Featuredদুনিয়া জুড়ে

পেন্সকে প্রত্যাখ্যান: ইইউকে পাশে চায় ফিলিস্তিন

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ১৯৬৭ সালের সীমান্ত অনুযায়ী ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিতে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস।

সোমবার ইইউ’র পররাষ্ট্র প্রধান ফেডেরিকা মোঘেরিনির সঙ্গে ব্রাসেলসে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এই আহবান জানান তিনি।

আব্বাস বলেন, ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিলে, তা শান্তির পথে কোনো অন্তরায় হবে না। ইসরাইলের সঙ্গে শান্তি প্রতিষ্ঠার একমাত্র উপায় হচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নেতৃত্বে আলোচনা।

তিনি আরও বলেন, তিনি এখনও আশা করেন যে, শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব। ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ইইউ হচ্ছে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের ভিত্তি প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়ায় প্রধান অংশীদারদের একটি।

সংবাদ সম্মেলনে মঘেরিনি ফিলিস্তিনের প্রতি ইইউ’র সমর্থন অব্যাহত থাকার কথা উল্লেখ করেন। তিনি ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়ায় ইইউ’র সহায়তা করার প্রতিশ্রুতি পুনরাবৃত্তি করেন।

পাশাপাশি অন্য দেশে বসবাসরত ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জাতিসংঘের ত্রাণ ও কর্ম সংস্থার ইউএনআরডব্লিউএ মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা প্রদানের কথাও উল্লেখ করেন।

ইইউতে নিযুক্ত ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত আব্দেল রহিম আল-ফারা সোমবার ভয়েস অব প্যালেস্টাইন রেডিওকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার পর সৃষ্ট অবস্থা নিয়ে ইইউ মন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন আব্বাস।

তিনি আরো বলেন, ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ও ইইউ’র মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরের চেষ্টাও করবেন আব্বাস। যুক্তরাষ্ট্র ইউএনআরডব্লিওএ-তে বরাদ্দ কাটছাঁট করায়, শূন্যস্থান পূরণে ইইউকে আহ্বান জানাবেন।

উল্লেখ্য, এই মাসের শুরুতে ইউএনআরডব্লিওএ-তে অর্থ প্রদানের সময় প্রতিশ্রুত অর্থ থেকে ৬ কোটি ৫০ লাখ ডলার কম দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

আব্বাস ব্রাসেলসে এমন সময় সংবাদ সম্মেলন করেছেন, যখন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ইসরাইলে সফররত অবস্থায় আছেন। সম্প্রতি তিনি ইসরাইলের পার্লামেন্ট ‘নেসেট’-এ ভাষণ দিয়েছেন।

সফরের অংশ হিসেবে পেন্সের ফিলিস্তিনেও যাওয়ার কথা ছিল। তবে ফিলিস্তিন পেন্সের সফর প্রত্যাখ্যান করেছে। সোমবার ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু ও পেন্স এক ব্যক্তিগত বৈঠকে একটি যৌথ জেরুজালেমের বিষয়ে আলোচনা করেছেন।

ইসরাইল সফরে ২০১৯ সালের মধ্যে জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরের প্রতিশ্রুতি দেন পেন্স। বর্তমানে ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ফিলিস্তিনের সম্পর্ক খুবই খারাপ।

তা সত্ত্বেও পেন্স অবশ্য আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার নতুন প্রচেষ্টার সূচনা দেখতে পাচ্ছে বিশ্ব।

ডিসেম্বরে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করে বহু বছর ধরে অনুসৃত মার্কিন নীতির ব্যত্যয় ঘটান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এর আগ পর্যন্ত জেরুজালেম নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত শান্তিচুক্তি আলোচনার সময় নেয়ার জন্য বিষয়টি আলাদা করে রাখা ছিল।

ইসরাইল ১৯৬৭ সালের ৬ দিনের যুদ্ধের পর থেকেই পূর্ব জেরুজালেমের দখল নিয়ে নেয়। কিন্তু ফিলিস্তিনিদের প্রত্যাশা শহরটি তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের রাজধানী হবে।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close