Featuredসিলেট থেকে

সিসিক নির্বাচনী হালচাল: নির্বাচন নিয়ে আমেজে সিলেট (পর্ব-৪)

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে জোটের রাজনীতিতে ভোটের হিসেবে কেউ কারো থেকে পিছিয়ে নেই।

মহাজোটের একক প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী কিছুটা সস্তিতে থাকলেও ২০ দলীয় জোটের শরিক দল জামায়াত নেতার প্রার্থীতা এবং বিদ্রোহী প্রার্থীর কারণে ভোটের নানা সমীকরণ নিয়ে ভাবছেন বিএনপি প্রার্থী।

পাড়া-মহল্লাগুলোর চায়ের দোকান থেকে বাসাবাড়ির ড্রয়িংরুম- সবখানেই স্থানীয় নির্বাচন নিয়ে চলছে আলোচনা।

দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় দেশীয় রাজনীতির বড় দুই জোটের প্রভাব পড়ছে সরাসরি। প্রচারণায় শুরু আগেই ছড়াচ্ছে নির্বাচনী উত্তাপ। স্থানীয় কাউন্সিলার নির্বাচনেও এর প্রভাব পড়েছে। নির্বাচন নিয়ে তিন ওয়ার্ড মিলে ধারাবাহিক প্রতিবেদনে আজ তোলে ধরা হলো সিলেট সিটি করপোরেশনের আওতাভুক্ত ১০নং ওয়ার্ড, ১১নং ওয়ার্ড ও ১২নং ওয়ার্ডের নির্বাচনী কার্যকলাপ।

১০নং ওয়ার্ড: সিলেটের সুরমা নদী এক নামেই যার পরিচয়। কালের ঐতিহাসিক এই সুরমা নদীর অবস্থান সিলেট সিটি কপোরেশন এর নির্বাচনী এলাকার পাশ দিয়ে বয়ে চলা।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, শাহজালার (র:) সিলেট শহরের আগমনের উদ্দেশ্য এই সুরমা নদী পার হয়েছিলেন পানির ওপর নিজের জায়নামাজ দিয়ে। তার পদভারে এই এলাকার আশ-পাশ জুড়ে পরিচিতি পায় আলাদা একটা ঐতিহাসিক ও পবিত্র স্থান হিসেবে।

আর এই সুরমার তীর থেকে উঠে আসা শীতল হাওয়ায়ও মিশেছে নির্বাচনী উত্তাপে। আসন্ন সিটি নির্বাচনকে সামনে রেখে কাউন্সিলর প্রার্থীরাও এই উত্তাপ ছড়িয়ে দিয়েছেন।

৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১০ নম্বর ওয়ার্ড থেকে এবার কাউন্সিলর পদে লড়ছেন বেশ কয়েকজন প্রার্থী। সিলেট নগরীর উত্তরে এমনই একটি ওয়ার্ড হচ্ছে ১০ নম্বর ওয়ার্ড। শামীমাবাদ আবাসিক এলাকা, শেখঘাট-কলাপাড়া, ওয়াপদা কলোনি ও নবাব রোডের একাংশ, ডহর, হিয়াবরণ, ঘাসিটুলা, মজুমদারপাড়া ও কানিশাইল এলাকা নিয়ে এ ওয়ার্ড গঠিত।

১০ নং ওয়ার্ডে প্রার্থী তালিকায় এখন পর্যন্ত যাদের নাম আলোচিত হচ্ছে-বর্তমান কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদ চৌধুরী, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজের দুই স্বজন- ছোট ভাই লন্ডন প্রবাসী সংস্কৃতিকর্মী মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম শফি ও সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রশাসন ও জনসংযোগ পরিচালক এবং সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. তারেক উদ্দিন তাজ।

এছাড়া অন্যান্য প্রার্থীদের মধ্যে- মোস্তফা কামাল, সেলিম আহমদ মাহমুদ ও নজির আহমদ আকাশের নামও আছে আলোচনার টেবিলে। তবে মুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে মুলত; সালেহ আহমদ চৌধুরী, তারেক উদ্দিন তাজ, মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম শফি ও মোস্তফা কামাল এই চারজনের মধ্যে।

