Featuredআরববিশ্ব জুড়ে

স্বামী-সন্তানসহ নেদারল্যান্ডস যাচ্ছেন শামিমা: ইয়াগো‘র সাথে যেমন করে বিয়ে হয়েছিল

শীর্ষবিন্দু আন্তজাতিক নিউজ ডেস্ক: আইএস ব্রাইড বলে পরিচিত শামিমা বেগমকে নিয়ে নিজের দেশ হল্যান্ডে যেতে চান তার ডাচ্‌ স্বামী ইয়গো রিডিজক। শামিমা ও তার নবজাতক জেরাহর নাগরিকত্ব নিয়ে বৃটেন সহ বাংলাদেশে যখন চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে তখন মুখ খুললেন রিডিজক।

শামিমার বৃটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভেদ। ইঙ্গিত করা হয়েছে, দ্বৈত নাগরিকত্বের অধীনে শামিমাকে বাংলাদেশে আশ্রয় চাইতে বলা হবে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ পরিষ্কার করে জানিয়ে দিয়েছে, শামিমাকে আশ্রয় দেয়ার প্রশ্নই আসে না।

জিহাদের জন্য চার বছর আগে দুই সঙ্গীসহ আইএসে যোগ দিতে লন্ডন থেকে সিরিয়ায় পাড়ি দেয়া শামিমা বেগমকে নিয়ে নেদারল্যান্ডসে ফিরে যেতে চান তার স্বামী ইয়াগো রিদাইক। ২০১৫ সালে শামিমা সিরিয়ায় আইএসের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় যাওয়ার কিছুদিনের মধ্যে তাদের বিয়ে হয়। তখন শামিমার বয়স ছিল মাত্র ১৫ বছর।

বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ইয়াগো এসব কথা জানান। কয়েকদিন আগে শামিমাও নিজ দেশে ফেরার জন্য আকুতি জানিয়েছিলেন।

রিডিজক বিবিসির কাছে আইএসে যোগ দিয়ে যুদ্ধ করার কথা স্বীকার করেছেন। তবে বলেছেন, তিনি এখন তার স্ত্রী শামিমা ও নবজাতক সন্তানকে নিয়ে দেশে ফিরতে চান। বর্তমানে তিনি সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে কুর্দি নিয়ন্ত্রিত একটি বন্দিশিবিরে আটক আছেন। তিনি যদি নেদারল্যান্ডে ফিরে যান তাহলে সেখানকার আইন অনুযায়ী সন্ত্রাসী সংগঠনে যোগ দেয়ার কারণে তার ৬ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। বিবিসির মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক প্রতিনিধি কুইন্টিন সমারভিলে তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন।

এতে রিডিজক বলেছেন, তিনি আইএসকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। ওই গ্রুপ থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেছেন। তার দাবি, রাকায় তাকে আটক রাখা হয়েছিল। তিনি একজন ডাচ গোয়েন্দা এমনটা ভেবে কট্টরপন্থিরা তার ওপর নির্যাতন করেছে বলেও জানান তিনি। শামিমা বেগমের বয়স এখন ১৯ বছর। সিরিয়ার বাঘোজ শহরে আইএসের পতন হলে সেখান থেকে রিডিজককে সঙ্গে নিয়ে তিনি পালিয়ে যান। একপর্যায়ে সিরিয়ান যোদ্ধাদের একটি গ্রুপের কাছে আত্মসমর্পণ করেন রিডিজক। আর শামিমা আশ্রয় নেন আল হাওল শরণার্থী শিবিরে। সেখানে ৩৯ হাজার মানুষের মাঝে আশ্রয় শিবিরে জন্ম হয় তার সন্তান জেরাহর। সেখান থেকে ছেলেকে নিয়ে শামিমা পালিয়েছেন বলে খবর দিয়েছে বৃটিশ মিডিয়া।

শামিমাকে যখন রিডিজক বিয়ে করেন তখন শামিমার বয়স ১৫ বছর। রিডিজকের বয়স ২৩ বছর। ওই বয়সে শামিমাকে বিয়ে করে কোনো ভুল করেননি বলে দাবি রিডিজকের। তিনি বলেছেন, বিয়ের বিষয়টি ছিল শামিমার পছন্দ। রাকায় নারীদের আশ্রয় কেন্দ্রে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন পূর্ব লন্ডনের স্কুলপড়ুয়া শামিমা।

তার সঙ্গে কিভাবে সাক্ষাৎ হয়েছিল সে বিষয়ে রিডিজক বলেছেন, প্রথমে তিনি শামিমার প্রতি আগ্রহী ছিলেন না। কারণ, শামিমা তখনও অনেক কম বয়সী। রিডিজকের ভাষায়, সততার সঙ্গে বলছি, যখন আমার এক বন্ধু এসে আমাকে বললো যে, একটি মেয়ে এসেছে। সে বিয়ে করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। কিন্তু আমি আগ্রহ দেখাইনি তার বয়সের কারণে।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত যে করেই হোক আমি মেনে নিলাম। শামিমাকে তখন সুস্থ মানসিকতার মেয়ে বলে মনে হয়েছিল। বিয়ের বিষয়টি তার একান্তই নিজস্ব পছন্দ। সে তার জন্য একজন পার্টনার খুঁজতে বলেছিল। আমাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

