Featuredইউরোপ জুড়ে

মে দিবসে প্যারিস ও তুরস্কে দাঙ্গা: সহিংস পরিস্থিতিতে আটক ২০০

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ: মে দিবসের শোভাযাত্রাকে কেন্দ্র করে সহিংসতা হয়েছে ফ্রান্স ও তুরস্কে।

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে মে দিবসের শোভাযাত্রায় হঠাৎ সহিংসতার রূপ নেয়। এ সময় সহিংসতাকারীরা রাস্তায় পাশে থাকা গাড়ি ও দোকানে আগুন ধরিয়ে দেয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস, টিয়ারসেল, স্প্রে ও জলকামান ব্যবহার করে। এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে প্রায় ২শ’ সহিংসতাকারীকে আটক করেছে পুলিশ।

অন্যদিকে তুরস্কে আটক করা হয়েছে ৮৪ জনকে। বিক্ষোভ হয়েছে ফিলিপাইনেও। সেখানে প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তের বাড়ির পাশেই তার কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়েছে।

বুধবার বিষয়টি জানিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বলা হয়, প্রায় ২০ থেকে ৫৫ হাজার মানুষের শান্তিপূর্ণ শোভাযাত্রাটি হঠাৎ সহিংসতায় রূপ নেয়। সে সময় তারা বিভিন্ন দোকান ও বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুট করে বলে খবরে বলা হয়।

ফরাসি পুলিশের বরাত দিয়ে সহিংসতায় একজন পুলিশসহ চারজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। সহিংসতায় অংশ নেওয়াদের প্রায় সবাই কালো জ্যাকেট, কাঁদানে গ্যাস নিরোধক মুখোশ ও মাথায় হুডি পরা ছিল বলে খবরে বলা হয়।

অনলাইন বিবিসি বলেছে, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন সরকারি কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের মর্যাদা পুনর্গঠনের যে নীতি নিয়েছেন তার বিরোধিতা করে ১লা মে মহান মে দিবসে রাজপথে বিক্ষোভ মিছিল করে বামপন্থি সংগঠন ব্লাক বক্স।

এক পর্যায়ে সহিংসতা সৃষ্টি হয়। রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা গাড়ি ও অন্যান্য স্থাপনায় আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। তখনই একশনে যায় পুলিশ। প্যারিস জেগে ওঠো, পুলিশকে সবাই ঘৃণা করে স্লোগান দিতে থাকে তারা। এ সময় ব্লাক বক্সের সদস্যরা সবাই ছিল কালো জ্যাকেট পরা।

এ বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারীদের বিষয়ে বিভিন্ন প্রতিবেদনে বিভিন্ন রকম তথ্য এসেছে। বার্তা সংস্থা এএফপি লিখেছে, বিক্ষোভটি ছিল শান্তিপূর্ণ। এতে অংশ নিয়েছিলেন ২০ থেকে ৫৫ হাজার বিক্ষোভকারী। হঠাৎ করেই এ বিক্ষোভ সহিংসতায় রূপ নেয়।

এজন্য হয়তো বিক্ষোভকারীরা প্রস্তুত ছিলেন আগে থেকেই। তারা এ সময় গ্যাসনিরোধক মুখোশ ও মাথায় হুডি পরা ছিলেন। এমন মানুষের সংখ্যা প্রায় ১ হাজার ২০০।  এ সব মানুষই এক পর্যায়ে বিভিন্ন দোকান ও বাড়িতে হামলা চালায়। লুটপাত করে।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close