মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৩:১৩

‘দ্বৈত-শতবার্ষিকী‘ পালন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকে

‘দ্বৈত-শতবার্ষিকী‘ পালন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকে

নিউজ ডেস্ক, লন্ডন / ৪৪
প্রকাশ কাল: শনিবার, ২ জুলাই, ২০২২

যুক্তরাজ্যে বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালাইমনাই ইন দ্য ইউকে’র সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ৩০ জুন বৃহস্পতিবার।

পূর্ব লন্ডনের ‘লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবে‘ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেনের সঞ্চালনায় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সভাপতি দেওয়ান গৌস সুলতান।

এতে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালাইমনাই ইন দ্য ইউকে’র উপদেষ্টা শাহগির বক্ত ফারুক, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রশান্ত দত্ত পুরকায়স্ত বিইএম, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার আব্দুস শহীদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপদেষ্টা আব্দুর রকিব, কালচারাল সেক্রেটারি রিপা সুলতানা রকিব, নির্বাহী সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক মারুফ চৌধুরী, নির্বাহী সদস্য ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আবুল কালাম, নির্বাহী সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান, নির্বাহী সদস্য ব্যারিস্টার এমকিউ হাসান, সাবেক নির্বাহী সদস্য মীর্জা আসহাব বেগ, নির্বাহী সদস্য বেলাল রশীদ চৌধুরী ও সদস্য শিরিন উল্লাহ।

শুরুতেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকের পক্ষ থেকে উপস্থিত সবাইকে স্বাগত জানানো হয়। এরপর সাংবাদিকদের কাছে প্রেরিত লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, জাতির সামাজিক, রাজনৈতিক অর্থনৈতিক ইতিহাসে তথা রাষ্ট্র বিনির্মানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান অপরিসীম। ইতোমধ্যে আমরা জাতির জনকের শতবর্ষও পেরিয়ে এসেছি।

বিশেষতঃ করোনাকালীন বিধিনিষেধ, সীমাবদ্ধতা, নিয়ন্ত্রণ ও অন্যান্য আনুষাঙ্গিক কারণে আমাদের জাতীয় ইতিহাসের এই দুটো মহান অর্জন তথা ঐতিহ্য আমরা তাৎক্ষণিকভাবে পালন করতে পারিনি। তাই আমাদের বর্তমান (তথা তৃতীয়) কার্যকরী পরিষদ সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, ইতিহাসের এ দুটো ঐতিহ্যকে আমরা একত্রে পালন করবো। সে লক্ষ্যে আমরা এ অনুষ্ঠানের নাম দিয়েছি *”দ্বৈত-শতবার্ষিকী”* বা *Duel Centenary*। এ অনুষ্ঠানের ব্যাপ্তি হবে আগামী জুলাই হতে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন মাস।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরুর দিন অর্থাৎ ১লা জুলাই পূর্ব লন্ডনের ব্রীকলেইন এলাকায় একটি র‍্যালী ও আলতাব আলী পার্কে সমাবেশের মাধ্যমে আমরা এই দ্বৈত শতবার্ষিকী উদযাপনের উদ্বোধন করবো।

এ ছাড়াও থাকবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধুর উপর আন্তর্জাতিক মানের পৃথক পৃথক ওয়েবিনার। এ সব আলোচনায় বাংলাদেশের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের অধ্যাপক, অর্থনীতিবিদ, বুদ্ধিজীবী, কূটনীতিক ও মানবাধিকার আন্দলনে সম্পৃক্ত ব্যক্তিবর্গ যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখবেন বলে আশা করছি। এ সবের আরো বিস্তারিত আগামীতে জানান হবে।

এসব ছাড়াও থাকবে সদস্য ও তাদের পরিবারদের জন্যে কিছু বিনোদনমূলক কর্মকাণ্ড ও অনুষ্ঠান। শেষ পর্যায়ে ১১ই সেপ্টেম্বর বড় একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আমাদের এ কর্মসূচীর সমাপ্তি হবে। আমরা আশা করছি এ সমাপ্তি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের অত্যন্ত উচ্চ পর্যায়ের একাধিক অতিথি যোগ দেবেন, যাদের বেশীরভাগই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী।

