Featuredপাক সীমানা জুড়ে

নিজেকে ট্রাম্পের মেয়ে দাবি পাকিস্তানি নারীর

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দুই মেয়ের কথাই জানে বিশ্ববাসী। এর একজন ইভাঙ্কা ট্রাম্প এবং অপরজন টিফানি ট্রাম্প। কিন্তু এবার পাকিস্তানের লাহোরের বাসিন্দা আম্মারা মাজহার নামের এক নারী দাবি করেছেন, তিনিও নাকি ট্রাম্পের মেয়ে।

পাকিস্তানের গণমাধ্যমগুলোতে বলা হয়েছে মাজহারের দাবি তিনি যুক্তরাষ্ট্রেই জন্মেছেন। সেখান থেকে ছোটবেলাতেই তাকে অপহরণ করে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপর থেকে লাহোরে আছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রে ফিরতে লাহোর হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন আম্মারা মাজহার। সুবিচার পেতে সুপ্রিম কোর্টেও যাওয়ার চেষ্টা নিয়েছেন তিনি।

মাজহার বলেন, বাবা মায়ের সন্ধানে তিনি বিশ্বব্যাপী পায়ে হেঁটে ঘুরেছেন। এ সময় তিনি এক ধর্মীয় পণ্ডিত ও এক শিক্ষকের অভিভাবকত্বে ছিলেন। গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের মাজহার জানান, তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহল করেছেন এবং এখন একজন মুসলিম হিসাবেই জীবনযাপন করছেন।

তিনি তার বাবার কাছে তাকে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করেছিলেন বলে জানান মাজহার। কিন্তু বলেন, তার বাবা তাকে বলেছেন,“তিনি সব অর্থ পাকিস্তানি রাজনীতিবিদদের দিয়ে দেওয়ার কারণে মেয়েকে নিয়ে যাওয়ার সামর্থ্য নেই।”

কয়েকটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের প্রথম স্ত্রী ইভানা ট্রাম্পের গর্ভে জন্ম নেয়া মেয়ে বলে নিজেকে দাবি করেছেন মাজহার। তার উদাসীনতার কারণেই নাকি অপহরণকারীরা তাকে অপহরণ করতে সক্ষম হয় বলে অভিযোগ মাজহারের।

অনেকেই মনে করছেন, যুক্তরাষ্ট্রের একটি পাসপোর্ট পাওয়ার অভিপ্রায়ে এমন আজগুবি গল্প ফেঁদেছেন মাজহার। তবে পাকিস্তানের এক চিকিৎসক মাজহারের দাবি নাকচ করে বলেনন, “মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় ভুল বকছেন ওই নারী।”

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close