রিডিজক স্বীকার করেন, শামিমার বয়স কম হওয়ার কারণে তার আরও অপেক্ষা করা উচিত ছিল। কিন্তু সে তা করেনি। সে বিয়ে করাটাকেই বেছে নিয়েছে। আমিও তাকে বিয়ে করেছি।

শামিমার স্বামী বলেন, তিনি আইএসের সঙ্গে যুদ্ধ করতে নিজ দেশ ছাড়লেও এখন স্ত্রী ও নবজাতককে নিয়ে দেশে ফিরতে চান। ২৭ বছর বয়সী ইয়াগো বর্তমানে সিরিয়ায় উত্তর-পূর্বাঞ্চলে কুর্দি বাহিনীর হাতে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে আটক আছেন। নিজ দেশে ফিরে গেলে সন্ত্রাসী সংগঠনে যোগ দেয়ার অপরাধে ছয় বছরের কারাদণ্ড হতে পারে ইয়াগো রিদাইকের।

বিবিসির মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক প্রতিবেদক কুয়েনটিন সামারভিলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ইয়াগো বলেন, তিনি ভুল বুঝতে পেরে আইএসকে পরিত্যাগ করেছেন। এখন এ দলটি ছেড়ে আসার চেষ্টা করেছেন তিনি। এ কারণে জঙ্গিরা তাকে ডাচ্‌ গোয়েন্দা দাবি করে রাকায় কারাবন্দী করে নির্যাতন করছে।

৩৯ হাজার লোকের সঙ্গে ইয়াগো, শামিমা ও তাদের নবজাতক জারাহ সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে আল-হাওয়াল শরণার্থীশিবিরে এক গ্রুপ সিরিয়ান যোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। তবে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে শামিমা এখন অন্য কোথাও পালিয়ে গেছেন বলে শোনা যাচ্ছে।

এদিকে শামিমার পরিবারের আইনজীবী তাসনিম আখুঞ্জির বরাত দিয়ে যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী পত্রিকা গার্ডিয়ান গত শুক্রবার এক খবরে বলেছে, জঙ্গিদের কাছ থেকে হত্যার হুমকির পর নিজের ও নবাগত সন্তানের নিরাপত্তার কথা ভেবে সন্তানকে নিয়ে পালিয়েছেন শামিমা। শুক্রবার ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড সানের খবরে বলা হয়, নিজের দুর্দশার কথা প্রকাশ করায় জঙ্গিরা শামিমাকে হত্যার হুমকি দিয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশি বংশোদভূত শামিমার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করার চিঠি দিয়েছে ব্রিটেন। ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাজ্য আইএসে যোগ দিতে সিরিয়ায় পাড়ি জমিয়েছিলেন শামিমা বেগম। তখন তার বয়স ছিল ১৫ বছর। আর তার সঙ্গে ছিলেন তার বান্ধবী আমিরা আব্বাস। তারও বয়স ছিল তখন ১৫ বছর।

আর তাছাড়া খাদিজা সুলতানা নামের ১৬ বছর বয়সী আরেক বান্ধবীও তাদের সঙ্গে ছিলেন। তারা তিনজনই লন্ডনের বেথনাল গ্রিন একাডেমির শিক্ষার্থী ছিলেন।

তারা তিনজন যুক্তরাজ্যের গেটওয়ে বিমানবন্দর থেকে প্রথমে তুরস্কে পৌঁছান। তুরস্কে পৌঁছানোর পর সীমান্ত পাড়ি দিয়ে সিরিয়ায় যান। সিরিয়ার শহর রাক্কায় কিছুদিন অবস্থানের পরে ডাচ নাগরিক ইয়াগো রিদাইকের সঙ্গে শামিমার বিয়ে হয়। তিনি অন্য ধর্ম থেকে ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন।

সে সময়ের স্মৃতিচারণ করে ইয়াগো বলেন, ১৫ বছর বয়সী শামিমাকে যখন তিনি বিয়ে করেন, তখন তার বয়স ছিল ২৩ বছর। আর এ বিয়েতে ভুল কিছু ছিল না বলে তিনি মনে করেন। কারণ, নিজের পছন্দেই তিনি এ বিয়ে করেন। কীভাবে রাকায় শামীমার সঙ্গে দেখা হয় সে বর্ণনা দেন তিনি।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের সুনামগঞ্জের দিরাইয়ের আহমেদ আলীর মেয়ে শামিমা। আহমেদ আলী অনেক আগে পূর্ব লন্ডনে বসতি গড়েছেন। শামিমা সেখান থেকে মাত্র ১৫ বছর বয়সে পালিয়ে প্রথমে তুরস্কে যান।

তারপর সীমান্ত পেরিয়ে চলে যান সিরিয়া। উদ্দেশ্য জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসে যোগ দেয়া। ঠিকই সেখানে পৌঁছার মাত্র কয়েকদিনের মধ্যে তিনি বিয়ে করেন ডাচ নাগরিক রিডিজককে। এরপর তার দুটি সন্তান হয়। তারা মারা যায়। ফেব্রুয়ারির শেষে এসে তার তৃতীয় সন্তানের জন্ম হয়।

 

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close