Featuredযুক্তরাজ্য জুড়ে

তৃতীয় পথের সন্ধানে ব্রেক্সিট আলোচনা

শীর্ষবিন্দু নিউজ, লন্ডন: অনেক টানাপড়েনের পর চলতি সপ্তাহে আবার ব্রিটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে ভবিষ্যৎ বাণিজ্য চুক্তি সম্পর্কে আলোচনা শুরু হয়েছে৷

ব্রিটেন ও ইইউ-র মধ্যে ভবিষ্যৎ বাণিজ্য চুক্তির লক্ষ্যে আলোচনা চলছে৷ এক ইইউ কর্মকর্তা বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে কিছুটা আশার আলো দেখাচ্ছেন৷ বুধবার পর্যন্ত লন্ডনে বৈঠকের পর বাকি আলোচনা ব্রাসেলসে অনুষ্ঠিত হবে৷ সংলাপের উপর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রভাব নিয়েও জল্পনাকল্পনা চলছে৷ ইইউ কমিশনের এক মুখপাত্র মঙ্গলবার বলেছেন, যে দুই পক্ষই চুক্তির লক্ষ্যে জোরালো আলোচনা করছে৷

ব্রেক্সিট-পরবর্তী বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে মৌলিক মতবিরোধ কাটানোর নানা পথ খুঁজছেন মধ্যস্থতাকারীরা৷ আগামী ১ জানুয়ারি পুরোপুরি ইইউ ত্যাগ করার পরেও ব্রিটেন ইউরোপের অভ্যন্তরীণ বাজারে অবাধ ব্যবসাবাণিজ্য চালিয়ে যেতে চাইলে সে দেশকে অনেক ইইউ-বিধিনিয়ম মেনে চলতে হবে এবং প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে ন্যায্য পরিবেশের গ্যারেন্টি দিতে হবে৷

অন্যদিকে ব্রিটেন ইইউ-র নিয়মকানুনের বেড়াজাল থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত হয়ে স্বাধীনভাবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি করতে চায়৷ এই অচলাবস্থা কাটানোর পথ খুঁজছে দুই পক্ষ৷ ফলে তৃতীয় বিকল্প নিয়ে জল্পনাকল্পনা শুরু হয়েছে৷

ইউরোপীয় কমিশনের আর্থিক পরিষেবা বিভাগের প্রধান জন বেরিগান ব্রিটেনের কাছে স্পষ্টভাবে জানতে চেয়েছেন, যে সে দেশ ইইউ-র বিধিনিয়ম থেকে ঠিক কতটা বিচ্যুতির পরিকল্পনা করছে৷ তার মতে, বিচ্যুতির মাত্রা গ্রহণযোগ্য হলে বোঝাপড়া সম্ভব হতে পারে৷ ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সামনে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে ব্রিটেন ব্যবসাবাণিজ্যের ক্ষেত্রে ইইউ-র বিধিনিয়ম থেকে কিছু বিচ্যুতির পথে যাবেই৷ কিন্তু সে বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক বোঝাপড়া থাকলে ভারসাম্য বজায় রাখা সম্ভব হতে পারে৷

সেই বোঝাপড়ার উপর আর্থিক কেন্দ্র হিসেবে লন্ডনের ভবিষ্যৎ অনেকটাই নির্ভর করবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন৷ ইইউ আপাতত কিছু সাময়িক ছাড় দিলেও চূড়ান্ত বোঝাপড়া সম্ভব না হলে লন্ডনের পুঁজিবাজারের অনেক কার্যকলাপ ইইউ-র কোনো দেশে সরিয়ে নিয়ে যেতে হবে৷ অথবা পরিষেবা ক্ষেত্রকে ভবিষ্যৎ বাণিজ্য চুক্তির আওতার বাইরে রাখার বিষয়েও আলোচনা চলছে৷ সে ক্ষেত্রে পরিস্থিতি অনুযায়ী ইইউ স্বাধীন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে৷ কিন্তু পদে পদে মতবিরোধ দেখা দিলে এমন কাঠামো কাজ করবে না বলে বেরিগান মনে করেন৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনও ব্রেক্সিট সংক্রান্ত আলোচনার উপর প্রভাব ফেলছে, নানা কারণে এমন ধারণা দানা বাঁধছে৷ সে ক্ষেত্রে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুনর্নিবাচিত হলে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন অনেকটা স্বস্তি বোধ করবেন এবং আমেরিকার ভরসায় ইইউ-র সঙ্গে বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে আরো ঝুঁকি নিতে পারবেন৷

অন্যদিকে জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হলে আমেরিকার সঙ্গে জনসন সরকারের সম্পর্ক তেমন মধুর নাও হতে পারে৷ বিশেষ করে উত্তর আয়ারল্যান্ডে শান্তি বিঘ্নিত হলে আইরিশ বংশোদ্ভূত বাইডেন ব্রিটেনের প্রতি কড়া মনোভাব দেখাতে পারেন৷ ব্যক্তিগত স্তরে দুই নেতার মধ্যে শীতল সম্পর্কের সম্ভাবনাও যথেষ্ট বেশি৷ ট্রাম্প জনসনকে ‘ব্রিটেনের ট্রাম্প’ হিসেবে বর্ণনা করেছিলেন৷

গত ডিসেম্বর মাসে ব্রিটেনের নির্বাচনে জনসনের জয়ের পর বাইডেন তাকে ‘শরীর ও আবেগের’ দিক থেকে ট্রাম্পের ক্লোন হিসেবে বর্ণনা করেছিলেন৷ এমন ব্যক্তি প্রেসিডেন্ট হলে জনসন ইইউ-র প্রতি নরম মনোভাব দেখাতে পারেন বলে অনুমান করা হচ্ছে৷ জনসন অবশ্য এই যোগসূত্র মেনে নিতে অস্বীকার করেছেন৷ ৩ নভেম্বর কোনো স্পষ্ট ফলাফল না দেখা গেলে ইইউ-র সঙ্গে চুক্তির জন্য তার হাতে সময় থাকবে না৷

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close