Featuredইউরোপ জুড়ে

আন্তর্জাতিক আদালতে ভাবলেশহীন সুচি’র উপস্থিতিতে রোহিঙ্গা গণহত্যার শুনানি

শীর্ষবিন্দু নিউজ: নেদারল্যান্ডসের হেগে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (আইসিজে) দায়ের করা মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগের শুনানি শুরু হয়েছে।

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংসতার বর্ণনা দিয়ে যাচ্ছেন গাম্বিয়ার টিম। আর হেগে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসে (আইসিজে) ভাবলেশহীন বসে আছেন মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচি।

বক্তব্য দিয়েছেন বাদি গাম্বিয়ার আইনজীবী আবু বাকার তামাদুর। সঙ্গে আছেন পায়াম আখাবানসহ দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ আইনজীবীরা। গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী আবদুল কোয়াই আহমেদ ইউসুফও শুনানিতে উপস্থিত রয়েছেন।

উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী আবু বাকার তামবাদোউ। তিনি বলেন, পরো গাম্বিয়াবাসীর চাওয়া হলো, কা-জ্ঞানহীন এই হত্যা বন্ধ করুক মিয়ানমার। এই সব বর্বরতা এবং নৃশংসতা, যা আমাদেরকে হতবাক করেছে এবং আমাদের সমন্বিত বিবেককে আহত করছে অব্যাহতভাবে তা বন্ধ করতে হবে। নিজেদের লোকদের বিরুদ্ধে এই গণহত্যা বন্ধ করতে হবে।

মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি নেদারল্যান্ডসের আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে একটি আইনি দলকে নেতৃত্ব দিতে হেগ-এ  পৌঁছেছেন। হেগে অবস্থিত জাতিসংঘের সর্বোচ্চ এই আদালতে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চালানো নৃশংসতার একের পর এক অভিযোগ, তথ্য প্রমাণ তুলে ধরছেন সংশ্লিষ্টরা। সেই কোর্টরুমের মধ্যে সুচি বসে চুপচাপ।

শুনানি শুরুর আগে গাড়িবহর নিয়ে হেগে অবস্থিত পিস প্যালেসে হাজির হন সুচি। সেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিকরা। তারা চিৎকার করে তার প্রতি প্রশ্ন ছুড়ে মারছিলেন। কিন্তু কোনো প্রশ্নের উত্তর দিলেন না সুচি।

আর আদালতের বাইরে সমবেত হয়েছেন বেশ কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা। তারা নির্যাতিতদের জন্য ন্যায়বিচার দাবি করে বিক্ষোভ করছেন।  রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংসতার মধ্য দিয়ে মিয়ানমার ১৯৪৮ সালের জেনোসাইড কনভেনশনে যে বাধ্যবাধকতা আছে তা লঙ্ঘন করেছে গাম্বিয়ার এমন অভিযোগে শুনানি শুরু হয়।

রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানিতে উপস্থিত থাকতে বাংলাদেশের পক্ষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি টিম ছাড়াও মানবাধিকার কর্মীসহ সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিবর্গ সেখানে উপস্থিত হয়েছেন। এ শুনানিতে বাংলাদেশ গাম্বিয়াকে তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহায়তা করবে।

গণহত্যা অপরাধ প্রতিরোধ ও শাস্তি সম্পর্কিত কনভেনশনের লঙ্ঘনের অভিযোগে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (আইসিজে) গাম্বিয়ায় আবেদনের স্বাগত জানিয়েছে কানাডা এবং নেদারল্যান্ডস।

উল্লেখ্য, পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়া ১১ই নভেম্বর আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে মামলা করেছে। মিয়ানমার গণহত্যা, ধর্ষণ এবং রোহিঙ্গা সম্প্রদায় ধ্বংস করছে বলে অভিযোগ করেছে মামলায়। গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলার শুনানির জন্য ১০ থেকে ১২ই ডিসেম্বর পর্যন্ত তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রথম ধাপে আজ শুনানি করছে গাম্বিয়া। আর আগামীকাল ১১ই ডিসেম্বর শুনানি করবে মিয়ানমার।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close