষ করে চীন, ভারত ও অন্যান্য শক্তি যেমন রাশিয়া ও অন্য দেশগুলোর সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে হবে।’

দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সংহতি বজায় রাখার ওপর জোর দিয়েছেন এই অর্থনীতিবিদ। তিনি মনে করেন, তাদের শক্তিকে খাটো করে দেখার উপায় নেই।

জাতিসংঘের থার্ড কমিটিতে ভোটাভুটিতে মিয়ানমারের পক্ষে ভোট দিয়েছিল চীন ও রাশিয়া। আর ভারত কোনও অবস্থান নেয়নি।

দেবপ্রিয় ভট্টাচার্যের ভাষ্য, ‘এই চুক্তিটি ইতিবাচক। তবে এমন মনে করার কোনও কারণ নেই যে, এই ১০ লাখ রোহিঙ্গা অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই মিয়ানমারে ফিরে যেতে পারবে। এ কারণে বাংলাদেশের উচিত হবে তাদের জন্য আর্থিক, সামাজিক, স্বাস্থ্য, পরিবেশ বিপর্যয় ইত্যাদি ভেবে একটি মধ্যমেয়াদী পরিকল্পনা করা।’

মিয়ানমারের রাখাইন থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে দলে দলে প্রথমবার পালিয়ে আসে ১৯৭৮ সালে। তখন তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি চুক্তিস্বাক্ষর হয়। এর অধীনে ছয় মাসেরও কম সময়ের মধ্যে প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা ফিরে গিয়েছিল।

১৯৯২ সালে আবার দলে দলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গারা। ওই সময় তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে আরেকটি সমঝোতা হয়। এর অধীনে ১৯৯৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত দুই লাখ ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা ফিরে যায় মিয়ানমারে।

২০১২ সালে রাখাইনে জাতিগত দাঙ্গা এবং ২০১৬’র অক্টোবর ও এ বছরের ২৫ আগস্ট মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর বর্বরোচিত নির্যাতনের কারণে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা। সব মিলিয়ে সংখ্যাটা ছাড়িয়ে গেছে ১০ লাখ।

মিয়ানমারের আবদার মেনে নিলো বাংলাদেশ

মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর বর্বরোচিত নির্যাতনের কারণে এ বছরের ২৫ আগস্ট থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা। তখন থেকেই তাদের ফেরত পাঠানোর জন্য মিয়ানমারের সঙ্গে বিভিন্ন পর্যায়ে যোগাযোগ শুরু করে বাংলাদেশ। পরবর্তী সময়ে শুরু হয় দর কষাকষি।

দীর্ঘ দর কষাকষির পর গত ২৩ নভেম্বর দুই দেশ একটি চুক্তিস্বাক্ষর করে। এর মাধ্যমে প্রায় সাত লাখের মতো রোহিঙ্গাকে ফেরত নেওয়ার জন্য চুক্তি করলো মিয়ানমার। কিন্তু যেসব বিষয় বাংলাদেশ বিশেষভাবে চেয়েছিল সেগুলোর বেশিরভাগই এতে নেই। ফলে মিয়ানমারের দাবির প্রাধান্য দেখা যাচ্ছে এখানে।

রোহিঙ্গা সংকট বিষয়ে বাংলাদেশ কী চায় তা গত ১০ অক্টোবর ঢাকায় এক সেমিনারে বর্ণনা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী। তিনি বলেছিলেন, ‘আমরা বাংলাদেশে বিভিন্ন সময়ে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের সব নাগরিককে ফিরিয়ে নেওয়ার ওপর জোর দিয়েছি। যাচাই প্রক্রিয়ায় যোগ্য বিবেচিত সব রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে আসার তারিখ বিবেচনা না করে ফেরত নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছি মিয়ানমারকে। ফেরত নেওয়ার ক্ষেত্রে রোহিঙ্গাদের যোগ্যতা নির্ধারণে মিয়ানমারের নিজস্ব যাচাইয়ের প্রস্তাবের বিপরীতে বাংলাদেশ যৌথ যাচাইয়ের প্রস্তাব দিয়েছে।’

