Featuredযুক্তরাজ্য জুড়ে

বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক: বরিস জনসনের সঙ্গে স্ত্রীর বিচ্ছেদ

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: প্রায় ২৫ বছরের দাম্পত্য জীবনের অবসান ঘটাতে যাচ্ছেন বৃটিশ প্রভাবশালী রক্ষণশীল রাজনীতিক বরিস জনসন। তিনি ও তার স্ত্রী ম্যারিনা হুইলার এক যৌথ বিবৃতিতে এই ঘোষণা দিয়েছেন।

তাদের বিচ্ছেদের ঘোষণার ঘণ্টা কয়েক আগেই দ্য সান পত্রিকায় প্রকাশিত হয় যে, এই দম্পত্তি আলাদা থাকছেন। পত্রিকাটি আরও জানায়, হুইলার অভিযোগ করেছেন, জনসন বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়েছেন।

এ কারণেই তিনি সব কিছুর অবসান চান। তবে যৌথ বিবৃতিতে তারা দাবি করছেন, বেশ কয়েক মাস আগেই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নেন তারা। তবে এখনও তারা একে অপরের বন্ধু।

পারিবারিক বন্ধুরাও বলছেন, অনেকদিন ধরেই এই বিচ্ছেদের পরিকল্পনা ছিল এই দম্পতির। অপেক্ষা ছিল আদালতে দাখিল করা কাগজপত্র প্রকাশ্যে আসার।

বৃটিশ কনজারভেটিভ দলের অন্যতম শীর্ষ নেতা বরিস জনসন। ব্রেক্সিট গণভোটের পর প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন পদত্যাগের পর জনসনের প্রধানমন্ত্রীত্ব অনেকটাই নিশ্চিত ছিল।

তবে শেষ মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী হন তেরেসা মে। এরপরও মের মন্ত্রীসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী হন জনসন। অবশ্য ব্রেক্সিট নিয়ে মতবিরোধের জেরে একমাস আগে পদত্যাগ করেন তিনি।

তা সত্ত্বেও এখনও তিনি দলীয় নেতার পদে তেরেসা মের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী। কিন্তু এই বিচ্ছেদের খবরে দৃশ্যত তিনি রাজনৈতিকভাবে অতটা ক্ষতিগ্রস্ত হননি।

এর একটি কারণ হতে পারে তার স্ত্রী প্রকাশ্যে তার বিরুদ্ধে বা তার চরিত্র নিয়ে কিছু বলেননি। কিন্তু জনসনের একাধিক বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক থাকার বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে অতীতে এসেছে।

তিনি লন্ডনের মেয়র থাকাকালে গোপনে এক সন্তানের জনক হয়েছিলেন বলেও খবর বের হয়। এরপর স্ত্রীর সঙ্গে তার সাময়িক সেপারেশনও হয়।

বরিস জনসন ১৯৮৭ সালে অ্যালেগ্রা মস্টিন ওয়েনকে বিয়ে করেন। পরবর্তীতে ১৯৯৩ সালে বিয়ে করেন হুইলারকে। মাঝে তার সঙ্গে ৪ বছরের সম্পর্ক ছিল লেখিকা পেট্রোনেলা ওয়াটের। এ নিয়ে তখনকার দলীয় নেতা মাইকেল হাওয়ার্ড তাকে ছায়া আর্টস মন্ত্রী থেকে পদত্যাগ করতে বলেন।

এছাড়া ২০০৫ সালে সাংবাদিক অ্যানা ফাজাকারলে ও ২০০৯ সালে আর্ট কনসালটেন্ট হেলেন ম্যাসিনটায়ারের সঙ্গেও তার সম্পর্ক ছিল বলে খবর প্রকাশিত হয়।

তার সদ্য-সাবেক স্ত্রী হুইলার পড়াশুনা করেছেন ক্যাম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি একজন জ্যেষ্ঠ মানবাধিকার আইনজীবী।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close