Featuredআরববিশ্ব জুড়ে

সৌদি আরব-কুয়েতে প্রবল বন্যা

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: সৌদি আরবে আকস্মিক বন্যায় অন্তত ৩০ জনের মৃত্যু ঘটেছে বলে নিশ্চিত করেছে দেশটির সরকার।

শনিবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত গত ৭ দিনে সৌদির বিভিন্ন স্থানে এ প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে মক্কাতেই ১০ জন। এদিকে টানা এক সপ্তাহ ধরে চলা ভয়াবহ বন্যায় অচল হয়ে পড়েছে মধ্যপ্রাচ্যের আরেক দেশ কুয়েত।

ভারি বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় ইতিমধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় রাজধানী কুয়েত সিটির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সরকারি মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রমও বন্ধ রয়েছে।

শুক্রবার সৌদি সিভিল ডিফেন্সের এক বিবৃতিতে বলা হয়, বন্যায় ভেসে এবং বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে দেশটিতে এ পর্যন্ত ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। কর্মকর্তারা আরও জানান, বন্যাকবলিত এলাকা থেকে ৩ হাজার ৮৬৫ জনকে অন্যত্র সরিয়ে দেয়া হয়।

২০০১ জনকে দেয়া হয় অস্থায়ী আশ্রয়। উদ্ধার করা হয়েছে ১ হাজার ৪৮০ জনকে। বেশির ভাগই উদ্ধার হয়েছে রাজধানী রিয়াদ থেকে।

বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে না যাওয়ার জন্য ও প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সৌদি নাগরিকদের আহ্বান জানিয়েছে দেশটির সিভিল ডিফেন্স। একই দিন কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বন্যা পরিস্থিতির

অবনতি হওয়ায় রাজধানী কুয়েত সিটির অনেক সড়ক বন্ধ হয়ে গেছে। ভারি বর্ষণের কারণে সবচেয়ে বড় সমুদ্রবন্দরের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কুয়েত পেট্রোলিয়ামের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, খারাপ আবহাওয়ার কারণে দেশের অভ্যন্তরে ও বাইরে বেশ কিছু ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। কিছু কিছু ফ্লাইটের নতুন শিডিউল দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার বন্যাজনিত সংকট মোকাবেলায় ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে পাবলিক ওয়ার্কসমন্ত্রী হুমাস আল রৌমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন। গড়ে ২৪ ঘণ্টায় ৩০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হচ্ছে। শুষ্ক জলবায়ুর দেশ হওয়ার কারণে কুয়েতের ভারি বৃষ্টিপাত মোকাবেলার মতো প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নেই।

অপ্রত্যাশিত আবহাওয়ার কারণে তাই ভেঙে পড়েছে প্রশাসনিক কার্যক্রম। অনেক মন্ত্রণালয়ে গত সপ্তাহ থেকেই কার্যক্রম বন্ধ আছে।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close