প্রস্তাবিত দ্বিপক্ষীয় ব্যবস্থার খসড়ায় ফেরত পাঠানোর সব পর্যায়ে আন্তর্জাতিক অংশীদার ও জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর সংশ্লিষ্টতার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেছিলেন, ‘১৯৯২ সালের যৌথ বিবৃতির নীতি ও শর্ত অনুযায়ী একটি যাচাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়ার জন্য প্রস্তাব দেয় মিয়ানমার। আমরা ১৯৯২ সালের সঙ্গে বর্তমান সমস্যার মাত্রা ও প্রকৃতির ভিন্নতার বিষয়টি তুলে ধরি। বাস্তবতার কারণে ১৯৯২ সালের নীতি ও শর্ত পুনর্বিবেচনা আর নতুন কাঠামো ব্যবস্থার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করি।’

এছাড়া সময় নির্দিষ্টকরণ চুক্তির বিষয়ে জোর দিয়েছিল বাংলাদেশ। রোহিঙ্গারা যেন রাখাইনে নিজস্ব আবাসস্থলে ফিরে যেতে পারে তা এ বছরের অক্টোবরের প্রাথমিক খসড়ায় ছিল।

এর বিপরীতে শনিবার (২৫ নভেম্বর) চুক্তিস্বাক্ষরের পর ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ‘১৯৯২ সালের চুক্তি অনুসরণ করতে চায় মিয়ানমার। সেভাবেই জিনিসটি সাজানো হয়েছে। এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো। এতে ত্রুটি-বিচ্যুতি আছে, এটা নাই সেটা নাই বলে তো লাভ নেই।’

সব রোহিঙ্গাকে ফেরত নেওয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী শনিবার (২৫ নভেম্বর) বলেন, ‘স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর ও এ বছরের ২৫ আগস্টের পরে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রাখাইন রাজ্যের অধিবাসীদের ফেরত নেবে মিয়ানমার।’

সময়সীমা প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ফিরিয়ে নেওয়ার কোনও টাইমফ্রেম দেওয়া যায় না। প্র্যাকটিক্যাল ব্যাপার হলো, এ ধরনের টাইমফ্রেম দিয়ে কোনও লাভও নেই।’

যৌথ বাছাইয়ের ক্ষেত্রে মন্ত্রী বলেন, ‘একটি যাচাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়া হবে। এই প্রক্রিয়ায় কোনও জটিলতা দেখা দিলে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করবে।’

জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার সহায়তার বিষয়ে এএইচ মাহমুদ আলী বলেন, ‘মিয়ানমার প্রয়োজন অনুযায়ী উপযুক্ত সময়ে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থাকে প্রক্রিয়ায় যুক্ত করবে।’

রাখাইনে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের পুরনো আবাসস্থল বা তাদের পছন্দ অনুযায়ী কাছাকাছি কোনও স্থানে পুনর্বাসিত করা হবে।’

মিয়ানমারের রাখাইন থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে দলে দলে প্রথমবার পালিয়ে আসে ১৯৭৮ সালে। তখন তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি চুক্তিস্বাক্ষর হয়। এর অধীনে ছয় মাসেরও কম সময়ের মধ্যে প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা ফিরে গিয়েছিল।

১৯৯২ সালে আবার দলে দলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গারা। ওই সময় তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে আরেকটি সমঝোতা হয়। এর অধীনে ১৯৯৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত দুই লাখ ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা ফিরে যায় মিয়ানমারে।

২০১২ সালে রাখাইনে জাতিগত দাঙ্গা এবং ২০১৬’র অক্টোবর ও গত আগস্টে মিয়ানমারের পুলিশ ক্যাম্পে ‘হামলা’র ঘটনার জের ধরে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে আসে বাংলাদেশে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close