রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১১:১০

জন্মদিনের কেক কাটলেন খালেদা

জন্মদিনের কেক কাটলেন খালেদা

নিউজ ডেস্ক: রঙিন কাপড়ে সাজানো কক্ষটি। সাজানো হয়েছে ফুলে ফুলে। ঘড়ির কাটায় তখন ঠিক ১১টা বেজে ৫৫ মিনিট। অনেকটা হাসি মুখে কক্ষে প্রবেশ করলেন খালেদা। ১৫ আগস্ট। নিজের ৬৯তম জন্মদিনের কেক কাটলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

কেক কাটার কক্ষে আগেই অবস্থান করছিলেন, দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, নজরুল ইসলাম খান, ড. আবদুল মঈন খান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসসহ দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতা ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা।

তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে বড় আকৃতির কেক কাটেন খালেদা জিয়া। তখন সময় ঠিক ১২টা ১ মিনিট। দলীয় পতাকার আদলে করা হয় কেকটি। কেক কাটার আগে জন্মদিন নিয়ে কয়েক লাইনের গানও শোনালেন খালেদা জিয়া। গাইলেন কণ্ঠ শিল্পী মনির খান ও বেবী নাজনীন। এরপর ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর স্লোগান। কেক টাকার পর মির্জা ফখরুল ইসলাম খালেদা জিয়াকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

দলীয় আয়োজনের কেকটি কেটে পরে ঢাকা মহানগরের ব্যানারে তৈরি করা আরো একটি কেক কাটেন খালেদা জিয়া। মির্জা আব্বাসসহ অন্যদের নিয়ে। এ সময় মহানগর কমিটির সদস্য সচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল কিছুটা দূরে দাঁড়ালে তাকেও কাছে ডেকে নেন তিনি। এরপর ঢাকা মহানগরের কেকটি কাটেন।

বাইরে নেতা কর্মীদের ভিড়: 

দলীয় চেয়ারপারসনের জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের বাইরে ছিল উৎসুক নেতা-কর্মীদের ভিড়। বৃষ্টি উপেক্ষা করেই তারা অপেক্ষা করেন সেখানে। সরাসরি শুভেচ্ছা জানানোর সুযোগ না হলেও যেন দুঃখ নেই তাদের। যেন বাড়ির আঙিনা পর্যন্ত গিয়েই তাদের আনন্দ।

প্রবেশে ধাক্কাধাক্কি: 

জন্ম দিনের শুভেচ্ছা জানাতে কার্যালয়ে প্রবেশ পথে ঢুকতে গিয়ে ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েন অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। এক পর্যায়ে নিজেরা একজন আরেক জনের ওপর চড়াও হয়ে হাত তুলতেও যান। তবে এ সময় বড় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই জন্মদিন অনুষ্ঠান শেষ হয়।




Comments are closed.



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
All rights reserved © shirshobindu.com 2012-2024