Featuredআরববিশ্ব জুড়ে

সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের জনসংযোগের নেপথ্যে

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: সৌদি ক্রাউনপ্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে নিয়ে দেশটি ছাড়াও বিদেশে ব্যাপক জনসংযোগ কর্মসূচি শুরু হয়েছে। রঙ্গিন বিলবোর্ডে ক্রাউনপ্রিন্সের হাসিপূর্ণ ছবি দিয়ে বলা হচ্ছে সৌদি আরবে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আনছেন তিনি।

এ ধরনের প্রচারণা লৌকিকতা মনে হলেও তা বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে কি না এমন প্রশ্ন উঠেছে। এ ধরনের কর্মসূচির পেছনে তহবিল যোগাচ্ছে সৌদি ও আমিরাতি লবি গ্রুপ।

প্রভাবশালী পশ্চিমা দেশগুলোর রাজধানী ও গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোতে বিলবোর্ডে দেখা যাচ্ছে সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের ছবি। মোহাম্মদ বিন মিসর সফর শেষে এখন লন্ডন সফর করছেন।

এরপর যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে। ব্রিটেনে তার সফর বাতিল করতেও একটি গ্রুপ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’কে চিঠি ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের প্রচারণা চালায়। তারই জবাব হিসেবে ক্রাউন প্রিন্সকে নিয়ে প্রচারণা পাল্টা ভূমিকা রাখবে বলে বিশ্লেষকদের অভিমত। আল-আরাবিয়া ইউকে।

ক্রাউন প্রিন্সকে প্রগতিশীল হিসেবে পরিচয় দিয়ে এমন প্রচারণায় খরচ করা হচ্ছে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার। লন্ডন ও ওয়াশিংটনের বিভিন্ন গ্রুপ, চিন্তাশীল সংগঠন, বিশ্ববিদ্যালয়, জনসংযোগ প্রতিষ্ঠানকে কাজে লাগানো হচ্ছে।

একজন সিনিয়র ব্রিটিশ কূটনৈতিক এধরনের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত আছেন যিনি এখনো সরকারি চাকরি করছেন এবং তার প্রতিষ্ঠানকে বিপুল অর্থ দিয়েছে সৌদি আরব।

ব্রিটিশ সরকারের পক্ষেই কি জনসংযোগ প্রতিষ্ঠানটি সৌদি ক্রাউনপ্রিন্সকে নিয়ে প্রচারণার ভেতর দিয়ে দেশটিতে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র বিক্রির সুযোগ সৃষ্টিতে বিপজ্জনক ও বিতর্কিত ভূমিকা রাখছে?

আবার অনেকে বলছেন, অদূর ভবিষ্যতে ক্রাউন প্রিন্স সৌদি আরবের বাদশাহ’র দায়িত্বভার নিতে যাচ্ছেন তার উদ্যোগের একটি অংশ এধরনের প্রচারণা।

পোস্টার, বিলবোর্ড তারই সাক্ষ্য দিচ্ছে যাতে বলা হয়েছে, ক্রাউন প্রিন্স সৌদি আরবে পরিবর্তন আনছেন, সংস্কারক হিসেবে তাকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে ইয়েমেন যুদ্ধে নেতৃত্ব দেওয়ায় ক্রাউন প্রিন্সের সমালোচনা অব্যাহত রেখেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close