Featuredলন্ডন থেকে

লন্ডনে কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন: যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ৫৩ সরকার প্রধান

প্রিন্স চালর্সকে পরবর্তী কমনওয়েলথ প্রধান নিয়োগ দিতে রাণীর আহ্বান

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: লন্ডনে ২৫তম কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলন আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। বৈঠকের উদ্বোধন ঘোষণা করেন  রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ।

স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় বাকিংহ্যাম প্যালেসে শুরু হয় দুদিনব্যাপী এ শীর্ষ সম্মেলন। এতে কমনওয়েলথভুক্ত ৫৩টি দেশের সরকার প্রধানের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও উপস্থিত রয়েছেন।

সম্মেলনের প্রথম দিনে সম্মেলনের উদ্বোধনী দিনে ল্যাংকেস্টার হাউসে কমনওয়েলথ নেতৃবৃন্দ তিনটি কার্যনির্বাহী সেশনে অংশ নেবেন। এবার সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে- অভীন্ন ভবিষ্যতের দিকে (টুয়ার্ডস কমন ফিউটার)।

নিয়ম অনুযায়ী সিএইচওজিএম বৈঠকের আয়োজক দেশই এর সভাপতিত্ব করে। সিএইচওজিএম বৈঠকে আয়োজক দেশের কাছে কমনওয়েলথের সভাপতিত্ব স্থানান্তর করা হবে।

মাল্টার প্রধানমন্ত্রী ড. জোসেপ মাসকাটের কাছ থেকে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী মের কাছে এ সভাপতিত্ব হস্থান্তর করা হবে। ২০২০ সালে পরবর্তী কমনওয়েলথ বৈঠক পর্যন্ত তিনি এ পদে থাকবেন।

উল্লেখ্য, এবারের ২৫ তম কমনওয়েলথ সম্মেলন প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্র ভানুয়াতুতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ২০১৭ সালে। কিন্ত ভানুয়াতু ঘূর্ণিঝড় পাম আক্রান্ত হওয়ায় সম্মেলন লন্ডনে আয়োজনের সিদ্ধান্ত হয়। সাধারণত প্রতি দুই বছর অন্তর এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

প্রিন্স চালর্সকে পরবর্তী কমনওয়েলথ প্রধান নিয়োগ দিতে রাণীর আহ্বান

রানি এলিজাবেথ তার ভাষণে প্রিন্স চার্লসকে পরবর্তী কমনওয়েলথ প্রধান হিসেবে মনোনয়ন দেওয়ার আহ্বান জানান

উদ্বোধনী ভাষণে রানি বলেন, আমি সচেতনভাবে চেয়েছি কমনওয়েলথ একদিন নিজেদের প্রধান হিসেবে প্রিন্স অব ওয়েলসকে বেছে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেবে। চার্লসকে সেসব গুরুত্বপূর্ণ কাজ এগিয়ে নিতে হবে যা আমার বাবা ১৯৪৯ সালে শুরু করেছিলেন

এর আগে যুক্তরাজ্যের বিরোধীদলীয় নেতা জেরেমি করবিন কমনওয়েলথ নেতাদের মধ্য থেকে ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচনের আহ্বান জানান। কিন্তু রানির বক্তব্য পরিষ্কার করে দিয়েছে প্রিন্স চার্লস হতে যাচ্ছেন পরবর্তী কমনওয়েলথ প্রধান

শুরুতেই সকল কমনওয়েলথ নেতাকে বাকিংহাম প্যালেসে স্বাগত জানান প্রিন্স চার্লস। ভাষণে তিনি যুক্তরাজ্যের সঙ্গে অন্যান্য কমনওয়েলথ দেশগুলোর সম্পর্কোন্নয়নে আরো জোর দেন। কমনওয়েলথ সরকারপ্রধানদের এই সম্মেলনকে যুক্তরাজ্য শুরু থেকেই গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছেÑ এই সম্মেলনকে ব্রেক্সিটের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার মিশন হিসেবে দেখছে যুক্তরাজ্য

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে এবং কমনওয়েলথের মহাসচিব প্যাট্রেসিয়া স্কটল্যান্ড নিজ নিজ ভাষণে কমনওয়েলথ দেশগুলোর পারষ্পরিক সর্ম্পোকন্নয়নের ব্যাপারে জোর দিয়েছেন। স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ দেয়ার কথা। এবার কমনওয়েলথ সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হচ্ছেসাধারণ ভবিষ্যতের দিকে’ (টুয়ার্ডস কমন ফিউচার)

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close