Featuredস্বদেশ জুড়ে

বেলা দেড়টা বাজলেই বিদ্যালয়ে বাজে ছুটির ঘন্টা

মোঃ মিজানুর রহমান মিজান: আমতলী প্রতিনিধিঃ সরকারী নিয়ম-নিতীর কোন তোয়াক্কা না করে সম্পূর্ন ভাবে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে বরগুনার তালতলী তাঁতিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রাথমিক শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ করা সহ স্কুল ফাঁকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় সময় ঘড়িতে বেলা দেরটা বাজলেই এ বিদ্যালয়ে নিয়োমিত বাজে ছুটির ঘন্টা।

সরেজমিনে, ১৩ জানুয়ারী শনিবার তাঁতিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, বেলা পৌনে দুইটায় সময় বিদ্যালয়ে নেই কোন ছাত্র-ছাত্রী, নেই কোন শিক্ষক-শিক্ষিকা, বিদ্যালয়ের সকল কক্ষে ঝুলছে তালা।

স্থানীয়রা জানান, সকাল থেকে স্কুল খোলা ছিল আনুমানিক বেলা দেরটায় দিকে বন্ধ করা হয়েছে, প্রতিদিন দেরটা বাজলেই এ বিদ্যালয়ে বাজে ছুটির ঘন্টা। অথচ পার্র্র্শবর্তী লাউপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ব্যাপক শিক্ষার্থী উপস্থিতির মধ্য দিয়ে সঠিক নিয়মে চলছে শিক্ষা পাঠদান। এলাকাবাসী আরও জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুবকর ছিদ্দিক প্রায়ই বাড়িতে নিজের সাংসারিক কাজে ব্যাস্থ থাকায় বিদ্যালয়ে দেরিতে আসেন এবং বিদ্যালয় ছুটির সময়ের আগেই ছুটির ঘন্টা বাজিয়ে প্রতিনিয়তো চলে যায়।

বেলা দেরটায় বিদ্যালয় বন্ধ করে চলে যাওয়ার বিষয়ে তাতি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুবকর ছিদ্দিক এর নিকট জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি শনিবার বেয়াই বাড়ি গিয়ে ছিলাম, বিদ্যালয়ে আসতে পারি নাই, ছুটিও নেয়নি, তবে শিক্ষকদের চারটার আগে বিদ্যালয় ছুটি দেওয়া কোন ভাবেই ঠিক হয়নি।

সহকারী শিক্ষক শাহ আলম জানান ৪.৩০ মিনিটের পূর্বে স্কুল থেকে শিক্ষক চলে যাওয়া তাদের প্রতিষ্ঠানের বিষয় আর প্রধান শিক্ষক ঠিক মতো না আসা তাদের কিছুই করার বিষয় নয়। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও নিশানবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ দুলাল ফরাজী এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয় আমি কিছু জানি না।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষাকর্মকর্তা মোঃ এনামুল হক সরকার এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪.৩০মিনিট পর্যন্ত সঠিক সময় ও নিয়ম অনুযায়ী বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলবে। কোন কারন ছাড়াই বিদ্যালয় ছুটি দেওয়া যাবে না ও তার ক্লাস্টারের কর্মকর্তা কাছ থেকে ছুটি নিবে আর যদি ছুটি না নেয় তারহলে তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্তা নেওয়া হবে।

তালতলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবু ছিদ্দিক এ বিষয়ে বলেন ১লা জানুয়ারী বই উৎসবের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে শিক্ষাপাঠদান কার্যক্রম। সঠিক সময়ের পূর্বে বিদ্যালয় বন্ধ করে যাওয়া কোনভাবেই উচিত নয় বলে আমি মনে করি।

ক্লাস্টারের কর্মকর্তা ও সহকারী উপজেলা শিক্ষাকর্মকর্তা কাজী মনিরুজ্জামান রিপন বলেন, আমার কাছ থেকে গত ১৩ জানুয়ারী শনিবার অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুবকর ছিদ্দিক কোন ছুটি নেয়নি।

তিনি আরও বলেন, তাতি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুবকর ছিদ্দিক এর স্কুলে গত অক্টোবর মাসে পরিদর্শন করতে গেলে তাকে তখনও বিদ্যালয়ে পাওয়া যায়নি। তখন বেতন বন্ধ সহ অনেক বার নোঠিশ করা হয়েছে। বিষয়টি আমি যখন জেনেছি আমার উপজেলা শিক্ষাকর্মকর্তা মোঃ এনামুল হক সরকার স্যার কে জানাবো ।

 

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close