বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১২:৪৪

যুক্তরাজ্যে করোনার ‘তৃতীয় ঢেউ’ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে ঊর্ধ্বগামীতা

যুক্তরাজ্যে করোনার ‘তৃতীয় ঢেউ’ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে ঊর্ধ্বগামীতা

/ ৫৭
প্রকাশ কাল: রবিবার, ২০ জুন, ২০২১

শীর্ষবিন্দু নিউজ, লন্ডন: করোনাভাইরাস সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ যুক্তরাজ্যে ‘নিশ্চিতভাবে’ চলছে বলে উল্লেখ করেছেন ব্রিটিশ সরকারের টিকা কর্মসূচির উপদেষ্টা অধ্যাপক অ্যাডাম ফিন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিরর এই খবর জানিয়েছে।

সরকারি তথ্যেও দেখা গেছে, দেশটির ৮০ শতাংশের বেশি নগর ও শহরে সাপ্তাহিক আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। গত সপ্তাহে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা এক-তৃতীয়াংশ বেড়ে হয়েছে ৬১ হাজার ১৮১ জন। ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ‘ফ্রিডম ডে’ (বিধিনিষেধ প্রত্যাহারের দিন) এক মাস পিছিয়ে দেওয়ার পর সংক্রমণের এই ঊর্ধ্বগামীতা দেখা যাচ্ছে।

শনিবার সকালে ব্রিটিশ সরকারের জয়েন্ট কমিটি অন ভ্যাকসিনেশন অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনের (জেসিভিআই)-এর উপদেষ্টা অধ্যাপক অ্যাডাম ফিন বলেছেন, যুক্তরাজ্যে নিশ্চিতভাবে করোনাভাইরাস সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ চলছে।

ইউনিভার্সিটি অব ব্রিস্টলের অধ্যাপক ফিন বলেন, সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে। হয়ত খুব দ্রুত ছড়াচ্ছে না। তবে এটি বাড়ছে। ফলে নিশ্চিতভাবে এই তৃতীয় ঢেউ চলছে। আমরা উপসংহারে আসতে পারি যে, এখন বয়স্কদের দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া ও ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে তৃতীয় ঢেউয়ের মধ্যে প্রতিযোগিতায় আমরা লিপ্ত। তিনি জানান, জেসিভিআই এখনও শিশুদের টিকা দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য কাজ করছে। অনুমোদন পেলেও এখনই এই উদ্যোগ অগ্রাধিকার পাবে না।

ব্রিটিশ সরকারের সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, ৪ কোটি ২৪ লাখ ৬০ হাজার ৬৩২ জন মানুষ করোনা টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন এবং দুই ডোজ পাওয়া বয়স্ক মানুষের সংখ্যা ৩ কোটি ৮ লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৭ জন। বৃহস্পতিবার ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের প্রকাশিত রিয়েল টাইম অ্যাসেসমেন্ট অব কমিউনিটি ট্রান্সমিশন (রিয়্যাক্ট-১) অ্যানালাইসিস নামের জরিপ অনুসারে, প্রতি ১১ দিনেই দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে আক্রান্তের পরিমাণ। আর এই ঊর্ধ্বমূখী প্রবণতার মধ্যে দেশটির সবচেয়ে প্রভাবশালী হয়ে উঠেছে ভারতে প্রথম শনাক্ত হওয়া ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট।

ফেব্রুয়ারি মাসের পর এই প্রথম দেশটিতে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা দশ হাজার ছাড়িয়েছে। এতে করে করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগ ও ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ানোর মধ্যে প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, ইংল্যান্ডের ৩১৫টির মধ্যে ২৫৮টি স্থানীয় কর্তৃপক্ষ গত সপ্তাহের তুলনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির কথা জানিয়েছে। নর্থ টাইনিসাইড, লিভারপুল, কাউন্টি ডারহাম, কর্নওয়াল ও হিনবার্নে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে অনেক বেশি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
All rights reserved © shirshobindu.com 2021