ব্রিকলেন টু জিন্দাবাজার

সিসিক নির্বাচন: টেলিভিশন-আনারস নিয়ে দুই প্রার্থীই নতুন নতুন প্রতিজ্ঞা করছেন জনগণের দোয়ারে দোয়ারে

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনের আর মাত্র ১৫ দিন বাকি। তাই জমে উঠেছে প্রচার-প্রচারণা। এবার লড়াই হবে আনারস আর টেলিভিশনে। সিলেট জুড়ে তাই চলছে একটাই প্রশ্ন- আনারস না টেলিভিশন? পাড়া-মহল্লা, বাজার-ঘাট, দোকানপাট কিংবা চায়ের দোকান সবখানেই আলোচনা এই ফল আর যন্ত্র নিয়ে। নগরবাসী এখন অপেক্ষা করছে ১৫ জুনের ভোটযুদ্ধের। এ দিনই ঠিক হবে সিলেটের চতুর্থ মেয়র কে হবেন, নগরবাসী কাকে বেছে নেবে তাদের সেবক হিসেবে।

জানা গেছে, ১৫ জুনের ভোটযুদ্ধে আনারস প্রতীক নিয়ে রয়েছেন সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। টেলিভিশন নিয়ে প্রার্থী সাবেক নগর উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান আরিফুল হক চৌধুরী। রাজনৈতিক নির্বাচন না হলেও দুই প্রার্থীকে রাজনীতি ছাড়া দেখছেন না জনগণ। পক্ষ নিতেই রাজনীতি মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে। বদর উদ্দিন আহমদ কামরান সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আর আরিফুল হক চৌধুরী সাবেক মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সদ্য পদত্যাগ করা বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য। তাই উভয়ের প্রচরণার বেশিরভাগ সঙ্গী হচ্ছেন নিজ নিজ দলের নেতাকর্মীরা। নগরবাসীর দীর্ঘদিনের উন্নয়ন থেকে বঞ্চনা ও পরিবর্তনের আকাঙ্খা কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের জন্য। আর পরিবর্তনের স্বপ্ন তুলে ধরে সাইফুর রহমানের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে আকষর্ণ তুলে ধরছেন আরিফুল হক। তিনি নির্বাচিত হলে পরিকল্পিত নগরী, ইন্টারনেট সিটি, তরুণদের সিটি করপোরেশনে পার্ট টাইম চাকরি দেওয়াসহ নানা আকর্ষণে প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন।

সচেতন নাগরিক কমিটি ও সুশাসনের জন্য নাগরিক(সুজন) সিলেট বিভাগের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, “নগরীর প্রধান সমস্যা গুলোর সমাধান করতে পারেন সাবেক মেয়র। তবে জলাবদ্ধতার কবল থেকে মুক্তি মেলেনি নগরবাসীর। দুর্নীতি-লুটপাট করে উন্নয়ন বঞ্চিত করা হয়েছে সিলেটকে। তাই তিনি মনে করেন, যিনি পরিবর্তনের অঙ্গীকার করবেন, তিনিই জনসাধারণের সমর্থন পাবেন। নগরবাসী ভোট তাকেই ভোট দেবে যাকে তারা কাছে পাবে। তবে নির্বাচনে রাজনীতিকরণ ঠিক নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অপরদিকে, বদর উদ্দিন আহমদ কামরান অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত করতে চান। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রাখতে তার প্রচারণা চলছে। এক্ষেত্রে প্রচারণায় নতুন কোনো চমক নেই তার। আর খোদ আওয়ামী লীগের একটি অংশ তাকে আর মেয়র হিসেবে দেখতে না চাওয়াটা কাঁটা হিসেবে দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে। রাজনৈতিক বোদ্ধাদের মতে, এবারের নির্বাচনে অতীতের সব নির্বাচন ছাড়িয়ে গিয়ে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে।

 

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close