এশিয়া জুড়ে

সু চিকে দেওয়া সম্মাননা আনুষ্ঠানিকভাবে ফিরিয়ে নিলো অক্সফোর্ড

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞের কারণে সে দেশের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চিকে দেওয়া সম্মাননা প্রত্যাহার করে নিয়েছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড শহরের নগর কাউন্সিল।

অক্টোবরেই তার এই খেতাব প্রত্যাহারের পক্ষে ভোটাভুটির প্রস্তাব দিয়েছিল কাউন্সিল। সোমবার সেই ভোটাভুটির পর আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মাননাটি কেড়ে নেওয়া হয়। দুই ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান ও বিবিসি সম্মাননা প্রত্যাহারের খবরটি নিশ্চিত করেছে।

মিয়ানমারে ধর্মীয় বৈষম্য নেই; দেশটির শীর্ষ ক্ষমতাধর সেনাপ্রধান সফররত পোপ ফ্রান্সিসের কাছে এমন মন্তব্য করার দিনেই আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মাননা হারালেন সু চি। নগর কর্তৃপক্ষকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, মিয়ানমার রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি যে আচরণ করছে, তাতে সু চি আর ‘ফ্রিডম অব দি সিটি’ নামের ওই সম্মাননার যোগ্য নন।

অক্সফোর্ড শহরের সাথে নোবেল শান্তি পুরষ্কার বিজয়ী অং সান সু চির নাম জড়িয়ে আছে, কারণ তিনি সেখানে পড়াশোনা করেছিলেন। ২০১২ সালে সু চি অক্সফোর্ড থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি পেয়েছিলেন সু চি। ওই বছরই তিনি নিজের ৬৭তম জন্মদিন কলেজে পালন করেন। এখানে ১৯৬৪-৬৭ সাল পর্যন্ত সু চি রাজনীতি, দর্শন ও অর্থনীতি বিষয়ে পড়াশোনা করেছিলেন।

অক্টোরের তৃতীয় সপ্তাহে রাখাইনে রোহিঙ্গা মানবিক সংকটে বিতর্কিত ভূমিকার কারণে অক্সফোর্ড কলেজ তাদের জুনিয়র কমন রুম থেকে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির নাম প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়। সে সময় অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির সেন্ট হিউ’স কলেজের শিক্ষার্থীরা কমন রুম থেকে সু চির নাম মুছে ফেলার পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন।

অক্সফোর্ডের এই আন্ডারগ্র্যাজুয়েট কলেজে সু চি পড়াশোনা করেছিলেন। নাম মুছে ফেলার সিদ্ধান্তে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে দেশটির সেনাবাহিনীর অভিযানকে সমর্থন ও রক্ষায় সু চির নীরবতা ও সহযোগিতার সমালোচনা করা হয়।

এর আগে সেপ্টেম্বর মাসে সেন্ট হিউ’র পরিচালনা পর্ষদ কলেজের মূল ফটক থেকে সু চির প্রতিকৃতি নামিয়ে ফেলে। অক্টোবর মাসের শুরুতে অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিল সর্ব সম্মতভাবে সু চির ফ্রিডম অব দ্য সিটি অব অক্সফোর্ড পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়। এখন পর্যন্ত অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি সু চির সম্মানসূচক ডিগ্রি প্রত্যাহারের বিষয়টি বিবেচনা করছে না। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নিপীড়নে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close