লন্ডন থেকে

ব্রিটেন-বাংলাদেশ সেঁতুবন্ধন সৃষ্টিকারী জেএমজি এয়ারকার্গোর সফলভাবে ১৬ বছর পূর্তি উদযাপন

শীর্ষবিন্দু নিউজ: যুক্তরাজ্যে জেএমজি এয়ার কার্গো নাম শুধু একটা প্রতিষ্ঠানই নয় বরং ব্রিটিশ-বাংলাদেশীদের একটি সেতুবন্ধন। আর এই প্রতিষ্ঠার ১৬ বছর উদযাপন এবং কার্গো সেবায় সেরা সহযোগি প্রতিষ্ঠানগুলোকে জেএমজি এয়ারকার্গো এ্যাওয়ার্ড প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তারা এমন মন্তব্য করেন।

জেএমজি এয়ার কার্গোর সত্ত্বাধিকারী ও ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর ফাইন্যান্স ডিরেক্টর মনির আহমদের সভাপতিত্বে ও জনপ্রিয় টিভি ব্যাক্তিত্ব উর্মি মাজহার ও ফারহান মাসুদ খান এর পরিচালনায় ৬ই ডিসেম্বর বুধবার পূর্ব লন্ডনের স্থানীয় একটি হলে আয়োজিত হয় এক জাকজমকনপূণ এই অনুষ্টান।

জেএমজি এয়ার কার্গোর কমিউনিকেশন ম্যানেজার সাংবাদিক এনাম চৌধুরীর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিমান বাংলাদেশএয়ারলাইন্স এর পরিচালনা কমিটির সদস্য এবং মার্কেটিং এন্ড সেলস্ সাব কমিটির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম খান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নাজমুল কাওনাইন, বাংলাদেশ হাই কমিশনের কমার্শিয়াল কন্সুলার মিসেস শরীফা খান, বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্স এর কান্ট্রি ম্যানেজার (ইউকে এন্ড আয়ারল্যান্ড) মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, টাওয়ার হেমলেট কাউন্সিলের মেয়র জন বিগ্স, ডেপুটি মেয়র কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম, স্পিকার কাউন্সিলর সাবিনা খাতুনসহ আরো অনেকে।

জেএমজি হিথ্রো ব্রাঞ্চ ডিরেক্টর সামসাদুর রহমান রাহিনের স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- জেএমজি এয়ারকার্গো সিইও দিলারা খাতুন জেনী, লন্ডনবাংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ নাহাশ পাশা, গ্লোব এয়ার কার্গো এর রিজারভেসন ম্যানেজার মিস্টার দুরা বাবা, চ্যানেল এস এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর তাজ চৌধুরী, এটিএনবাংলার সিইও হাফিজ আলম বকস্, চ্যানেল আই ইউরোপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর রেজা আহমদ ফয়সল চৌধুরী সুয়েব, এনটিভি ইউরোপের সিইও সাবরিনা হোসাইন, লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সেক্রেটারী মুহাম্মদ জুবায়ের, ক্যানারী ওয়ার্ফ গ্রূপের কমিউনিকেশন ডিরেক্টর জাকির খান, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের সাবেক মেয়র আব্দুল আজিজ সর্দার ও মতিনুজ্জামান, সাবেক ডেপুটি মেয়র কাউন্সিলর ওহিদ আহমেদ, ব্রিটিশ-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর সাবেক প্রেসিডেন্ট মুকিম আহমেদ, মাহতাব চৌধুরী, ব্রিটিশ-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর ভাইস প্রেসিডেন্ট মহিব চৌধুরী, মিডিয়া এন্ড কমুনিকেসন্স ডিরেক্টর আবুল কালাম আজাদ, ইন্টারন্যাশনাল এফেয়ার্স সেক্রেটারি একাউন্টেন্ট আবুল হায়াতনুরুজ্জামান, কমিউনিটি এফেয়ার্স সেক্রেটারী ডক্টর সানোয়ার চৌধুরী।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের ডেপুটি স্পিকার কাউন্সিলর আয়াস মিয়া, নিউহাম কাউন্সিলের কাউন্সিলরআয়েশা চৌধুরী, নেটওয়ার্ক এয়ার লাইন্স এর সেলস ডিরেক্টর জন গিলফিটার, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও সমাজসেবী শাহ ফারুক আহমেদ, যুক্তরাজ্য সফররত দৈনিক সিলেটের ডাকের বিভাগীয় সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মুকিত অপি,এটি এন বাংলা ইউকে’র ম্যানেজিং ডাইরেক্টর সুফি মিয়া, লন্ডন টাইগার্স এর মিসবাহ আহমেদ, প্রবাসী বালাগঞ্জ-ওসমানী নগর এডুকেশন ট্রাস্ট এর সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর মাসুদ আহমেদ, কাউন্সিলর আব্দাল উল্লাহ, হিলসাইড ট্রাভেলস এর সত্ত্বাধীকারী হেলাল খান, মাহবুব এন্ড কোং এর প্রিন্সিপাল একাউন্টেন্ট মাহমুদ মুর্শেদ, হ্যামলেট কলেজ এর প্রিন্সিপাল প্রফেসর জামাল আহমেদ।

অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জেএমজি’র ম্যানেজার মাহমুদুল হাসান দুলাল, সাবেক ম্যানেজার কামরুল হাসান, হিউমান রাইটস কমিশন ইউকে’র চেয়ারম্যান আব্দুল আহাদ চৌধুরী, অটো সার্ভিস এর ডাইরেক্টর এ এস এম মিসবাহ, মিডিয়া লিংক এর ডাইরেক্টর মুজিবুল ইসলাম, সলিসিটর লুৎফুর রহমান, জেএমজি বার্মিংহাম এর পরিচালক মইনুল ইসলাম খান, ম্যানচেস্টার পরিচালক জাহাঙ্গীর হোসাইন, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব আহমেদ হোসাইন, ব্রিটিশ-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর ডাইরেক্টর আব্দুল মোহাইমিন মিয়া, জেএমজি’র ম্যানেজার (অপারেশন্স) সুরমান আহমেদ প্রমুখ।

ব্রিটেন তথা ইউরোপের খ্যাতনামা কার্গো সেবা প্রতিষ্ঠান জেএমজি এয়ার প্রতিষ্ঠার ১৬ বছর উদযাপন এবং কার্গো সেবায় সহযোগি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ্যাওয়ার্ড প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, ব্যবসা ক্ষেত্রে ব্রিটেনে বাংলাদেশী কমিউনিটির জন্য একটিসফলতার উদাহরণ জেএমজি এয়ারকার্গো। সততা, বিশ্বস্থতা এবং কমিটমেন্ট একটি প্রতিষ্ঠান কিংবা কোন ব্যক্তিকে সফলতার পর্যায়ে কিভাবে নিয়ে যেতে পারে সেটার বাস্তবউদাহরণ জেএমজি এয়ারকার্গো।

জেএমজি কার্গো এখন বাংলাদেশী কমিউনিটির কাছে একটি হাউজহোল্ড নাম উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, ব্রিটেনে বাংলাদেশী কমিউনিটিরসফলতার উদাহরণ অনেক বিশাল। ক্যারী ব্যবসা করে একটি জাতির খ্যাদ্যাভাস পরিবর্তন করে দিয়ে ক্যারী ব্যবসার ক্ষেত্রে বাংলাদেশীরা সফলতার যে উদাহরণ তৈরী করেছে সেটা যেমন এখন একটি সফলতার নাম, তেমনি কার্গো ব্যবসা নামে একটি ব্যবসা চালু করে ব্রিটেনে বাংলাদেশীদের নতুন এবং জনপ্রিয় একটি ব্যবসার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে জেএমজি এয়ারকার্গো।

বক্তারা বলেন, গ্রাহকের প্রত্যাশা পূরণের পাশাপাশি আপনজনদের সাথে ভালোবাসার সেঁতুবন্ধন তৈরী করে দিতে সকল ব্যবসা এবং গ্রাহকসেবামূলক প্রতিষ্ঠার নাম জেএমজিএয়ারকার্গো। বক্তারা জেএমজির সফলতা কামনা করে এর পথ চলায় সকলের সহযোগিতা করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা জেএমজি এয়ার কার্গো দীর্ঘ ১৬ বছরে পথ পরিক্রমার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, জীবনে কিছু অর্জন করতে হলে মানুষকে উদ্যোমী এবং প্রত্যয়ী হতে হয়।প্রত্যয় এবং আকাঙ্খা মানুষকে কোথায় নিয়ে যেতে পারে সেটার বাস্তব উদাহরণ মনির আহমদ। সততা বিশ্বস্থতা এবং ব্যবসা ক্ষেত্রে উদ্যোমী একজন মনির আহমদ কার্গোব্যবসাকে ব্রিটেনের মাটিতে শুধু জনপ্রিয়ই করেননি তিনি এই ব্যবসাকে একটি সফল ইন্ডাষ্ট্রিতে রূপান্তরিত করেছেন। দেশে রেখে আসা স্বজনকে কিছু পাঠাতে কিংবা প্রিয়জনকেকিছু দিতে হলে জেএমজি এক আস্থা এবং ভরসার নাম।

বক্তারা বলেন, আজকের তরুণ প্রজন্ম যদি ব্যবসা ক্ষেত্রে বাস্তব কোন প্রদর্শক দেখতে চায় তবে আমাদের উচিত মনির আহমদকে সামনে তুলে ধরা। বক্তারা মনির আহমদ এবংজেএমজি এয়ারকার্গোর সার্বিক সফলতা কামনা করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর বোর্ড অব ডাইরেক্টরস সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, প্রত্যাশা মানুষকে তার লক্ষ্য পানে নিয়ে যায়। ব্যবসায়সফলতা পেতে হলে সততা এবং বিশ্বস্থতা থাকতে হয়। মনির আহমদ জন্মভূমি ছেড়ে এসে ব্রিটেনের মাটিতে যে কঠিন কাজটি করে দেখিয়ে দিয়েছেন। নতুন প্রজন্মের কাছে কার্গোব্যবসাকে তিনি জনপ্রিয় শুধু করেননি এটার যে একটি সফলতার সোপান হতে পারে সেটাও তিনি বাস্তবায়ন করে দেখিয়েছেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, বিমান যাত্রী সেবারমান বৃদ্ধির পাশাপাশি কার্গো পরিবহণে সব সময় উন্নত সেবা দেয়ার প্রচেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রবাসে যারা আছেন আপনারা বিমানের এ সেবাগুলো গ্রহণ করুন এবং মনির আহমদবাংলাদেশী কমিউনিটিকে যে সকল ব্যবসার দিক প্রদর্শন করেছেন সেটা আপনাদেরই বাঁচিয়ে রাখতে হবে।

ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নাজমুল কাওনাইন বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে প্রবাসীরা ব্রিটেনে সফলতার এক একটি উদাহরণ আমাদের সামনে তুলেধরছেন। ব্যবসা, রাজনীতি, অর্থনীতি, মানবকল্যাণে ব্রিটেনে বাংলাদেশের সন্তানরা তাদের সফলতার মাধ্যমে শুধু নিজেদের যোগ্যতাকে তুলে ধরছেন না, এর মাধ্যমে তারা একটিস্বাধীন দেশের যোগ্য নাগরিকের যথার্থ পরিচয় তুলে ধরছেন। নাজমুল কাওনাইন জেএমজি কার্গোর সফলতা কামনা করে এর পথ চলায় সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

বাংলাদেশ হাই কমিশনের কমার্শিয়াল কন্সুলার মিসেস শরীফা খানম বলেন, জেএমজি কার্গো ব্যবসাকে ব্রিটেনে বাংলাদেশী কমিউনিটির কাছে শুধু জনপ্রিয়ই করেননি, মনিরআহমদ জেএমজির মাধ্যমে কার্গো প্রেরণকে যেমন সহজ করেছেন তেমনি তার ব্যবসাকে একটি হাউজহোল্ড ব্র্যান্ডে পরিণত করেছেন।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর কান্ট্রি ম্যানেজার (ইউকে এন্ড আয়ারল্যান্ড) মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, জেএমজি এয়ারকার্গো ১৬ বছর পথ চলা বাংলাদেশী কমিউনিটিরজন্য একটি বড় অর্জন। আমি আমার দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে যেটা দেখছি সেটা হলো মনির আহমদ ব্যবসাকে সেবা হিসেবে দেখেছেন এবং তিনি তার সামাজিক দায়িত্ব হিসেবেনিয়ে সফলতার এ পর্যায়ে এসেছেন। তিনি বলেন, মনির আহমদের মত বিশ্বস্থতা নিয়ে যারাই এমন ব্যবসায় আসবেন, বিমান তাদের পাশে থাকবে।

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের মেয়র জন বিগস্ বলেন, জেএমজি’র মত জনপ্রিয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান টাওয়ার হেমলেটস বারায় থাকা আমার জন্য গর্বের বিষয়। ব্যবসা ক্ষেত্রেসফলতা এবং সামাজিক দায়িত্ববোধ পালনে জেএমজি’র কর্ণদ্বার মনির আহমদ আজকের নতুন জেনারেশনের জন্য একজন আইকন। মেয়র জন বিগস জেএমজির সার্বিক সফলতাকামনা করেন।

জেএমজির সত্ত্বাধিকারী মনির আহমদ তার বক্তব্যে কার্গো ব্যবসা, জীবনে ঐ ব্যবসার প্রতি তাঁর আগ্রহ এবং ষোল বছরের পথ চলার নানা দিক তুলে ধরে বলেন, ষোল বছর আগেযখন ব্যবসা শুরু করি তখন অনেক কষ্ট করেছি। জীবনের সোনালী সময়ের একটি মূহুর্ত পার করেছি পরীক্ষা এবং ত্যাগ স্বীকার করে। তবে প্রতিটি মূহুর্তে আমি আমার নিজেরউপর আস্তা রেখেছি এবং সততা, বিশ্বস্থতা থেকে সরে যাইনি। বিশ্বাস রেখেছি নিজের উপর এবং কমিউনিটির মানুষের উপর। আল্লাহ আমার লক্ষ্যকে সফল করে দিয়েছেন। মনিরআহমদ বলেন, জেএমজির সকল অর্জন মানুষের ভালবাসার অর্জন।

তিনি কার্গো ব্যবসাকে জনপ্রিয় করতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, বিমানকর্তৃপক্ষ সহযোগিতা না করলে এতোদূর এগিয়ে আসা সম্ভব হতো না। মনির আহমদ বলেন, জেএমজির পথ চলায় আমার প্রতিটি গ্রাহক, এজেন্ট, সাব এজেন্ট সবাই আমারভালবাসা এবং নির্ভরতার প্রতীক। তিনি বলেন, জেএমজিকে এগিয়ে নিতে প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি কর্মকর্তা, কর্মচারী এক একজন প্রহরীর মত কাজ করছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close