শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৬

রাজপরিবারের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ এনে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন মেগান

রাজপরিবারের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ এনে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন মেগান

/ ৩০
প্রকাশ কাল: সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১

শীর্ষবিন্দু নিউজ, লন্ডন: ব্রিটিশ রাজপরিবারে বর্ণবাদের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন প্রিন্স হ্যারির স্ত্রী মেগান মার্কেল। সাক্ষাৎকারে নিজেদের আর্থিক অবস্থা নিয়েও খোলামেলা কথা বলছেন এই রাজ দম্পতি।

এমন বিস্ফোরক দাবি করলেন ব্রিটেনের যুবরাজ হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান মার্কেল। রোববার এক টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেন তারা। সোমবার ( মার্চ) দুপুরে বিবিসির এক সাক্ষাৎকারে অভিযোগ করেন তিনি।

মেগান বলেন, আমি আফ্রিকান বংশোদ্ভূত আমেরিকান দেখেই এমন আচরণ করেছিল ব্রিটিশ রাজপরিবার। তিনি বলেন, আমার ছেলের গায়ের রঙ কি হবে তা নিয়ে রাজপরিবারের লোকজন উদ্বিগ্ন ছিল। আমার ছেলেকে রাজকীয় নিরাপত্তা এবং উপাধি দেওয়া হবে না, এমন কথাবার্তা চলছিল চারপাশে। এই রাজবধূ বর্ণবাদের পাশাপাশি মানসিক পীড়নের অভিযোগও করেন রাজপরিবারের বিরুদ্ধে। পীড়ন সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যাপ্রবণ হয়ে ওঠার কথাও স্বীকার করেছেন মেগান মার্কেল

ওই সাক্ষাৎকারে কার্যত স্ত্রীয়ের দাবিকেই সমর্থন করেন যুবরাজ হ্যারি। তিনি বলেন, আমি নিজের স্ত্রীর জন্য খুব গর্বিত। কারণ গর্ভবর্তী থাকার সময়ে অনেক খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে যেতে হয়েছিল মেগানকে। প্রিন্স হ্যারি জানিয়েছেন, রাজপ্রাসাদ ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর থেকে তাকে আর অর্থনৈতিক সুবিধা দেওয়া হচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়েই নেটফ্লিক্স অন্যান্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করে আয় বাড়ানোর চেষ্টা করছেন তিনি

মেগান আরও বলেন, সন্তানের গায়ের রং নিয়ে উদ্বেগের কথা রাজ পরিবারের বিশেষ কোনও সদস্য তাকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু ওই সাক্ষাৎকারে তার নাম খোলসা করেননি তিনি। তবে মেগান বলেন, ওই দিনগুলো আমার কাছে ভয়াবহ ছিল। আতঙ্ক ও হতাশা দিন দিন আমার মধ্যে গ্রাস করছিল। বারবার মনে হচ্ছিল নিজের ও আমার সন্তানদের না কোনও ক্ষতি হয়ে যায়।

মেগান বলেন, রাজপরিবারের থাকার সময়ে তিনি আত্মহত্যার কথাও ভেবেছিলেন। খুব খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে সেই সময়ে তিনি যাচ্ছিলেন। কারণ পারিপার্শ্বিক এমন কিছু ঘটনা হচ্ছিল, যা দেখে তিনি হতাশায় ভুগছিলেন। যুবরাজ হ্যারির সঙ্গে বিয়ের আগে কেট মিডেলটন মেগানকে কাঁদিয়ে দিয়েছিলেন। কেট মিডেলটন প্রিন্স উইলিয়ামসের স্ত্রী। মেগান বলেন, বিয়ের আগে থেকেই সব কিছু খারাপ হতে শুরু করে। ফলে তিনি প্রচণ্ড আতঙ্ক ও হতাশায় ভুগতে থাকেন সেই সময়ে।

মেগান জানান, তার সবচেয়ে বড় ভুলটি হল তিনি রাজ পরিবারকে বিশ্বাস করেছিলেন। তিনি ভেবেছিলেন সেখানে তাকে সুরক্ষিত রাখা হবে। সেই সঙ্গে হ্যারি বলেন, যদি প্রিন্সেস ডায়না থাকতেন, এসব দেখে তারও মন খারাপ হয়ে যেত।

প্রসঙ্গত, গত বছরই সমস্ত রাজকীয় দায়িত্ব থেকে সরে যান মেগান ও হ্যারি। সাধারণের মতো জীবন যাপন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন তারা। এমন ঘটনা সামনে আসার পরেই স্বাভাবিক ভাবেই বাড়ছে বিতর্ক। রাজপরিবারের ভিতরেই বর্ণবিদ্বেষসহ একাধিক অভিযোগ তোলেন মেগান। যদিও এর পাল্টা এখনও পর্যন্ত রাজপরিবারের তরফ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়নি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
All rights reserved © shirshobindu.com 2021