নির্বাচন কমিশনের সর্বশেষ হালনাগাদকৃত তালিকানুযায়ী এই ওয়ার্ডের মোট ভোটার ১৫ হাজার ৪৫২ জন। তারমধ্যে- পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৭৪৬ জন। মহিলা ভোটার ৭ হাজার ৭০৬ জন। আগের নির্বাচনে এই ওয়ার্ডের মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ১৪ হাজার ২৫৭ জন।

১১নং ওয়ার্ড: নগরীর ব্যস্ততম এই ওয়ার্ডে নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে আরো আগে থেকেই। প্রার্থীরা পুরোদমেই প্রচারণা-শুভেচ্ছা বিনিময়সহ অনেক আার্থিক সাহায্য-সহযোগিতা শুরু করে দিয়েছেন। এ ওয়ার্ডে নির্বাচনী আবহ অন্য ওয়ার্ডগুলো থেকে একটু বেশিই দেখা গেছে।

সিলেট নগরীর লালাদিঘীর পার, মধুশহীদ, নোয়াপাড়া, কাজলশাহ, ভাতালিয়া, বিলপার, লামাবাজার ও সচিলাপুর এই ৮টি এলাকা নিয়ে ১১ নং ওয়ার্ড গঠিত। এই ওয়ার্ডে বর্তমানে নির্বাচনী লড়াইয়ে নেমেছেন ডজন খানেক প্রার্থী। সবাই যার যার প্রতিভা-গুনাগুন তুলে ধরতে ব্যস্থ সময় পার করছেন।

তবে প্রার্থীদের মধ্যে আলোচনায় আছেন- বর্তমান কাউন্সিলর রকিবুল ইসলাম ঝলক, সাবেক কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব বাবলু, এক সময়ের মেয়র প্রার্থী ও সিলেট মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি সহ লড়াইয়ে থাকা অন্য প্রার্থীরা হলেন- মৃণাল কান্তি দাস, বদরুল ইসলাম বদরু, শামীম আহমদ, আবুল ফয়েজ, হেলাল আহমদ, শাহিদ খান শাহেদ, মো. আশরাফ উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা মো. মতছির আলী, মির্জা এমএস হোসেন ও সহিদুর রহমান সাহেদ।

জানা যায়, আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি মেয়র পদে দাড়িয়েছেন এবারও। ইতিমধ্যে মনোনয়নপত্র দাখিল করে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। তবে দলের মনোনয়ন না পেলে তিনি মেয়রপদে সতন্ত্র লড়বেন না। সেক্ষেত্রে তিনি আবারোও কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করবেন।

কাউন্সিলার পদে পংকি দাড়ালেও এবারের নির্বাচনে মূলত: হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বাবলু ও ঝলকের মধ্যে। গেলো সিটি নির্বাচনে এই ওয়ার্ডে রকিবুল ইসলাম ঝলক পরাজিত করেন সে সময়কার আলোচিত কাউন্সিলর আব্দুর রকিব বাবলুকে। ঐ নির্বাচনে এই ওয়ার্ডে বাবলু ও ঝলকের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছিল।

নাম প্রকাশ না করে স্থানীয় এক বাসিন্দা এই শীর্ষবিন্দুকে জানান, এবারের নির্বাচনে পংকি তেমন ভোট পাবেন না। কারণ তিনি এত জনপ্রিয় নন যে জনপ্রতিনিধি হিসেবে তিনি এলাকার মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে পারবেন। যে মানুষ নিজ এলাকায় স্থানীয় কাউন্সিলার হিসেবে নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করতে পারেন নি সেই ব্যাক্তি কিভাবে আশা করেন তিনি মেয়র নির্বাচিত হবেন। এমন প্রশ্ন এলাকার জন সাধারনের।

