আইন আদালত

মুসলিম নারীরা কি তালাক দিতে পারেন

ইসলাম ধর্মে আনুষ্ঠানিক বিবাহ বিচ্ছেদকে তালাক বলা হয়। স্বামী সর্বাবস্থায় তালাক দিতে পারেন। তালাকের বিষয়টি সম্পর্কে অনেক নারীরই স্পট ধারণা নেই। অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন নারীরা তালাক দিতে পারেন কিনা।

দুঃখজনক হলেও সত্য, মুসলিম আইনে স্ত্রীর তালাক দেয়ার কোনো ক্ষমতা নেই, যদি না কাবিননামার ১৮তম কলামে স্ত্রীর তালাক দেয়ার ক্ষমতা দেয়া থাকে।

বিয়ে একটি পারিবারিক বন্ধন। এই বন্ধনের মাধ্যমে সারা জীবন একসঙ্গে চলার পণ করে দুই হাত এক করে নেয়া হয়। দুইজন নারী ও পুরুষের মধ্যে দাম্পত্য সম্পর্ক এবং প্রণয়ের বৈধ আইনি চুক্তি ও তার স্বীকারোক্তি।

জীবনে চূড়ান্ত বিপর্যয় থেকে স্বামী-স্ত্রী উভয়কে রক্ষার জন্য ইসলামে তালাকের সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে যখন চরমভাবে বিরোধ দেখা দেয়, পরস্পর মিলেমিশে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে শান্তিপূর্ণ ও মাধুর্যমণ্ডিত জীবনযাপন যখন একেবারেই অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়, তখই আসে তালাকের প্রশ্ন।

বিয়েতে নারীদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে কাবিননামা। এই কাবিননামায় স্বাক্ষরের আগে বেশ কয়েকটি বিষয় নারীদের খেয়াল রাখা জরুরি। কাবিননামায় দেনমোহর, উসুল, তালাক দেয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিষয় উল্লেখ থাকে।

তবে মুসলিম বিবাহ বিচ্ছেদ আইন ১৯৩৯ অনুযায়ী মুসলিম আইনে বিবাহিত কোনো মহিলা নিচের এক বা একাধিক কারণে বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবেন।

স্বামী নিখোঁজ

কোনো বিবাহিত নারীর স্বামী যদি চার বছর পর্যন্ত নিখোঁজ থাকেন এবং তার কোনো খোঁজ পাওয়া না গেলে স্ত্রী বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবেন।

স্বামীর ভরণপোষণ

কোনো স্ত্রী যদি দুই বছর যাবৎ স্বামী কর্তৃক অবহেলিত এবং স্বামী তার ভরণপোষণ দিতে ব্যর্থ হন, সেক্ষেত্রে ওই স্ত্রী বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবেন।

দ্বিতীয় বিয়ে

কোনো স্বামী যদি দ্বিতীয় বিয়ে করে, তবে মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ ১৯৬১’র বিধান অনুযায়ী স্ত্রী তার স্বামীকে তালাক দিতে পারবেন।

৭ বছর বা তার বেশি মেয়াদের জন্য কারাদণ্ড

কোনো স্বামী যদি ৭ বছর বা তার বেশি মেয়াদের জন্য কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হন, তাহলে স্ত্রী বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবেন।

তিন বছর ধরে বিবাহিত দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ

কোনো স্বামী যদি যুক্তিসঙ্গত কোনো কারণ ছাড়া তিন বছর ধরে বিবাহিত দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হন, তবে ওই স্ত্রী বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবেন।

পুরুষত্বহীনতা

বিয়ে করার সময় স্বামী পুরুষত্বহীন হলে এবং এই অবস্থা অব্যাহত থাকলে এবং দুই বছর ধরে স্বামী অপ্রকৃতস্থ থাকলে বা কুষ্ঠ রোগ বা সংক্রামক যৌন ব্যাধিতে ভুগলে স্ত্রী বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবেন।

বিয়ে প্রত্যাখ্যান

১৮ বছর বয়স হওয়ার আগেই যদি অভিভাবকের মাধ্যমে বিয়ে দেয়া হয় এবং স্বামী-স্ত্রী সহবাস বা বসবাস না করেন, তাহলে ১৯ বছর বয়স হওয়ার আগেই এই বিয়ে প্রত্যাখ্যান করলে স্ত্রী তালাক দিতে পারবেন।

লেখক: আব্দুল্লাহ আবু, হাইকোর্টের সিনিয়র আইনজীবী।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close