AmericaFeaturedযুক্তরাষ্ট্র জুড়ে

জেরুজালেম ইস্যুতে জাতিসংঘে বরাদ্দ কমাচ্ছেন ট্রাম্প

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: পবিত্র ভূমি জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা কেন্দ্র করে এবার জাতিসংঘে আর্থিক বরাদ্দ কমাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

স্থানীয় সময় রোববার রাতে জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন দূত নিকি হ্যালে এ ঘোষণা দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফেনি ডুজেরিক।

জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করায় জাতিসংঘের বেশিরভাগ সদস্য দেশ ট্রাম্পের  সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। এর জেরে পূর্ব হুশিয়ারি অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জাতিসংঘে বরাদ্দ কমাচ্ছে দেশটি।

হ্যালের বরাত দিয়ে সিএনএন জানায়, আগামী অর্থবছরে জাতিসংঘের বাজেটে ২৮ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলার বরাদ্দ কম দেবে যুক্তরাষ্ট্র।

২০১৮-১৯ সালে জাতিসংঘে ৫৫০ কোটি ডলার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। অন্য সদস্য দেশগুলোর তুলনায় সংস্থাটিতে সবচেয়ে বেশি আর্থিক সহায়তা করে থাকে যুক্তরাষ্ট্র।

এ বিষয়ে জাতিসংঘের মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘জাতিসংঘকে মার্কিনিদের উদারতার সুযোগ আর নিতে দেওয়া হবে না।’

গত ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। একই সঙ্গে তিনি তেলআবিব থেকে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস সেখানে স্থানান্তরের ঘোষণা দেন।

কিন্তু ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পর থেকেই মুসলিম বিশ্বে নিন্দার ঝড় ওঠে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও কড়া ভাষায় তার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করছে।

ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস তৃতীয় ইন্তিফাদার ডাক দিয়েছে। ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভে ইসরাইলি সেনারা গুলি চালিয়ে এখন পর্যন্ত ৮ জনকে হত্যা করেছেন। আহত হয়েছেন কয়েকশ ফিলিস্তিনি।

ট্রাম্পের ওই ঘোষণার প্রতিবাদে গত ১২ ডিসেম্বর তুরস্কের রাজধানী ইস্তানবুলে ইসলামিক সহযোগিতা পরিষদের (ওআইসি) জরুরি সম্মেলন থেকে পূর্ব জেরুজালেমকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফিলিস্তিনের রাজধানীর স্বীকৃতি দেয়া হয়।

এর পর গত ২১ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আনা একটি রেজ্যুলেশন ১২৮-৯ ভোটে পাস হয়। জাতিসংঘ ট্রাম্পের সিদ্ধান্তকে ‘অকার্যকর’ উল্লেখ করে মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি প্রতিষ্ঠায় ওই সিদ্ধান্ত বাতিলের আহ্বান জানায়।

উল্লেখ্য, ফিলিস্তিন-ইসরাইলের সংঘাতের মূলে আছে জেরুজালেম নিয়ে বিবাদ। ইসরাইল পুরো জেরুজালেমকে তাদের একক ‘রাজধানী’ বলে বিবেচনা করে। অন্যদিকে ১৯৬৭ সালে আরব যুদ্ধের পর দখল হয়ে যাওয়া পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনিরা তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের রাজধানী করতে চায়।

একই সঙ্গে মুসলিম, ইহুদি ও খ্রিস্টানদের পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত জেরুজালেম। যদিও ইসরাইলি সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেয়নি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়।

তবে ১৯৯৩ সালে মার্কিন উদ্যোগে ফিলিস্তিন-ইসরাইলের মধ্যে শান্তি আলোচনা শুরু হয়। ট্রাম্পের সর্বশেষ ঘোষণার মধ্য দিয়ে যা ভেস্তে গেল।

১৯৬৭ সালের যুদ্ধের পর ইসরাইল পূর্ব জেরুজালেম দখল করে সেখানে অন্তত ২ লাখ ইহুদি বসতি স্থাপন করেছে, যেটি আন্তর্জাতিক আইনে অবৈধ।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close