Featuredযুক্তরাষ্ট্র জুড়ে

ইউরোপের গাড়ি আমদানিতে কর বাড়ানোর হুমকি ট্রাম্পের

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে গাড়ি আমদানির ওপর ২০ শতাংশ হারে কর আরোপের মাধ্যমে ইউরোপের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধ আরও জোরালো করার হুমকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ইউরোপ থেকে গাড়ি আমদানিতে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার কোনও হুমকি আছে কিনা তা যাচাইয়ের জন্য প্রায় এক মাস আগে তদন্তও শুরু করেছিল ট্রাম্প প্রশাসন।

এরই মধ্যে ইউনিয়নের পক্ষ থেকে মার্কিন পণ্যে নতুন কর কার্যকর ঘোষণা করার পর ট্রাম্প এমন হুমকি দিলেন ট্রাম্প। ব্রিটিশ সংবাদ সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

গত মার্চে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনথেকে ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপরযথাক্রমে ২৫ শতাংশ ও ১০ শতাংশ শুল্ক আরোপের ঘোষণা দেওয়া হয়। সেসময় ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে’ তিনি ওই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। শুল্ক আরোপের সিদ্ধান্তটি কার্যকর হয় ১ জুন।

এতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডা, মেক্সিকো ও যুক্তরাষ্ট্রের অন্য ঘনিষ্ঠ মিত্রদের বাণিজ্যের ওপর প্রভাব পড়ে। এর জের ধরে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে মার্কিন পণ্যে পাল্টা শুল্ক আরোপ করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ২৮০ কোটি ইউরো মূল্যের মার্কিন পণ্যে আমদানি শুল্ক আরোপের সিদ্ধান্তটি শুক্রবার (২২ জুন) থেকে কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

শুক্রবার এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, যদি এসব কর ও প্রতিবন্ধকতা দ্রুত তা প্রত্যাহার করা হয় তাহলে আমরা যুক্তরাষ্ট্রে আমদানি করা ও এখানেই তৈরি করা তাদের গাড়ির ওপর ২০ শতাংশ হারে কর আরোপ করবো।

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যাত্রীবাহী গাড়ি আমদানির ক্ষেত্রে ২.৫ শতাংশ হারে কর নেয়। আর আমদানিকৃত মালবাহী ট্রাকের ওপর ২৫ শতাংশ হারে কর নেওয়া হয়। আর যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানিকৃত গাড়ির ওপর ১০ শতাংশ হারে কর নেয় ইইউ।

যুক্তরাষ্ট্রের কারখানায় জার্মানির গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভোকসওয়াগান এজি, ডাইমলার এজি ও বিএমডব্লিউ এজি তাদের গাড়ি উৎপাদন করে। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে জার্মান নির্মাতারা যে পরিমাণ গাড়ি রফতানি করে তার চেয়ে বেশি তৈরি করে থাকে।

ট্রাম্পের এই টুইটের পর ইউরোপীয় গাড়ি কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতন শুরু হয়েছে। একদিনে তা এক দশমিক ২৫ শতাংশ কমে গেছে। মার্কিন গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফোর্ড মোটর কোম্পানি ও জেনারেল মোটর কোম্পানির শেয়ারের দাম তাৎক্ষণিকভাবে কমলেও তা আবারও বেড়ে গেছে।

অটোমোবাইল ও গাড়ির যন্ত্রাংশ আমদানিতে জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। আগামী জুলাই মাসে এই তদন্তের ফল জানানো হবে বলেও দুই মাস আগে জানানো হয়েছে। দেশটির বাণিজ্যমন্ত্রী উইলবার রোস বৃহস্পতিবার বলেন, মন্ত্রণালয় আগামী জুলাই মাসের শেষ দিকে অথবা আগস্ট মাসে তদন্ত শেষ করার লক্ষ্যে কাজ করছে।

গাড়ি আমদানিতে কর আরোপের ফলে ট্রাম্পের শুরু করা বাণিজ্য যুদ্ধ নতুন মাত্রা পাবে। অভ্যন্তরীণ শিল্পকে রক্ষা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যের কথা বলে ট্রাম্প এই যুদ্ধ শুরু করেন।

দুনিয়ার বৃহত্তম স্টিল বা ইস্পাত আমদানিকারক দেশ যুক্তরাষ্ট্র। ২০১৭ সালে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টন ইস্পাত আমদনি করে দেশটি। তবে এ বছরের গোড়ার দিকে টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে যুক্তরাষ্ট্রে ইস্পাত আমদানির ওপর ২৫ শতাংশ ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর ১০ শতাংশ কর আরোপের পরিকল্পনার কথা জানান ট্রাম্প। তখনই এর কঠোর সমালোচনা করে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র দেশগুলো।

ট্রাম্পের এই ঘোষণার ব্যাপারে জার্মান গাড়ি নির্মাতাদের পক্ষ থেকে কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ইউরোপের গাড়ি নির্মাণ প্রতিষ্ঠানগুলোর জোটের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কর আরোপের মাধ্যমে দাম বাড়ানো হলে ভোক্তাদের পছন্দকে সীমাবদ্ধ করে দেবে আর আমাদের বাণিজ্যিক অংশীদারদের প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানানো হবে। তারা গাড়ি আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রে কর মওকুফকে সমর্থন জানিয়ে বাণিজ্যকে সহায়তার করার আহ্বান জানান।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close