সিলেট বিভাগসহ অন্যান্য আরও কিছু জেলাসমূহ বর্তমানে ভয়াবহ বন্যায় কবলিত। প্রলঅংকারি এ বন্যার কারনে যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন আমরা তাঁদের আত্মার শান্তি কামনা করছি। সেই সঙ্গে এই দুর্যোগ ও দুর্ভোগে এখনও যারা ভুগছেন সে সব বানবাসী মানুষদের প্রতি সহমর্মিতা ও সমবেদনা জানাচ্ছি। হতভাগ্য এই মানুষজনকে দুর্দশা ও দুর্ভোগ থেকে মহান সৃষ্টিকর্তা যেন রেহাই দেন, সে কামনা করছি।

সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক, অসাম্প্রদায়িক, অলাভজনক এবং গনতান্ত্রিক মূল্যবোধসম্পন্ন এ সংগঠনটি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের স্মৃতিজাগানিয়া সোনালী দিন, মধুমাখা রোমাঞ্চ আর আবেগমাখা মুহূর্তসমূহ তথা আন্দোলন-সংগ্রামের ইতিহাস রোমন্থনের এক অনুভূতিপ্রবন স্বপ্নীল প্রয়াস। সেই সাথে বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও স্বাধীনতার গৌরবোজ্জ্বল অর্জনকে ধারন, লালন ও বহন করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে আমাদের এই প্রতিষ্ঠান। এ সব অতীতগাঁথার পাশাপাশি ভবিষ্যৎ সম্পর্কেও আমাদের কিছু চিন্তা-চেতনা রয়েছে।

আমরা আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে, বিনোদনসহ অব্যাহত বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি ইতোমধ্যে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে চুক্তি করে ১৫ লক্ষ টাকার একটি চিরস্থায়ী আমানত সৃষ্টি করেছি – একটি শিক্ষা তহবিল গঠন করেছি। এই আমানত-তহবিল থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশ হতে প্রতি বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ৬ জন মেধাবী কিন্তু অর্থনৈতিকভাবে অনগ্রসর শিক্ষার্থীকে বার্ষিক ১২ হাজার টাকা করে শিক্ষা-বৃত্তি দেওয়া হবে। এই সহায়তা অনাদিকাল পর্যন্ত চলবে। এ খাতে আমাদের আরও অর্থায়নের প্রক্রিয়া ও পরিকল্পনা চলমান রয়েছে।

আমাদের বিগত দিনের চলার পথে আমরা কমিউনিটির কাছ থেকে প্রচুর সাহায্য-সহায়তা পেয়েছি। তার জন্য আমরা সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আমাদের সব প্রকাশ্য / উন্মুক্ত অনুষ্ঠানে আমাদের কমিউনিটির ও মুক্তিযোদ্ধাদের যোগদান সব সময়ই একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল এবং আছে। আমাদের এই দ্বৈত শতবার্ষিকী অনুষ্ঠানেও কমিউনিটির ও মুক্তিযোদ্ধা ভাইবোনদের সাহায্য-সহায়তা ও শুভকামনার প্রত্যাশায় তাদের সশ্রদ্ধ আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। আমাদের সদস্যবৃন্দ ও তাদের পরিবারের সমর্থন ও সহযোগিতার মাধ্যমে আমাদের আসন্ন অনুষ্ঠান সমুহ সফল এবং প্রাণবন্ত হবে বলে আশা রাখি।

আমাদের এই ক্ষুদ্র ও আবেগঘন আয়োজনে ও ভবিষ্যতের কর্মসূচীতে আপনাদের সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। আপনারা যারা কষ্ট করে এ দুপুরে আমাদের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়েছেন, তাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি লন্ডন-বাংলা প্রেসক্লাবকে আজকের এই সংবাদ সম্মেলনটি আয়োজন করার জন্য।

এতে আরো বলা হয়, যুক্তরাজ্যে বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের এ সংগঠনের যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে। এই কয়েক বছরে আপনাদের অনেকেই আমাদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন এবং আমাদের প্রচারকার্যেও সহায়তা করে আমাদের কৃতার্থ করেছেন। সে জন্যে আপনাদের আবারও ধন্যবাদ। আজ এটা আমাদের সংগঠনের দ্বিতীয় সংবাদ সম্মেলন।




Leave a Reply

Your email address will not be published.



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
All rights reserved © shirshobindu.com 2022