স্থানীয় সাধারণের সাথে আলাপকালে জানা যায়, নির্বাচনী মাঠ গরম করে রেখেছেন- বাবলু, ঝলক ও মতছির। এই তিন প্রার্থীদের নিয়েই এবারের নির্বাচনী মাঠে ওয়ার্ডের সবত্রই চলছে তুমুল তর্ক-বিতর্ক, আলোচনা- সমালোচনা। তবে প্রার্থীদের মধ্যে প্রচার প্রচারণার দিকে কেউ কারোর চেয়ে পিছিয়ে নেই।

নির্বাচন কমিশনের সর্বশেষ হালনাগাদকৃত তালিকানুযায়ী এই ওয়ার্ডের মোট ভোটার ছিল ১১ হাজার ৬২৫ জন। তবে এবার তা বেড়ে দাড়িয়েছে. ১২ হাজার ৫৯৯ জন।

তারমধ্যে গত নির্বাচনে মোট ভোটারের মধ্যে- মহিলা ভোটার ৫ হাজার ৫৪০ জন আর পুরুষ ভোটার ৬ হাজার ৮৫ জন ছিলেন। বর্তমানে তা বেড়ে দাড়িয়েছে- পুরুষ ভোটার ৬ হাজার ৫৪৩ জন। মহিলা ভোটার ৬ হাজার ৫৬ জন।

১২নং ওয়ার্ড: সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনী এলাকা ১২নং ওয়ার্ডে শেখঘাটের রয়েছে আলাদা একটা ঐতিহ্য। বীর সাধক পুরুষ হযরত শাহজালাল (রহ.) সিলেটে প্রথম পা রেখেছিলেন এখানেই। তাই এই এলাকার নাম শাহজালালের প্রথম পরশে দিয়েছে আলাদা পরিচয়।

শেখঘাট ছাড়াও সিলেটের সবচেয়ে বড় ব্রিজ কাজিরবাজার সেতুও ছুঁয়ে ইটাখলা, কুয়ারপাড় ভাঙ্গাটিকর এলাকা নিয়ে গঠিত ১২ নম্বর ওয়ার্ড। বর্তমান নির্বাচনে ১২নং ওয়ার্ডে নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটি বড় ফ্যাক্টর হচ্ছে গোষ্ঠীকেন্দ্রিক ভোটব্যাংক।

বর্তমান কাউন্সিলর মো. সিকন্দর আলী এবারের নির্বাচনে শক্ত প্রার্থী। তবে নির্বাচনকে সামনে রেখে আরো বেশ কিছু প্রার্থী গরম করে রেখেছেন নির্বাচনের মাঠ। এদের মধ্যে রয়েছেন- মো. আব্দুল কাদির, মো. ফখর উদ্দিন, রুবেল আহমদ ও মো. আজহার উদ্দিন জাহাঙ্গীর।

নির্বাচন কমিশনের সর্বশেষ হালনাগাদকৃত তালিকানুযায়ী ১২ নং ওয়ার্ডে মধ্যে মোট নারী ভোটার ছিলেন-৪ হাজার ২৮০ জন, পুরুষ ভোটার ৪ হাজার ৮৫৫ জন। তবে বর্তমানে তা বেড়ে দাড়িয়েছে- পুরুষ ভোটার ৫ হাজার ২০৯ জন। মহিলা ভোটার ৪ হাজার ৬৬৫ জন।

বর্তমান মোট ভোটার সংখ্যা ৯ হাজার ৮৭৪ জন। যা আগের ভোটার সংখ্যা ছিল ৮ হাজার ২৮৬ জন।

নোট: সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে শীর্ষবিন্দু নিউজে ‘সিসিক নির্বাচনী হালচাল‘ প্রকাশিত হবে ধারাবহিকভাবে। এতে যে কোন কেউ কোন তথ্য বা খবর দিয়ে শীর্ষবিন্দুকে সহায়তা করতে আহবান জানানো যাচ্ছে। ইমেইল: news@shirshobindu.com

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close